ঢাকা ১০ শ্রাবণ ১৪৩১, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪

চুয়াডাঙ্গায় আড়াই কোটি টাকার স্বর্ণসহ যুবক আটক

প্রকাশ: ১০ জুলাই ২০২৪, ০৫:১৫ পিএম
আপডেট: ১০ জুলাই ২০২৪, ০৬:০৩ পিএম
চুয়াডাঙ্গায় আড়াই কোটি টাকার স্বর্ণসহ যুবক আটক
ছবি : খবরের কাগজ

চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার ঠাকুরপুর সীমান্ত দিয়ে ভারতে স্বর্ণ পাচারের সময় এক যুবককে আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। এ সময় তার কাছ থেকে ৮টি স্বর্ণের বার জব্দ করা হয়। জব্দ স্বর্ণের বারের আনুমানিক বাজারমূল্য আড়াই কোটি টাকা।

বুধবার (১০ জুলাই) সকালে তাকে আটক করা হয়। 

আটক আকরাম হোসেন (৩০) উপজেলার ঠাকুরপুর গ্রামের আব্দুস ছাত্তারের ছেলে। 

এদিন দুপুরে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন চুয়াডাঙ্গা-৬ বিজিবির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল সাঈদ মোহাম্মদ জাহিদুর রহমান।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ঠাকুরপুর সীমান্ত দিয়ে ভারতে স্বর্ণ পাচার হবে এমন সংবাদের ভিত্তিতে ঠাকুরপুর বিওপি কমান্ডার সুবেদার সাইফুল ইসলামের নেতৃত্বে একটি বিশেষ টহল দল অভিযান পরিচালনা করে। এ সময় মোটরসাইকেলযোগে এক ব্যক্তিকে সীমান্তের দিকে যাচ্ছিল। বিজিবির টহল দল দেখে পালানোর চেষ্টা করলে তাকে আটক করা হয়। পরে তার কোমরে লুঙ্গির ভেতরে স্কচটেপ দিয়ে মোড়ানো চারটি প্যাকেটের ভেতর থেকে ২.৩৩৫ কেজি ওজনের আটটি স্বর্ণের বার জব্দ করা হয়। জব্দকৃত স্বর্ণের আনুমানিক বাজারমূল্য প্রায় আড়াই কোটি টাকা।

লেফটেন্যান্ট কর্নেল সাঈদ মোহাম্মদ জাহিদুর রহমান খবরের কাগজকে বলেন, ‘বিজিবির পক্ষ থেকে দর্শনা থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। স্বর্ণের বারগুলো চুয়াডাঙ্গা ট্রেজারি অফিসে জমা দেওয়া হয়েছে।’

আফজালুল হক/সালমান/ 

মৌলভীবাজারে খুলেছে দোকানপাট, স্বস্তি জনমনে

প্রকাশ: ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৩:৩১ পিএম
আপডেট: ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৩:৩১ পিএম
মৌলভীবাজারে খুলেছে দোকানপাট, স্বস্তি জনমনে
ছবি: খবরের কাগজ

কোটা সংস্কার আন্দোলনকে কেন্দ্র করে বিক্ষোভ ও সংঘর্ষের কারণে চার দিন বন্ধ থাকার পর মৌলভীবাজারে অফিস-আদালতসহ দোকানপাট খুলেছে। সড়কে চলতে শুরু করেছে যানবাহন।

বুধবার (২৪ জুলাই) সকাল থেকেই জেলার পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করে। এতে জনমনে ফিরেছে স্বস্তি।

বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) সকাল থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত মৌলভীবাজার জেলা শহরের বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে দেখা গেছে, শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে এবং সরকারি স্থাপনায় সতর্ক অবস্থানে রয়েছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। 

এ সময় তাদের সড়কে টহল দিতে দেখা যায়।

এ ছাড়া জেলা শহরের কোর্টরোড, চৌমোহনা, সেন্ট্রালরোড, কুসুমবাগ, চাঁদনীঘাট এলাকার ছোটবড় দোকানসহ বিভিন্ন বিপণিবিতান খোলা রয়েছে।

এদিকে রিকশা, সিএনজিচালিত অটোরিকশা, ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা, মোটরসাইকেলসহ অন্যান্য যানবাহন গুরুত্বপূর্ণ সড়কে চলাচল করছে। পাশাপাশি খেটে খাওয়া দিনমজুর ও নিম্ন আয়ের মানুষেরা নিজ নিজ কাজে যাচ্ছেন।

রিকশাচালক হাছন আলি খবরের কাগজকে বলেন, গত কয়েকদিন বড় সড়কে রিকশা চালাতে পারিনি। পাড়া মহল্লায় চালিয়েছি। আয় কম ছিল। এখন সড়কে রিকশা চালাচ্ছি। আয় ভাল হবে।

দিনমজুর নিতাই মলাকার বলেন, ভয়ে কয়েকদিন ঘর থেকে বের হইনি। দুদিন ধরে কাজে যাচ্ছি। রোজগার করছি। এমন অশান্তি আর চাই না।

এদিকে দীর্ঘদিন ব্যাংক ও ইন্টারনেট বন্ধ থাকায় গ্রাহকেরা বিদ্যুতের প্রিপেইড কার্ড বিক্রির প্রতিষ্ঠানে ভিড় জমিয়েছেন। এমন এক প্রতিষ্ঠানের পরিচালক ফজলু মিয়া খবরের কাগজকে বলেন, বিদ্যুৎ গ্রাহকদের মধ্যে এখনো আতঙ্ক রয়েছে। যার ফলে অনেকে নিজেদের মিটারে বিদ্যুতের ইউনিট থাকার পরও কার্ড কিনতে ভিড় করছেন।

সেন্ট্রাল রোডের কাপড় ব্যবসায়ী সঞ্জিত দাস বলেন, দেশের সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় গত মঙ্গলবার পর্যন্ত আমাদের বিপণিবিতান বন্ধ ছিল। বুধবার সকাল থেকে কারফিউ শিথিল হওয়ায় বিপণিবিতান খুলেছি। তবে সন্ধ্যা ৬টার পর ফের বন্ধ করার ঘোষণা রয়েছে।

তিনি বলেন, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান খুললেও ক্রেতা কম। বেচাকেনাও কম। এরপরও স্বস্তি যে অন্তত দোকানপাট খুলেছে।

শহরের পশ্চিমবাজার এলাকার ব্যবসায়ী সাহেদ মিয়া বলেন, দেশের পরিস্থিতি স্বাভাবিক হচ্ছে। যানবাহন চলাচল বেড়েছে এবং ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান খুলেছে। টুকটাক কিছু বেচাকেনা হয়েছে।

জেলা প্রশাসক ড. উর্মি বিনতে সালাম জানান, মৌলভীবাজার জেলায় সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত কারফিউ শিথিল থাকবে। কারফিউ শিথিলের নির্ধারিত সময়ে ব্যবসায়ীরা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখতে পারবেন।

এদিকে বিএনপি-জামায়াত নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার অব্যাহত রয়েছে। মৌলভীবাজারে এর মধ্যেই ১১ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

জেলা পুলিশ সুপার মো. মনজুর রহমান জানান, বিশেষ ক্ষমতা আইনে ছয়টি মামলায় মৌলভীবাজারে ১১ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। জেলায় বর্তমানে স্বাভাবিক অবস্থায় বিরাজ করছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা মাঠে আছেন।

পুলক/পপি/

চট্টগ্রামের ২৭ মামলায় গ্রেপ্তার ৭০৩

প্রকাশ: ২৫ জুলাই ২০২৪, ০২:৫৪ পিএম
আপডেট: ২৫ জুলাই ২০২৪, ০২:৫৬ পিএম
চট্টগ্রামের ২৭ মামলায় গ্রেপ্তার ৭০৩

কোটা সংস্কার আন্দোলনে সহিংসতায় চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন এলাকা ও জেলায় গত এক সপ্তাহে মোট ২৭টি মামলায় আসামি করা হয়েছে প্রায় ৪০ হাজার। এ পর্যন্ত গ্রেপ্তার হয়েছে ৭০৩ জন। এরা সবাই বিএনপি-জামায়াতের কর্মী ও সমর্থক।  

বুধবার (২৪ জুলাই) কোটা সংস্কার আন্দোলন ঘিরে পানি উন্নয়ন বোর্ড কার্যালয় ভাঙচুর, হত্যাচেষ্টা, মোটরসাইকেলে অগ্নিসংযোগ ও বিস্ফোরণের ঘটনায় নগরের চান্দগাঁও থানায় আরেকটি মামলা হয়েছে। এতে ৭০০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

অপরদিকে ১৬ জুলাই রাত থেকে বুধবার (২৪ জুলাই) সকাল আটটা পর্যন্ত চট্টগ্রাম মহানগর ও জেলায় গ্রেপ্তার হয়েছে ৭০৩ জন।

সিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) কাজী মো. তারেক আজিজ বলেন, চট্টগ্রামে কোটা সংস্কার আন্দোলনে হত্যা, দাঙ্গা, সন্ত্রাসী কার্যক্রম ও নাশকতার ঘটনায় ১৬টি মামলা হয়েছে। এতে আসামি প্রায় ৩৬ হাজার। এসব মামলায় গত ২৪ ঘণ্টায় ৪৬ জনসহ মোট ৩৭৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

চট্টগ্রাম জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) আবু তৈয়ব মো. আরিফ হোসেন বলেন, চট্টগ্রাম জেলায় হামলা, ভাঙচুরের ঘটনায় ১১টি মামলা হয়েছে। এগুলোতে আসামি প্রায় চার হাজার। এসব মামলায় গত ২৪ ঘণ্টায় ৫৭ জনসহ ৩৩০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সঙ্গে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের সংঘর্ষে গত ১৬ জুলাই বিকেলে নগরের পাঁচলাইশ থানাধীন মুরাদপুর এলাকায় তিনজন নিহত হয়েছেন। গেল ১৮ জুলাই চান্দগাঁও থানার বহদ্দারহাটে সংঘর্ষে দুইজন নিহত হয়েছেন। এ দিন বহদ্দারহাটে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ চবি শিক্ষার্থী হৃদয় চন্দ্র বড়ুয়া মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছেন বলে জানা গেছে ।

হাসপাতালে ভর্তি আছেন ১৬ জন
চট্টগ্রামে সহিংসতার ঘটনায় আহত ১৬ জন ভর্তি রয়েছেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। এর মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় আইসিইউতে রয়েছেন। 

চমেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ তসলিম উদ্দীন বলেন, কোটা নিয়ে সহিংসতার ঘটনায় আহত দুই শতাধিক হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। এর মধ্যে বেশিরভাগই সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন। এখন ১৬ জন ভর্তি আছেন হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ডে। অগ্নিদগ্ধ একজন আছেন আইসিইউতে।

চট্টগ্রাম ব্যুরো/জোবাইদা/অমিয়/

পদ্মায় স্পিডবোট ডুবে ৬ দিন ধরে নিখোঁজ নৌপুলিশ সদস্য

প্রকাশ: ২৫ জুলাই ২০২৪, ০১:১৩ পিএম
আপডেট: ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৩:১৩ পিএম
পদ্মায় স্পিডবোট ডুবে ৬ দিন ধরে নিখোঁজ নৌপুলিশ সদস্য
প্রতীকী ছবি; সংগৃহীত

মাদারীপুর জেলার শিবচরে পদ্মা নদীতে স্পিডবোট ডুবে উপজেলার চর জানাজাত নৌপুলিশ ফাঁড়ির মেজবাউদ্দিন (৫৬) নামে এক সদস্য ছয় দিন ধরে নিঁখোজ।

শুক্রবার (১৯ জুলাই) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে পদ্মা নদীর হাজরা চ্যানেলে ঢেউয়ে স্পিডবোটটি উল্টে গেলে নিখোঁজ হন তিনি।

বিষয়টি খবরের কাগজকে নিশ্চিত করেছেন চর জানাজাত নৌপুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. সালাম।

নিখোঁজ মেজবাউদ্দিন শিবচর উপজেলার চর জানাজাত নৌপুলিশ ফাঁড়িতে দায়িত্বরত ছিলেন। তার বাড়ি ঝালকাঠি জেলায়।

ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. সালাম খবরের কাগজকে জানান, শুক্রবার বিকেলে যাত্রীরা ট্রলারে পদ্মা নদী পার হচ্ছে এমন খবর পেয়ে চর জানাজাত নৌপুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক (এসআই) ইলিয়াস, সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) সুমন, কনস্টেবল আতাউর রহমান, নূরে আলম, মাইনুল ও মেজবাউদ্দিন স্পিডবোট নিয়ে টহলে যায়। এ সময় হাজরা চ্যানেলে তীব্র স্রোত ও ঢেউয়ে স্পিডবোটটি উল্টে যায়। 

এ সময় পাশে থাকা একটি ট্রলার এগিয়ে গেলে অন্যরা সাঁতরে ট্রলারে উঠতে পারলেও মেজবাউদ্দিন ডুবে যান। স্পিডবোটটিও স্রোতে তলিয়ে গেলে আর খোঁজ পাওয়া যায়নি। শুক্রবার থেকেই কোস্টগার্ড, নৌপুলিশ ও বিআইডব্লিউটিএ উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, ‘দুর্ঘটনার পরই আমরা খোঁজ করে যাচ্ছি। কিন্তু কোথাও তার মরদেহের সন্ধান মেলেনি। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে মেজবাউদ্দিনের সন্তানরা এসেছিলেন। এ দুর্ঘটনায় আমরা সবাই ব্যথিত।’

চর জানাজাত নৌপুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পরিদর্শক আনিসুর রহমান খবরের কাগজকে বলেন, ‘তার কোনো খোঁজ এখনো মেলেনি। আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।’

রফিকুল ইসলাম/ইসরাত চৈতী/অমিয়/

ট্রলারডুবিতে ছাত্র নিখোঁজ সেন্টমার্টিনে কোস্টগার্ডের সঙ্গে সংঘর্ষে যুবক গুলিবিদ্ধ

প্রকাশ: ২৫ জুলাই ২০২৪, ১২:৩৩ পিএম
আপডেট: ২৫ জুলাই ২০২৪, ১২:৫০ পিএম
সেন্টমার্টিনে কোস্টগার্ডের সঙ্গে সংঘর্ষে যুবক গুলিবিদ্ধ

কক্সবাজারের টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌপথে যাত্রীবাহী ট্রলারডুবির ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় ১৬ জনকে উদ্ধার করা হলেও নুর মোহাম্মদ সৈকত নামে এক কলেজছাত্র নিখোঁজ রয়েছেন। 

এদিকে ট্রলারটি উদ্ধারে কোস্টগার্ডের সহায়তা না পেয়ে তাদের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন স্থানীয়রা। ভাঙচুর করেন সেন্টমার্টিনে কোস্টগার্ডের কার্যালয়। একপর্যায়ে গুলি চালায় কোস্টগার্ড। এ সময় মোহাম্মদ হামিদ (১৯) নামের এক যুবক গুলিবিদ্ধ হন।

এর আগে বুধবার (২৪ জুলাই) বেলা ৩টার দিকে টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিন যাওয়ার পথে সাগরে ঝড়ের কবলে পড়ে ট্রলারটি ডুবে যায়।

নিখোঁজ সৈকতের ছোট ভাই মুনিব মোহাম্মদ রাফি বলেন, ‘সৈকত ট্রলারে করে সেন্টমার্টিনের বাসায় যাচ্ছিলেন। পথে ঝোড়ো হাওয়ার কবলে পড়ে তাদের ট্রলারটি। তখন থেকে নিখোঁজ রয়েছেন সৈকত। কোস্টগার্ডের সহায়তা চেয়েও পাওয়া যায়নি। উল্টো আমাদের লোকজনের ওপর হামলা করা হয়েছে।’ 

সেন্টমার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. মুজিবুর রহমান বলেন, কোস্টগার্ডের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনায় একজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। তাকে স্থানীয় হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। 

সেন্টমার্টিন হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মো. নাঈমুর রহমান বলেন, হামিদের বাম হাতে গুলি ঢুকে বেরিয়ে গেছে।

এ বিষয়ে জানতে কোস্টগার্ড সেন্টমার্টিন ও টেকনাফ স্টেশন কমান্ডারদের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করে সংযোগ পাওয়া যায়নি।

মুহিবুল্লাহ/শাহিন/পপি/অমিয়/

অচল সিলেট সচলের পথে

প্রকাশ: ২৫ জুলাই ২০২৪, ১২:২৩ পিএম
আপডেট: ২৫ জুলাই ২০২৪, ১২:২৩ পিএম
অচল সিলেট সচলের পথে
বুধবার সকাল থেকে কারফিউ শিথিল হওয়ায় স্বাভাবিক হয় সিলেটের জনজীবন। ছবি: খবরের কাগজ

গত শুক্রবার মধ্যরাত থেকে সারা দেশে কারফিউ ঘোষণার পর থেকে সিলেটে অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়। তবে বুধবার (২৪ জুলাই) কারফিউ শিথিল ও সীমিত সময়ের জন্য অফিস-আদালত চালু করায় অনেকটাই সচলের পথে সিলেটের সার্বিক অবস্থা। 

বুধবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত সিলেট নগরীর বিভিন্ন প্রধান ও গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় দেখা যায়, প্রধান সড়কের পাশের দোকানপাট ও বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান খুলেছে। বেশ কিছু মার্কেট ও শপিংমল খোলা হয়েছে। এসব মার্কেটে অনেককে কেনাকাটা করতেও দেখা গেছে। নগরীর কাঁচাবাজারেও ভিড় ছিল ক্রেতাদের। 

গত তিন দিনের চেয়ে গতকাল সড়কে সিএনজি অটোরিকশা ও রিকশা চলাচল বেশি ছিল। সড়কে প্রাইভেট যানবাহনের সংখ্যাও বেড়েছে। সকাল থেকেই পুলিশ, বিজিবি, সেনাবাহিনী সিলেটের প্রধান ও গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলোতে টহল দিচ্ছে। সড়কে যানবাহন থাকায় ও দোকানপাট খোলায় সাধারণ মানুষের মধ্যে কিছুটা স্বস্তি ফিরেছে। তবে ইন্টারনেট সংযোগ না থাকায় বিদ্যুৎ বিল, গ্যাস বিল, পানির বিল দিতে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে মানুষকে।

সিলেট কেন্দ্রীয় বাস ট্রার্মিনাল থেকে সীমিতসংখ্যক দূরপাল্লার বাস চলাচল করেছে। আন্তজেলার বাসগুলোও সিলেট থেকে ছেড়েছে। ইউনিক বাসের সিলেট কাউন্টার ম্যানেজার মো. আলেক খবরের কাগজকে বলেন, ‘প্রায় এক সপ্তাহ পর আমাদের বাস চালু হয়েছে। সকাল ৮টা থেকে এখন পর্যন্ত ৮টি গাড়ি ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে গেছে। তবে যাত্রীসংখ্যা কম। আমাদের গাড়িতে ৩৬টি সিট থাকলেও প্রতি গাড়িতে ২৫ থেকে ২৭টি টিকিট বিক্রি হয়েছে।’ 

সিলেট নগরীর বন্দরবাজারের মধুবন মার্কেটের আলী শাড়ি ঘরের প্রোপাইটর মো. লিয়াকত আলী বলেন, ‘প্রায় এক সপ্তাহ পর মার্কেট খুলেছে। দোকান খুললেও ক্রেতা খুবই কম। দেশের পরিস্থিতি স্বাভাবিক হোক এটাই চাই।’