ঢাকা ১০ শ্রাবণ ১৪৩১, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪

প্রাণীর বিভিন্নতা ও শ্রেণিবিন্যাস অধ্যায়ের ১৪টি অনুধাবনমূলক প্রশ্নোত্তর- এইচএসসি জীববিজ্ঞান ২য় পত্র

প্রকাশ: ১৩ জুন ২০২৪, ০৬:২৬ পিএম
আপডেট: ১৩ জুন ২০২৪, ০৬:২৬ পিএম
প্রাণীর বিভিন্নতা ও  শ্রেণিবিন্যাস অধ্যায়ের ১৪টি অনুধাবনমূলক প্রশ্নোত্তর- এইচএসসি জীববিজ্ঞান ২য় পত্র

অনুধাবনমূলক প্রশ্ন ও উত্তর

১. অরীয় প্রতিসম প্রাণী বলতে কী বোঝায়?
উত্তর: যখন কোনো প্রাণিদেহকে কেন্দ্রীয় অক্ষ বরাবর যেকোনো তলে সমান অংশে বিভক্ত করা যায় তখন তাকে অরীয় প্রতিসাম্য বলে। এরা কলা সংগঠন মাত্রার দ্বিস্তরী প্রাণী। Cnidaria ও Ctenophora পর্বের প্রাণীরা অরীয় প্রতিসম প্রাণী।

২. Craniata বলতে কী বোঝ?
উত্তর: Chordata পর্বের Vertebrata উপপর্বের প্রাণীদের একটি বিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো এদের মস্তিষ্ক নির্দিষ্ট করোটিকা দ্বারা সুরক্ষিত থাকে। অস্থিময় বা তরুণাস্থিময় ক্রেনিয়ামের ভেতর মস্তিষ্ক অবস্থান করে বলে Vertebrata উপপর্বের আরেক নাম Craniata। 

৩. ট্যাক্সন বলতে কী বোঝ?
উত্তর: ট্যাক্সন হচ্ছে শ্রেণিবিন্যাসের একটি একক। শ্রেণিবিন্যাসকরণের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন প্রাণীকে তার নিজস্ব বৈশিষ্ট্য ও অন্যান্য জীবের সঙ্গে তার সম্পর্ক এবং সাদৃশ্য ও বৈসাদৃশ্যের ভিত্তিতে একেকটি দল বা গোষ্ঠীতে স্থাপন করা হয়। এ স্তরগুলোকেই ট্যাক্সন বলে।

৪. Urochordata উপপর্বের প্রাণীদের সাগর ফোয়ারা বলা হয় কেন?
উত্তর: পৃথিবীর সব সমুদ্র উপকূলে অগভীর পানিতে Urochordata উপপর্বের প্রাণী পাওয়া যায়। এদের কিছু প্রজাতি সাইফন দিয়ে সজোরে পানি উৎসারিত করে। তাই Urochordata উপপর্বের প্রাণীদের সাগর ফোয়ারা বলা হয়।

৫. Cnidaria পর্বের প্রাণীদের সমুদ্রের অলংকার বলা হয় কেন? 
উত্তর: Cnidaria পর্বের অধিকাংশ প্রাণী সামুদ্রিক। এদের অনেকেই নিশ্চল, কিছু প্রজাতি মুক্ত সাঁতারু। দেহের বর্ণ বিচিত্র এবং দৈহিক গঠন বিভিন্ন ধরনের হওয়ায় এরা সমুদ্রের ফুল বা সমুদ্রের Rain Forest নামে পরিচিত। বর্ণ ভিন্নতা ও গঠন সমুদ্রের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করে বলে Cnidaria-কে সমুদ্রের অলংকার বলা হয়।

৬. সিলোম বলতে কী বোঝায়?
উত্তর: মেসোডার্ম উদ্ভূত এবং পেরিটোনিয়াম নামে মেসোডার্মাল কোষস্তরে আবৃত দেহগহ্বরকে সিলোম বলে। Mollusca থেকে শুরু করে Chordata পর্বভুক্ত প্রাণী পর্যন্ত সিলোম ধারণ করে। সিলোমের ওপর ভিত্তি করা প্রাণীরা তিন প্রকার, যথা- অ্যাসিলোমেট, অপ্রকৃত সিলোমেট ও প্রকৃত সিলোমেট।

৭. অগ্রাধিকার আইন বলতে কী বোঝ?
উত্তর: যদি কোনো জীবের একাধিক নাম থেকে থাকে বা একাধিক জীবের নাম একই হয়ে থাকে তবে সর্বপ্রথম দেওয়া সিদ্ধ নামটি গৃহীত হবে। একে অগ্রাধিকার আইন বলে। জীবের নামকরণের ক্ষেত্রে এটি আন্তর্জাতিক নামকরণ বিধির (ICBN ও ICZN) প্রাথমিক সূত্র যা এই বিধির স্থায়িত্ব বজায় রাখে। যখন একই ট্যাক্সনের অন্তর্গত দুটিতে একই নামের উপস্থিতি লক্ষ করা যায়, তখন কোনো একটি নামের বৈধতা সংক্রান্ত সমস্যার সমাধান করা হয় অগ্রাধিকার সূত্র দ্বারা।

৮. সব কর্ডেট প্রাণী মেরুদণ্ডী নয় কেন?
উত্তর: স্থিতিস্থাপক নটোকর্ড, পৃষ্ঠীয় ফাঁপা স্নায়ুরজ্জু এবং গলবিলীয় রন্ধ্র- এই তিনটি বৈশিষ্ট্য থাকলে তাদের Chordata পর্বভুক্ত করা হয়। Chordata পর্বের প্রাণীরা তিনটি উপপর্বে বিভক্ত, যথা- Urochordata, Cephalochordata ও Vertebrata। এদের মধ্যে Urochordata, Cephalochordata উপপর্বভুক্ত প্রাণীদের সারা জীবন কর্ডেট প্রাণীর বৈশিষ্ট্য উপস্থিত থাকলেও শুধু Vertebrata উপপর্বের প্রাণীদের ভ্রূণাবস্থায় নটোকর্ড মেরুদণ্ড দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়। সেজন্য Vertebrata উপপর্বের প্রাণীরা মেরুদণ্ডী প্রাণী, অন্য উপপর্বের প্রাণীরা মেরুদণ্ডী নয়। অর্থাৎ সব কর্ডেট প্রাণী মেরুদণ্ডী নয়।

৯. প্লাটিপাসকে সংযোগকারী প্রাণী বলা হয় কেন?
উত্তর: প্লাটিপাস হচ্ছে Chordata পর্বের Mammalia শ্রেণির অন্তর্ভুক্ত প্রাণী। স্তন্যপায়ীরা বাচ্চা প্রসব করে এবং শাবকরা মাতৃদুগ্ধ পান করে কিন্তু স্তন্যপায়ীদের মধ্যে একমাত্র প্লাটিপাসরাই সরীসৃপদের মতো ডিম পাড়ে। প্লাটিপাস অন্যান্য স্তন্যপায়ীর মতো বাচ্চা প্রসব করে না এবং এর রেচনতন্ত্রও সরীসৃপের মতো। Reptilia ও Mammalia উভয় শ্রেণির কিছু কিছু বৈশিষ্ট্য প্লাটিপাসে বিদ্যমান থাকায় একে সংযোগকারী প্রাণী বলা হয়।

১০. তিমিকে মাছ বলা হয় না কেন?
উত্তর: তিমিকে মাছ বলা হয় না, কারণ এটি Mammalia শ্রেণির অন্তর্গত। এদের দেহ মাছের মতো আঁইশ দ্বারা আবৃত নয়। কিন্তু তিমির দেহে লোম থাকে। এ ছাড়া বাচ্চা প্রসব করে এবং মাতৃস্তন্য দুগ্ধে লালিত হয়। মাছের মতো এরা ডিম পাড়ে না। মাছের দেহে বায়ুথলি থাকে, ফুলকা কানকো দিয়ে ঢাকা থাকে যা তিমির ক্ষেত্রে অনুপস্থিত।

১১. নিডারিয়ানদের দ্বিস্তরী প্রাণী বলা হয় কেন? 
উত্তর: নিডারিয়ান পরিণত প্রাণীদের দেহপ্রাচীরের কোষগুলো এপিডার্মিস ও এন্ডোডার্মিসে সজ্জিত, যা প্রাণীর ভ্রূণদেহে এক্টোডার্ম ও এন্ডোডার্ম নামক দুটি কোষস্তর থাকে। উভয় স্তরের মাঝে জেলির মতো মেসোগ্লিয়া থাকে এবং দেহ অভ্যন্তরে সিলেন্টেরন নামে একটি দেহগহ্বর দেখা যায়। উক্ত বৈশিষ্ট্যগুলোর কারণে নিডারিয়ানদের দ্বিস্তরী প্রাণী বলা হয়।

১২. প্রকৃত সিলোমযুক্ত প্রাণী বলতে কী বোঝ?
উত্তর: যেসব প্রাণীর দেহগহ্বর মেসোডার্মাল পেরিটোনিয়াম আবরণ দ্বারা আবৃত থাকে তাদের প্রকৃত সিলোমযুক্ত প্রাণী বলে। এক্ষেত্রে দেহপ্রাচীর ও পৌষ্টিকনালি সংলগ্ন আবরণীকে যথাক্রমে প্যারাইটাল ও ভিসেরাল আবরণী বলে। Mollusca, Annelida, Arthropoda, Echinodermata ও Chordata পর্বের প্রাণী প্রকৃত সিলোমযুক্ত।

১৩. অপ্রকৃত সিলোমযুক্ত প্রাণী কারা?
উত্তর: যেসব প্রাণীর দেহগহ্বর মেসোডার্ম স্তর উদ্ভূত পেরিটোনিয়াম পর্দা দ্বারা আবৃত থাকে না বরং দেহগহ্বরের চারপাশে পেশিস্তর দ্বারা ঘেরা থাকে তাদের অপ্রকৃত সিলোমযুক্ত প্রাণী বলে। Nematoda, Rotifera ইত্যাদি পর্বের প্রাণী অপ্রকৃত সিলোমযুক্ত।

১৪. Urochordata কে মেরুদণ্ডী প্রাণী বলা যায় না কেন?
উত্তর: ইউরোকর্ডেটদের লার্ভা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, কেবল লার্ভা দশায় এবং লাভার লেজ অঞ্চলে নটোকর্ড উপস্থিত থাকে। রূপান্তরের সময় ধীরে ধীরে নটোকর্ডের বিলোপ ঘটে কিন্তু মেরুদণ্ডে প্রতিস্থাপিত হয় না। অর্থাৎ পরিণত প্রাণীতে মেরুদণ্ড থাকে না। এ কারণেই Urochordata-কে মেরুদণ্ডী বলা যায় না।

এস. এম. মাহবুবুল আলম (তামীম), প্রভাষক, জীববিজ্ঞান বিভাগ 
ঢাকা ইমপিরিয়াল কলেজ, ঢাকা/আবরার জাহিন

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে যা জানালেন শিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশ: ২৪ জুলাই ২০২৪, ০৯:৪৩ পিএম
আপডেট: ২৪ জুলাই ২০২৪, ০৯:৪৪ পিএম
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে যা জানালেন শিক্ষামন্ত্রী
শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী

শিক্ষার্থীদের শতভাগ নিরাপত্তা নিশ্চিত করেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী। 

বুধবার (২৪ জুলাই) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ কথা জানান।

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘পুনরায় এইচএসসি পরীক্ষা শুরুর বিষয়ে চিন্তা করা হচ্ছে। আগামী সপ্তাহের নির্ধারিত পরীক্ষার বিষয়ে আমরা বসেছি। প্রথম অগ্রাধিকার হচ্ছে, রাজধানীসহ ঢাকা জেলা বা পার্শ্ববর্তী যে জেলাগুলো আছে, সেগুলোর এক রকম পরিস্থিতি। আবার অন্য যে জেলাগুলো আছে, সেখানে আরেক রকম পরিস্থিতি। এসব আলাদাভাবে বিবেচনা করা হচ্ছে।’

পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের শতভাগ নিরাপত্তা নিশ্চিত করা ছাড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়টি এই মুহূর্তে বিবেচনা করতে পারছি না। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বলতে শুধু বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ নয়, আমাদেরকে তো বিদ্যালয়গুলো নিয়েও কাজ করতে হয়। তবে উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য আলাদাভাবে ভাবতে হবে।’ 

আন্দোলনকারীদের আলটিমেটাম নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আন্দোলনের প্রথম থেকে দেখা গেছে, ঘোষণা হচ্ছে একটা। আর কাজ হচ্ছে আরেকটা। ঘোষণাকারীরা বলছেন, শান্তিপূর্ণভাবে এই-সেই করা হবে। তবে এটা যারা বাস্তবায়ন করছেন, তারা কিন্তু সেটা শান্তিপূর্ণ প্রক্রিয়ার মধ্যে রাখছেন না। আলটিমেটাম দিয়ে কেউ যাতে পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করতে না পারে, আমরা সেটাই অনুরোধ করব।’ 

প্রাথমিক বিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ

সারা দেশের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। 

বুধবার রাতে মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান তুহিন খবরের কাগজকে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে দেশের সব প্রাথমিক বিদ্যালয় আপাতত বন্ধ থাকবে। পরিস্থিতি বিবেচনা করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত জানানো হবে।’

প্রাণহানির ঘটনায় বিচার চায় বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সমিতি

প্রকাশ: ১৮ জুলাই ২০২৪, ০৭:২৪ পিএম
আপডেট: ১৮ জুলাই ২০২৪, ০৭:২৪ পিএম
প্রাণহানির ঘটনায় বিচার চায় বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সমিতি
বাংলাদেশ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সমিতি

কোটা সংস্কার আন্দোলন ঘিরে প্রাণহানির ঘটনায় দোষীদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সমিতি। 

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) বিকেলে সমিতির সাধারণ সম্পাদক ড. কাজী আনিস আহমেদ স্বাক্ষরিত বিবৃবিতে এ দাবি জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, ‘সরকারি চাকরির কোটা পদ্ধতি বিষয়ে দেশব্যাপী সৃষ্ট সংঘাতময় পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সমিতি গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। বিশেষত কোটাবিরোধী সাধারণ শিক্ষার্থীদের আন্দোলনকে কেন্দ্র করে দেশের বিভিন্ন স্থানে মর্মান্তিক প্রাণহানির ঘটনায় আমরা গভীরভাবে শোকাহত। সম্ভাবনাময় তরুণ প্রাণের অকালে ঝরে যাওয়া, দেশ ও জাতির জন্য এক অপূরণীয় ক্ষতি। এমন ন্যক্কারজনক ঘটনার তীব্র নিন্দা এবং দোষী ব্যক্তিদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানাই। সেই সঙ্গে সহিংসতার ফাঁদে পা না দিয়ে, কোটা সংস্কার প্রসঙ্গে মাননীয় আদালতের সুচিন্তিত রায়ের জন্য শিক্ষার্থীদের ধৈর্যশীল ভূমিকা পালনের আহ্বান জানাই।’

আন্দোলনে স্বার্থান্বেষী মহলের প্ররোচনা থেকে সচেতন থাকার আহ্বান জানিয়ে বিবৃবিতে বলা হয়, ‘বাংলাদেশ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সমিতি আশা করে, সংঘাত-সহিংসতা মুক্ত বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম রক্ষার্থে শিক্ষার্থীরা, শিক্ষার পরিবেশ ব্যাহত কিংবা ক্যাম্পাস বন্ধ রাখতে হয়, এমন সব কার্যক্রম থেকে নিজেদের বিরত রাখবে। সেসঙ্গে প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে নিজেদের যোগ্য করে গড়ে তোলার লক্ষ্যে লেখাপড়ায় মনোনিবেশ করবে। চলমান অবস্থা দীর্ঘায়িত তথা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম বন্ধ থাকলে শিক্ষার্থীরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে এবং জাতি হিসেবে আমরা পিছিয়ে পড়ব। বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার পরিবেশ সমুন্নত রাখার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট সবার সার্বিক সহযোগিতা একান্তভাবে কাম্য।’

এইচএসসির আরও ৩ পরীক্ষা স্থগিত

প্রকাশ: ১৮ জুলাই ২০২৪, ০৫:১০ পিএম
আপডেট: ১৮ জুলাই ২০২৪, ০৫:২৩ পিএম
এইচএসসির আরও ৩ পরীক্ষা স্থগিত
ফাইল ছবি

আরও তিন বিষয়ের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। 

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় কমিটির সভাপতি প্রফেসর তপন কুমার সরকার স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, অনিবার্য কারণে আগামী ২১, ২৩ ও ২৫ জুলাই অনুষ্ঠিতব্য সব শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষাগুলো স্থগিত করা হলো। স্থগিত হওয়া পরীক্ষার সময়সূচি বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে পরবর্তী সময়ে জানিয়ে দেওয়া হবে। আগামী ২৮ জুলাই থেকে পূর্বঘোষিত সময়সূচি অনুযায়ী পরীক্ষা যথারীতি চলবে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো।

প্রসঙ্গত, গত ১৬ জুলাই এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বৃহস্পতিবারের (১৮ জুলাই) পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। 

কবির/সালমান/

বাউবির ১৯, ২০ ও ২১ জুলাইয়ের সব পরীক্ষা স্থগিত

প্রকাশ: ১৮ জুলাই ২০২৪, ১০:২৮ এএম
আপডেট: ১৮ জুলাই ২০২৪, ১১:৪৩ এএম
বাউবির ১৯, ২০ ও ২১ জুলাইয়ের সব পরীক্ষা স্থগিত

বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাউবি) আগামী ১৯, ২০ ও ২১ জুলাই অনুষ্ঠিতব্য পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে।

বুধবার (১৭ জুলাই) বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক ড. আ ফ ম মেজবাহউদ্দিন স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।
 
সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৯ জুলাই অনুষ্ঠিতব্য এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। 

এ ছাড়াও একই তারিখের Master’s in Development Studies (MDS); Master of Disaster Management (MDM); Certificate in  English Language Proficiency (CELP); MS in Irrigation and Water Management; MS in Entomology; MS in Agronomy; MS in Aquaculture; MS in Poultry Science; Certificate in Pisciculture and Fish Processing (CPFP); Certificate in Livestock and Poultry (CLP); Master of Disability Management and Rehabilitation (MDMR) পরীক্ষা, ২০ জুলাই অনুষ্ঠিতব্য Master of Disaster Management (MDM); Master of Disability Management and Rehabilitation (MDMR) পরীক্ষা এবং ২১ জুলাই অনুষ্ঠিতব্য বিএ ও বিএসএস পরীক্ষা-২০২৩ স্থগিত করা হয়েছে।
 
স্থগিত পরীক্ষার তারিখ পরে জানানো হবে বলে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক স্বাক্ষরিত পত্রের মাধ্যমে বলা হয়েছে।

ইসরাত চৈতী/অমিয়/

কোরআন মজিদ শিক্ষা অধ্যায়ের ৩টি বর্ণনামূলক প্রশ্নোত্তর, পঞ্চম শ্রেণির ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা

প্রকাশ: ১৭ জুলাই ২০২৪, ০৫:১৪ পিএম
আপডেট: ১৭ জুলাই ২০২৪, ০৫:১৪ পিএম
কোরআন মজিদ শিক্ষা অধ্যায়ের ৩টি বর্ণনামূলক প্রশ্নোত্তর, পঞ্চম শ্রেণির ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা

বর্ণনামূলক প্রশ্ন ও উত্তর 

প্রশ্ন-১। কোরআন মজিদ কার বাণী? কোরআন মজিদ তিলাওয়াতের উদ্দেশ্য কয়টি ও কী কী?
উত্তর: কোরআন মজিদ আল্লাহতায়ালার বাণী। কোরআন মজিদ তিলাওয়াতের উদ্দেশ্য হলো চারটি। যথা-
১. সহিহ শুদ্ধভাবে তিলাওয়াত করা
২. এর অর্থ বোঝা।
৩. আল্লাহপাক যা আদেশ করেছেন তা পালন করা।
৪. আল্লাহপাক যা নিষেধ করেছেন তা থেকে বিরত থাকা।

প্রশ্ন-২। কোরআন মজিদ বুঝে তিলাওয়াত করলে কী কী বিষয়ে জানতে পারবে তার একটি তালিকা তৈরি করো।
উত্তর: কোরআন মজিদ বুঝে তিলাওয়াত করলে যেসব বিষয় আমরা জানতে পারব তার একটি তালিকা নিচে দেওয়া হলো-
ক. আল্লাহপাকের বিধিবিধান:
১. আল্লাহপাকের পরিচয় ও নবী-রাসুলদের পরিচয় সম্পর্কে জানতে পারব।
২. ফেরেশতাদের পরিচয় ও পরকালের পরিচয় সম্পর্কে জানতে পারব।
৩. কে আমাদের সৃষ্টিকর্তা, রিজিকদাতা ও পালনকর্তা তা জানতে পারব।
৪. কে একমাত্র সর্বশক্তিমান, সবকিছুর মালিক, পরম দয়ালু ও একমাত্র শান্তিদাতা তা জানতে পারব।
খ. মানবজীবনের পদ্ধতি:
১. আমাদের কাজকর্ম ও চরিত্র কেমন হওয়া উচিত সে সম্পর্কে জানতে পারব।
২. দুনিয়ায় আমাদের কীভাবে জীবনযাপন ও লেনদেন করতে হবে তা জানতে পারব।
৩. দুনিয়ায় আমরা কার হুকুম মানব, আর কার হুকুম মানব না সে সম্পর্কে জানতে পারব।
৪. কীসে আমাদের সম্মান, সফলতা, ব্যর্থতা এবং লাঞ্ছনা তা জানতে পারব।

প্রশ্ন-৩। তাজবিদ কাকে বলে? সঠিক উচ্চারণে কোরআন মজিদ তিলাওয়াত করলে কী পাওয়া যায় তা উল্লেখ করো।
উত্তর: শুদ্ধভাবে কোরআন মজিদ তিলাওয়াতের নিয়মকে তাজবিদ বলে।
সঠিক উচ্চারণে কোরআন মজিদ তিলাওয়াতের উপকার: সঠিক উচ্চারণে কোরআন মজিদ তিলাওয়াত করলে আল্লাহপাকের কালামের অর্থ ঠিক থাকে। সালাত সঠিক ও শুদ্ধ হয়। সুতরাং সঠিক উচ্চারণে কোরআন তিলাওয়াত করা আমাদের শিখতে হবে।