ঢাকা ১০ শ্রাবণ ১৪৩১, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪

টেক্সাসে বেরিলের আঘাতে ৭ মৃত্যু

প্রকাশ: ১০ জুলাই ২০২৪, ০৮:৪৪ এএম
আপডেট: ১০ জুলাই ২০২৪, ০৮:৪৪ এএম
টেক্সাসে বেরিলের আঘাতে ৭ মৃত্যু
ছবি: সংগৃহীত

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস অঙ্গরাজ্যে প্রবল শক্তি নিয়ে আঘাত হেনেছে হারিকেন বেরিল। এতে প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত ৭ জন; বাতিল করা হয়েছে হিউস্টনের প্রধান বিমানবন্দরের ১৩শ’রও বেশি ফ্লাইট। বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছেন ২৭ লাখেরও বেশি মানুষ। 

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির তথ্য বলছে, গতকাল ভোরে ভারী বৃষ্টি ও তীব্র বাতাসের সঙ্গে টেক্সাসের উপকূলীয় শহর মাটাগোর্ডার কাছে আছড়ে পড়ে হারিকেন বেরিল। এ সময় বাতাসের গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ১৩০ কিলোমিটার। যখন বেরিল টেক্সাসে আঘাত হানে, তখন এটি ক্যাটাগরি ওয়ান হারিকেন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছিল। পরে ধীরে ধীরে শক্তি কমে এটি গ্রীষ্মমণ্ডলীয় ঝড়ে পরিণত হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় গত সোমবার রাতে হারিকেন বেরিল টেক্সাস, লুইসিয়ানা ও আরকানসাসে টর্নেডোতে পরিণত হতে পারে বলে সতর্ক করে যুক্তরাষ্ট্রের আবহাওয়া সেবা- এনডব্লিউএস। পরে এটি মিসৌরি, টেনেসি, ইলিনয়, কেন্টাকি, ওহাইয়ো ও ইন্ডিয়ানা অঙ্গরাজ্যে আঘাত হানতে পারে বলেও সতর্কবার্তা জানানো হয়। 

এর আগে ক্যারিবিয়ান উপকূলে আঘাত হেনেছিল বেরিল। সে সময় প্রাণহানি ঘটেছিল অন্তত ১০ জনের। সূত্র: বিবিসি 

ম্যানিলা উপসাগরে তেলবাহী ট্যাঙ্কার ডুবি

প্রকাশ: ২৫ জুলাই ২০২৪, ০১:৫৮ পিএম
আপডেট: ২৫ জুলাই ২০২৪, ০২:৪৬ পিএম
ম্যানিলা উপসাগরে তেলবাহী ট্যাঙ্কার ডুবি
ছবি: সংগৃহীত

ফিলিপাইনের ম্যানিলা উপসাগরে ১৪ লাখ লিটার তেল নিয়ে একটি ট্যাঙ্কার ডুবে গেছে। এতে একজন ক্রু নিখোঁজ রয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) স্থানীয় সময় ভোরে এমটি টেরা নোভা নামের ট্যাঙ্কারটি বাতান প্রদেশের লিমা থেকে প্রায় সাত কিলোমিটার দূরে ম্যানিলা উপসাগরে ডুবে যায়।

ট্যাঙ্কারটি মধ্যাঞ্চলীয় শহর ইলোইলোর দিকে যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনার শিকার হয়।

ফিলিপাইনের পরিবহন সচিব জেইম বাতিস্তা জানান, টাইফুন গেমির প্রভাবে প্রবল বৃষ্টি এবং রুক্ষ সমুদ্রের মধ্যে বৃহস্পতিবার সকালে এমটি টেরা নোভা তলিয়ে যায়। ট্যাঙ্কারের ১৭ জন ক্রুর মধ্যে ১৬ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে।
  
বাতিস্তা বলেন, ‘একজন নিখোঁজ রয়েছেন। ক্রুদের মধ্যে চারজন চিকিৎসা নিচ্ছেন।’

নিখোঁজ ক্রু সদস্যের জন্য অনুসন্ধান ও উদ্ধার অভিযান চলছে উল্লেখ করে ফিলিপাইনের কোস্টগার্ড এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, ‘এমটি টেরা নোভা ট্যাঙ্কারটি উদ্ধার সম্ভব হয়নি, শেষ পর্যন্ত ডুবে গেছে।’

দেশটির উপকূল রক্ষীরা বলেছে, ‘আবহাওয়া দুর্যোগপূর্ণ ছিল কিনা তা তদন্ত করা হচ্ছে।’

এ ঘটনার পর প্রবল স্রোতে পূর্ব, উত্তর-পূর্ব দিকে প্রায় ৩ দশমিক ৭ কিলোমিটার জুড়ে তেল ছড়িয়ে পড়েছে। যদিও কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তেল কয়েক কিলোমিটার জুড়ে ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে তারা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

ফিলিপাইন কোস্ট গার্ডের মুখপাত্র রিয়ার অ্যাডমিরাল আরমান্দো বালিলো বলেছেন, ‘আমরা সময়ের বিরুদ্ধে দৌড়াচ্ছি এবং আমরা জ্বালানি তেল ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে যথাসাধ্য চেষ্টা করছি।’

কোস্টগার্ডের প্রকাশিত একটি ছবিতে দেখা গেছে এমটি টেরা নোভা প্রায় পুরোটাই রুক্ষ সমুদ্রে নিমজ্জিত।

বর্তমানে টাইফুন গেমির প্রভাবে ম্যানিলা ও আশেপাশের অঞ্চলে ভারি বৃষ্টিপাত ও জলোচ্ছ্বাসের সৃষ্টি হয়েছে। 

এর আগে ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে ৮ লাখ লিটার শিল্প-জ্বালানীবাহী একটি ট্যাঙ্কার মিন্ডোরোর মধ্যাঞ্চলীয় দ্বীপের কাছে ডুবে যায়। সূত্র: আল-জাজিরা

অমিয়/ইসরাত চৈতী/

যুক্তরাষ্ট্রে বিক্ষোভ রাজনৈতিক পালাবদলের মধ্যে ওয়াশিংটনে নেতানিয়াহু

প্রকাশ: ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৯:০৪ এএম
আপডেট: ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৯:০৪ এএম
রাজনৈতিক পালাবদলের মধ্যে ওয়াশিংটনে নেতানিয়াহু
গত সোমবার বিকেলে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু ওয়াশিংটনে পৌঁছেছেন। বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) বাইডেন ও নেতানিয়াহু হোয়াইট হাউসে সাক্ষাৎ করবেন। ছবি: সংগৃহীত

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু গত সোমবার বিকেলে ওয়াশিংটনে পৌঁছেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন থেকে বাইডেনের সরে দাঁড়ানোর এক দিন পরেই তিনি যুক্তরাষ্ট্র সফরে গেলেন। গত জুন মাসে যখন সফরসূচি ঘোষণা করা হয়, তখন অনেকেই এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন। গাজাসংক্রান্ত যুদ্ধবিরতি চুক্তি সম্পন্ন না করেই নেতানিয়াহুর সফর নিয়ে অনেকেরই ছিল আপত্তি।

যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিতে পরিবর্তনের এ সময়ে পরবর্তী প্রশাসনের সঙ্গে সম্পর্ক এগিয়ে রাখতে চান নেতানিয়াহু এমনটাই মনে করছেন অনেকে। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, বাইডেন ও নেতানিয়াহু বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) হোয়াইট হাউসে সাক্ষাৎ করবেন।

নেতানিয়াহু ইসরায়েল ত্যাগ করার পূর্বে বলেন, ‘আমি দুই দলের সমর্থন নিশ্চিত করার চেষ্টা করব যা ইসরায়েলের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমি দুই দলকেই বলবো- মার্কিন জনসাধারণ তাদের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হিসেবে যাকেই বেছে নিক, মধ্যপ্রাচ্যে ইসরায়েল যুক্তরাষ্ট্রের অপরিহার্য ও শক্তিশালী মিত্র হয়ে থাকবে।’

এদিকে বিশ্লেষকরা বলছেন, নেতানিয়াহু প্রকাশ্যে রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং তার সম্ভাব্য ডেমোক্র্যাটিক প্রতিদ্বন্দ্বী কমলা হ্যারিসের মধ্যে নিরপেক্ষতা বজায় রাখতে চাইছেন। তবে তিনি আখেরে যে ট্রাম্পের পক্ষই নিবেন সেটি অনেকটাই নিশ্চিত। 

ইসরায়েলের বার-ইলান বিশ্ববিদ্যালয়ের পলিটিক্যাল স্টাডিজ বিভাগের প্রধান জনাথান র‍্যনহল্ড বলেন, ‘রিপাবলিকানরা সাধারণত ইসরায়েলের নিরাপত্তা এজেন্ডাকে বেশি সমর্থন দেয়। তারা ফিলিস্তিনিদের চেয়ে ইসরায়েলের ডানপন্থি সরকারের নীতির প্রতি বেশি দয়াশীল।’

ডেল কার্নেগি এনডাওমেন্ট ফর ইন্টারন্যাশনাল পিস-এর সিনিয়র ফেলো ডেভিড মিলার বলেছেন, ‘এটি বিশেষ করে ট্রাম্পের বেলায় প্রযোজ্য, যার প্রশাসন ‘অস্বাভাবিক মাত্রায়’ ইসরায়েলপ্রীতি দেখিয়েছে যা ইসরায়েলকে ‘অত্যধিক তুষ্ট’ করেছে। এক সময় মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্রের আলোচনাকারী হিসেবেও ভূমিকা রেখেছেন মিলার।

ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিসের সঙ্গেও আগামী সপ্তাহে পৃথক বৈঠকের কথা রয়েছে নেতানিয়াহুর। ব্যক্তিগতভাবে কমলাও ইহুদিপন্থি বলে পরিচিত। যুক্তরাষ্ট্রের ইহুদি সম্প্রদায়ের সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রয়েছে। তার স্বামী ডাগ এমহফও একজন ইহুদি। 

এ ছাড়া মার্কিন কংগ্রেসে ভাষণ দেওয়ার কথা রয়েছে নেতানিয়াহুর। রিপাবলিকান স্পিকার মাইক জনসন তাকে এই আমন্ত্রণ জানানোর উদ্যোগ নেন। অন্যদিকে বেশ কয়েকজন ডেমোক্র্যাট আইনপ্রণেতা গাজায় গণহত্যার প্রতিবাদে নেতানিয়াহুর ভাষণ বয়কটের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

নেতানিয়াহুর সফরের প্রতিবাদে বিক্ষোভ
এদিকে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর যুক্তরাষ্ট্র সফরের প্রতিবাদে ওয়াশিংটনে ক্যাপিটল হিলে বিক্ষোভ করেছেন ফিলিস্তিনপন্থি ইহুদিরা। গতকাল বুধবার এক প্রতিবেদনে যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদমাধ্যম এনবিসি নিউজ এ তথ্য জানায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, স্থানীয় সময় মঙ্গলবার পার্লামেন্ট ভবনের ভেতরে ঢুকে প্রতিবাদ জানান তারা। ‘জিউস ভয়েজ ফর পিস’ ওই বিক্ষোভের আয়োজন করে। বেশ কয়েকজন বিক্ষোভকারীকে আটকও করা হয়েছে। সূত্র: ভয়েস অব আমেরিকা, বিবিসি, এনবিসি নিউজ

প্রথম সমাবেশেই ট্রাম্পকে ‘আঘাত’ কমলার

প্রকাশ: ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৮:৫৫ এএম
আপডেট: ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৮:৫৫ এএম
প্রথম সমাবেশেই ট্রাম্পকে ‘আঘাত’ কমলার
যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাটলগ্রাউন্ড অঙ্গরাজ্য হিসেবে পরিচিত উইসকনসিনের মিলওয়াকির শহরতলিতে গত মঙ্গলবার সমাবেশ করেন কমলা হ্যারিস। ছবি: সংগৃহীত

নিজের প্রথম প্রচার সমাবেশে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে আক্রমণ করে বক্তব্য রেখেছেন যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস।

তিনি সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, আগামী নভেম্বরের যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে সাবেক আইনজীবী ও অভিযুক্ত অপরাধী- এ দুজনের মধ্যে যেকোনো একজনকে বেছে নেবেন মার্কিনিরা।

যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাটলগ্রাউন্ড অঙ্গরাজ্য হিসেবে পরিচিত উইসকনসনে গত মঙ্গলবার সমাবেশ করেন হ্যারিস। সেখানে উপস্থিত হন প্রায় ৩ হাজার মানুষ। কমলা হ্যারিসের আক্রমণের জবাব দিতে খুব একটা দেরি করেননি ট্রাম্পও। নিজ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ট্রুথ সোশ্যালে তিনি সীমান্ত নিয়ে কমলা হ্যারিসের অতীত রেকর্ড টেনে লেখেন, ‘মিথ্যাবাদী কমলা যা ছোঁয় তা ধ্বংস করে ছাড়ে।’

বেশির ভাগ ডেমোক্র্যাট প্রতিনিধির সমর্থন অর্জনের একদিন পর সমাবেশ করলেন কমলা। এখনো আনুষ্ঠানিক ঘোষণা না এলেও তিনিই যে ডেমোক্র্যাট শিবির থেকে পরবর্তী প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হতে যাচ্ছেন, তা নিশ্চিত।

গত রবিবার বিকেলে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন জানান, তিনি নির্বাচনি দৌড় থেকে নিজেকে সরিয়ে নিচ্ছেন। ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিসকেও ডেমোক্র্যাট শিবিরের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে সমর্থন দেন তিনি। বাইডেন সরে দাঁড়ানোর ৩৬ ঘণ্টার মাথায় হ্যারিসের প্রচার শিবির ১০ কোটি ডলারের অনুদানও সংগ্রহ করতে পেরেছে।

এদিকে রয়টার্স ও ইপসোসের করা নতুন জনমত জরিপ বলছে, ট্রাম্পের চেয়ে দুই পয়েন্টে এগিয়ে রয়েছেন হ্যারিস। জরিপে ট্রাম্পের পক্ষে ৪২ শতাংশ, আর হ্যারিসের পক্ষে রয়েছেন ৪৪ শতাংশ। 

গত মঙ্গলবার উইসকনসনের মিলওয়াকির শহরতলীতে সমাবেশ করার সময় হ্যারিস বলেন, ‘আমি সব ধরনের দুর্বৃত্তের বিরুদ্ধে লড়েছি- নারীর ওপর আক্রমণ চালানো, ভোক্তাদের অধিকার কেড়ে নেওয়া, প্রতারক যারা নিজেদের স্বার্থের জন্য নিয়ম ভেঙেছে। ফলে আমি জানি ডোনাল্ড ট্রাম্প কী রকম।’

জনতা এ সময় ‘কমলা’, ‘কমলা’ বলে স্লোগান দেয়। অনেক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, উপস্থিত জনতাদের উৎসাহ ও উচ্ছ্বাস ভিন্ন ছিল। বাইডেনের ক্ষেত্রে এ ধরনের উচ্ছ্বাস প্রকাশ করতে দেখা যায়নি। ট্রাম্পের নাম উল্লেখ করার সময়ও জনতা প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে। অনেকেই এ সময় ‘তাকে বন্দি করুন’ বলে স্লোগান দিয়েছে। একই ধরনের স্লোগান এর আগে ২০১৬ সালে ট্রাম্পের সমাবেশে দেখা গিয়েছিল। সে সময় তিনি হিলারি ক্লিনটনের বিরুদ্ধে নির্বাচনে লড়েছিলেন।

বিবিসির প্রতিবেদন বলছে, ট্রাম্প ট্রুথ সোশ্যালে এক জরিপের ফলাফল পোস্ট করেছেন। সে জরিপের তথ্য বলছে, কমলা হ্যারিস যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সবচেয়ে অজনপ্রিয় ভাইস প্রেসিডেন্ট। 

প্রথম সমাবেশের ভাষণে উদারপন্থি নীতির উল্লেখ করেছেন হ্যারিস। সেসব নীতির তালিকায় রয়েছে বন্দুক নিয়ন্ত্রণ ও গর্ভপাতসংক্রান্ত বিষয়, দারিদ্র্যে থাকা শিশু, ইউনিয়নের অধিকার এবং সাশ্রয়ী মূল্যের স্বাস্থ্যসেবার মতো একাধিক ইস্যু।

কমলা হ্যারিস প্রশ্ন রাখেন, ‘আমরা কী ধরনের দেশে বাস করতে চাই? যেখানে স্বাধীনতা আছে, সহমর্মিতা আছে, আছে আইনের শাসন, সেরকম একটি দেশে? নাকি এমন দেশে যেখানে আছে শুধুই বিশৃঙ্খলা, ভয় আর ঘৃণার পরিবেশ।’ 

শুরুটা ভালো হলেও কমলা হ্যারিস শেষ পর্যন্ত তার ছন্দ ধরে রাখতে পারবেন কি না তা এখনো স্পষ্ট নয়। সূত্র: বিবিসি

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ভবন চত্বরে উত্তর কোরিয়ার ময়লা বেলুন!

প্রকাশ: ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৮:৪৬ এএম
আপডেট: ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৮:৪৬ এএম
দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ভবন চত্বরে উত্তর কোরিয়ার ময়লা বেলুন!
বুধবার দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ভবন চত্বরে ময়লাভর্তি বেলুন পাঠালো উত্তর কোরিয়া। ছবি: সংগৃহীত

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ভবন চত্বরে গিয়ে পড়েছে উত্তর কোরিয়ার পাঠানো ময়লাবোঝাই বেলুন।

বুধবার (২৪ জুলাই) এ ঘটনা ঘটে। বর্তমান পরিস্থিতিতে কেমিক্যাল রেসপন্স টিমের সেনা মোতায়েন জোরদার করেছে সিউল। বার্তা সংস্থা এএফপিকে এ তথ্য জানিয়েছেন দক্ষিণ কোরিয়ার নিরাপত্তা কর্মকর্তারা।

সিউলের কেন্দ্রস্থল বিপুল সংখ্যক সেনা ও নো-ফ্লাই জোন দ্বারা সুরক্ষিত। আর প্রেসিডেন্ট কার্যালয়ের চত্বরে এবারই প্রথম পিয়ংইয়ংয়ের কোনো ময়লাবোঝাই বেলুন পড়ল। গত মে মাস থেকে পিয়ংইয়ং হাজার হাজার ময়লাবোঝাই বেলুন দক্ষিণ কোরিয়ায় পাঠাচ্ছে। 

প্রেসিডেন্টের নিরাপত্তা পরিষেবা দপ্তর এএফপিকে জানিয়েছে, ‘রাসায়নিক, জীবাণু এবং রেডিওলজিক্যাল ইউনিটের সেনারা নিরাপদে ময়লা বেলুনগুলো সংগ্রহ করেছে। তদন্তের পর নিশ্চিত হওয়া গেছে- বস্তুটি বিপজ্জনক ছিল না।’

দক্ষিণ কোরিয়ার জয়েন্ট চিফ অব স্টাফস এর আগে জানায়, উত্তর কোরিয়া ময়লাবোঝাই বেলুন পাঠানো শুরুর পর সিউল শহরের কর্তৃপক্ষ বুধবার সকালে একটি সতর্কতা জারি করে। সে সতর্কতায় বলা হয়, ‘যদি আপনি কোনো পতিত বেলুন দেখতে পান, তবে সেটি স্পর্শ করবেন না। এ সম্পর্কে নিকট সামরিক ইউনিট বা থানায় অভিযোগ করুন।’ সূত্র: এএফপি

যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ভারত সফর

প্রকাশ: ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৮:৩৪ এএম
আপডেট: ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৮:৩৪ এএম
যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ভারত সফর
যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডেভিড ল্যামি। ছবি: সংগৃহীত

ভারত সফর করছেন যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডেভিড ল্যামি। তিনি দেশটির মন্ত্রী ও ব্যবসায়ী নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। তার এ সফরকে দেখা হচ্ছে ‘ভারত ও বৈশ্বিক দক্ষিণের সঙ্গে যুক্তরাজ্যের সম্পর্ক জোড়া দেওয়ার চেষ্টা’ হিসেবে। 

ল্যামি অর্থনীতি ও জলবায়ু সামাল দেওয়ার চেষ্টায় ভারতকে ‘অপরিহার্য অংশীদার’ হিসেবে অভিহিত করেছেন। বিবিসির প্রতিবেদন বলছে, বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম অর্থনীতি হওয়ার পথে রয়েছে ভারত। যুক্তরাজ্যের নতুন লেবার সরকার চাইছে দেশটির সঙ্গে মুক্তবাণিজ্য চুক্তিতে আসতে।

ক্ষমতায় আসার মাত্র তিন সপ্তাহের মাথায় স্যার কিইর স্টারমারের প্রশাসনের পক্ষ থেকে ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক দৃঢ় করার পদক্ষেপ নেওয়া হলো। লেবার সরকার যে তাদের সফরে ভারতকে পাশে পেতে চাইছে, সে বিষয়টি স্পষ্ট।

প্রায় দুই বছর আলোচনার পর মুক্তবাণিজ্য চুক্তি নিয়ে ভারতের সঙ্গে আলাপের বিষয়টি বিলম্বিত হচ্ছিল বলে উল্লেখ করেছে বিবিসি। মার্চে নরওয়ে, সুইজারল্যান্ড, আইসল্যান্ড, লিশটেনস্টাইনের সঙ্গে মুক্তবাণিজ্য চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে ভারত।

চলতি মাসের শুরুতে প্রথম বৈদেশিক সফরে বিভিন্ন ইউরোপীয় নেতাদের সঙ্গে দেখা করেন ল্যামি। মূলত যুক্তরাজ্য ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের মধ্যে সম্পর্ক আরও ভালো করার চেষ্টার অংশ হিসেবে হয় ওই সফর। তবে তার ভারত সফরটি মূলত অর্থনৈতিক কারণে করা। সূত্র: বিবিসি