ঢাকা ১০ শ্রাবণ ১৪৩১, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪

শহুরে শিকারি লালমাথা শাহিন

প্রকাশ: ০৬ জুলাই ২০২৪, ০১:৪৪ পিএম
আপডেট: ০৬ জুলাই ২০২৪, ০১:৪৪ পিএম
শহুরে শিকারি লালমাথা শাহিন
ছবি: লেখক

পুরান ঢাকায় বিদ্যুৎ-পাইলনের গরম ইস্পাতে স্থির বসে রয়েছে একটি শিকারি পাখি। নিচের দিকেই তার তীক্ষ্ণ দৃষ্টি ও গভীর মনোযোগ। দেখে মনে হলো, পাইলনের নিচে উড়ে চলা চড়ুই পাখি শিকার করার জন্যই সে তাক করে আছে। ঢাকা নগরীর বিরল বাসিন্দা এ পাখির নাম লালমাথা-শাহিন। পাখিটি ‘ফালকন’ পরিবারের সদস্য এবং ঈগল, বাজ ও শিকড়ে পাখির চেয়ে সম্পূর্ণ ভিন্নজাতের শিকারি।

বিশ্বে ৫৫ প্রজাতির ফালকন আছে এবং ‘শাহিন’, ‘হবি’, ‘কেস্ত্রেল’, ‘কারাকারা’ ইত্যাদি নামে এরা পরিচিতি পেয়েছে। শেরপুরের শালবনে সম্প্রতি ‘কুটিশাহিন’ পাখির সাক্ষাৎ পাওয়ার পর বাংলাদেশে ফালকন পরিবারে প্রজাতি-সংখ্যা ১০-এ উন্নীত হয়েছে। এর মধ্যে একমাত্র লালমাথা-শাহিনকেই আমরা সারা বছর ঢাকা নগরীতে দেখতে পাই। তবে সহজে নয়, বিশ্বের তাবৎ পাখি-শিকারিদের মতোই সে লুকিয়ে চলতে অত্যন্ত দক্ষ।

অধিকাংশ ফালকনই দ্রুতবেগে উড়ে চলা পাখিদের পাকড়াও করতে পটু। ঢাকাবাসী এই শাহিন পাখিও উড়ন্ত চড়ুই, বাবুই, বুলবুল ও মুনিয়া শিকার করে জীবনধারণ করে। সারা দেশে ছোট পাখির সংখ্যা কিছুটা হ্রাস পেলেও শহরের পথপাশে চড়ুই তো ভালোই আছে। তাই চড়ুই পাখিই হয়েছে লালমাথা-শাহিনের মেইন ডিশ বা খাবার। তবে মাঝে মাঝে সন্ধ্যায় এরা চামচিকা শিকারে নামে; সম্ভবত রুচি বদলাবার জন্য। 

এই পাখি শুধু ভারতবর্ষ ও আফ্রিকার দক্ষিণে কয়েকটি দেশ ছাড়া পৃথিবীর আর কোথাও নেই। এর ইংরেজি নাম ‘রেড-নেকড ফালকন’ এবং প্রমিত বাংলা নাম ‘লালঘাড়-শাহিন’ ছিল। সম্প্রতি দুই এলাকার পাখিকে দুটি পৃথক প্রজাতি ঘোষণা করা হয়েছে। প্রজাতি ভিন্ন হলে তো নামও ভিন্ন হতে হয়। তাই এখন আফ্রিকার পাখির ইংরেজি নাম ‘রেড-নেকড ফালকন’ আর ভারতবর্ষের ‘রেড-হেডেড ফালকন’ হয়েছে।

চেহারা দেখে এ দুই প্রজাতির পাখির পার্থক্য নির্ণয় করা কঠিন। দুটিরই ঘাড় ও মাথা লালচে খয়েরি এবং চঞ্চু, পা-ও চশমা হলদে। ভারতবর্ষের পাখিটির বাংলা নাম ‘লালঘাড়-শাহিন’ বহাল রাখলে আফ্রিকার পাখিটিকে আমরা কী বলব, যদি ভবিষ্যতে কোনো দিন আফ্রিকার পাখির বাংলা নাম দিতে চাই! তাই আমাদের দেশের পাখিটির নাম বদলে ইতোমধ্যে আমরা ‘লালমাথা-শাহিন’ বলতে শুরু করেছি। 

গত শতাব্দীতে বাংলায় লেখা পাখির বইতে কোনো কোনো লেখক এ পাখিকে ‘তুরমতি বাজ’ নাম দিয়েছিলেন। ওই নামের দুটি বড় সমস্যা ছিল। প্রথমত, পাখিটি ‘বাজ’ নয় এবং অন্য একটি পরিবারে অনেক ‘বাজ’ ও ‘তিশাবাজ’ আছে এ দেশে। দ্বিতীয়ত হিন্দি, মারাঠি ও গুজরাটি ভাষায় একে ‘তুরমতি’ অর্থাৎ দ্রুতগামী বলা হয়, বাংলায় নয়। অন্য ভাষা থেকে যদি নিতেই হয়, তো এর সংকেত নাম ‘ভেগি’ই তো ভালো। ভেগি মানেও দ্রুতগামী। 

দেখলাম, পাইলনের প্রায় শীর্ষে লালমাথা-শাহিনের দুটি বাড়ন্ত ছানা বসে রয়েছে। অদূরে বসে আছে আকারে অনেকটা বড় আরেকটি শাহিন। নিশ্চিত বলা যায়, এই বড় পাখিটিই ছানাদের মা। অধিকাংশ শিকারি পাখির মতো এই পাখির মেয়েরা ছেলেদের চেয়ে অনেকটা বড় হয়। লালমাথা-শাহিনের সংসারে বাবার কাজ হলো পাখি শিকার করে এনে মাকে দেওয়া। আর মায়ের কাজ হলো মাংস ছিঁড়ে ছিঁড়ে ছানাদের খাওয়ানো। ছানারা বাসা ছেড়ে যাওয়ার পরও দু-সপ্তাহ ধরে বাবা-মা এটা করতে থাকে। 

পুরুষ পাখিটি পাইলনের ওপর থেকে এখনো চড়ুই পাখির ওড়াউড়ি দেখছে। মাটির কাছে কিংবা কার্নিশের আড়ালে থাকলে চড়ুই পাখিরা মোটামুটি নিরাপদ। শিকার ধরার জন্য তিরবেগে ছুটে গিয়ে দেয়ালে ধাক্কা খেয়ে মরতে চায় না কোনো শাহিন পাখি। কিন্তু চড়ুই পাখিদের জীবনেও নানা চাহিদা, ছোটাছুটি ও কলহবিবাদ আছে। সবাই সব সময় সাবধান থাকে না। পাইলনের ওপর তাই এই শিকারি সেই সুযোগের অপেক্ষায় আছে। 

আমরা চাই, রোদ চড়া হওয়ার আগেই ধৈর্যশীল এই পাখি একটি চড়ুই শিকার করুক। আমাদের এ আকাঙ্ক্ষাটি শাহিন-ছানার জন্য শুভ হলেও চড়ুই পাখির জন্য নির্মম। যে চড়ুই পাখিটি নিহত হবে, তার বাসাতেও হয়তো অভুক্ত ছানা অপেক্ষারত। ওসব নৈতিক সংকট এড়ানোর জন্য তখনই আমরা এলাকাটি ছেড়ে চলে এলাম। 

দেশি নীল রবিন

প্রকাশ: ২৪ জুলাই ২০২৪, ০১:৪৯ পিএম
আপডেট: ২৪ জুলাই ২০২৪, ০১:৫২ পিএম
দেশি নীল রবিন
ছবি: লেখক

খুব ভোরে পাখি দেখতে বেরিয়েছি ঢাকার জাতীয় উদ্ভিদ উদ্যানে। এক পুকুরের ধারে জারুল বনের এক পাশে থাকা শীতলপাটি গাছের ঝোপে এ পাখি অনিয়মতিভাবে আসে। কোনো বছর দেখা যায়, আবার কোনো বছর দেখা যায় না। হিমালয়সহ দক্ষিণ এশিয়ার ছোট পাখি নীল রবিন। মেয়েপাখির রং শুকনো পাতার মতো হালকা বাদামি। তাই সহজে চোখে পড়ে না।

সেদিন দেখা গেল, মেয়েপাখিটি খুব সাবধানে শীতলপাটির ঝোপ থেকে বের হয়ে শুকনো জারুল পাতা উল্টিয়ে খুঁটে খুঁটে পোকা খাচ্ছে। ঘণ্টাখানেক পাখিটি দেখলাম। সে ঝোপের আড়ালেই বেশি থাকতে ভালোবাসে। সেদিন ছেলেপাখির দেখা পাইনি।

দেশি নীল রবিন আমাদের দেশে পরিযায়ী হয়ে আসে বছরে দুবার। কখনো কখনো এরা বাংলাদেশে যাত্রাবিরতি করে। যাত্রাবিরতির সময় এরা জাতীয় উদ্ভিদ উদ্যানে আশ্রয় নেয়। থাকে সপ্তাহখানেক।

অন্য একদিন জাতীয় উদ্ভিদ উদ্যানে গিয়েছি। পিচঢালা পথের ওপর পড়ে থাকা একটি পাইপের ওপর বসা পুরুষ নীল রবিন দেখতে পাই। তার ছবি তুলে নিই কয়েকটা। ফুলবাগানের ভেতর দিয়ে উড়ে এসে সবে বসেছে। খানিক বাদেই সে চলে গেল ফুলবাগানে। প্রায় দুই ঘণ্টা ধরে তার শিকার ধরার কৌশল ও চালচলন পর্যবেক্ষণ করলাম। 

প্রায়ই সে পানি জমে থাকা জায়গাতে আসে পোকা ধরতে। ফুলের টবেও যায়। মানুষের উপস্থিতি টের পেলেই ব্যস লাফিয়ে অথবা উড়ে গিয়ে ঝোপ বা পাতার আড়ালে চুপ করে বসে থাকে। নড়াচড়া করে না একটুও। পোকা ধরা এবং হাঁটার সময় লেজ নাড়ায় ঘন ঘন। দুই ডানা ঝাপটায়। যার ফলে ডানার নীল রং আরও ভালোভাবে দেখা যায়। এই দৃশ্য খুবই উপভোগ্য।

নীল রবিন সাধারণত মিশ্র ও পাতাঝরা বনের তলে, ফুলবাগানে ও চিরসবুজ বনে বিচরণ করে। প্রজনন মৌসুমে ভূমিতে শেওলা, শুকনো ঘাস, লাইকেন, পশম ও পালক দিয়ে বাটির মতো বাসা বানায়। ডিম পাড়ে। ডিম দেখতে নীল। সংখ্যায় তিন থেকে পাঁচটি। ছেলেপাখির পিঠের দিক নীল, নিচের দিকে কমলা, ভ্রূরেখা সাদা। কানঢাকনি কালো। গলা ও বুক উজ্জ্বল তামাটে। মেয়েপাখির পিঠ জলপাই বাদামি। গলা সাদা, দেহতল পীতাভ। নেপাল, মায়ানমার ও হিমালয়ে এরা বাসা করে জুলাই মাসের দিকে। ছানারা উড়তে শিখলে আবার পরিযায়ী হয়। এ পাখির বৈজ্ঞানিক নাম Larvivora brunnea; ইংরেজি নাম Indian blue Robin।

হারিয়ে যাচ্ছে চালমুগরা

প্রকাশ: ২৪ জুলাই ২০২৪, ০১:৩৪ পিএম
আপডেট: ২৪ জুলাই ২০২৪, ০১:৩৯ পিএম
হারিয়ে যাচ্ছে চালমুগরা
মিরপুরে জাতীয় উদ্ভিদ উদ্যানে চালমুগরা গাছে ফল ধরেছে। ছবি: লেখক

প্রচণ্ড খরতাপে যখন গায়ে জ্বালা ধরে, তখন ইচ্ছে করে জাদুমন্ত্রে বৃষ্টি নামিয়ে দিই, না পারলে কোনো গাছের ছায়ায় ছুটে যাই। দাহদিনে শান্তির এক পরম জায়গা খুঁজে পেয়েছিলাম কমলগঞ্জে লাউয়াছড়া বনের ভেতরে। বনের পথে গাছের ঘন ছায়ায় হাঁটতে হাঁটতে মনে হচ্ছিল, এ যেন অন্য দেশ, অন্য কোথাও। এমন হিমেল পরশ পাব কোথায়?

উঁচু-নিচু পাহাড়ি পথের পাশে নানা রকমের গাছগাছড়া দেখতে দেখতে একসময় হাজির হলাম লাউয়াছড়া ফরেস্ট অফিসের রেস্ট হাউসে। তার সামনে এক বিশাল চালমুগরাগাছ। অনেক উঁচুতে কচি ফল ধরে আছে। জানা গেল, গাছটা সিলেটের অরণ্যে মাঝে মাঝে দেখা যায়। আছে কক্সবাজারেও। গাছটি অনেক ভেষজ গুণে গুণান্বিত। কী সে গুণ, তা আর জানা হলো না। ছবিও তোলা হলো না। ফিরে এলাম ঢাকায়। তবে ফিরে আসার আগে জেনে এলাম, সিলেটের লোকেরা এ গাছকে বলে ডালমুগরা।

পয়লা শ্রাবণে ছুটে গেলাম মিরপুরে জাতীয় উদ্ভিদ উদ্যানে। জাতীয় উদ্ভিদ উদ্যানের এ রকম জনমানবহীন দৃশ্য এর আগে আর কখনো চোখে পড়েনি। একটা সেকশনের মধ্যে নামফলকে চালমুগরা গাছের নামটা দেখে সেখানে দাঁড়িয়ে পড়ি। একটু খুঁজতেই পেয়ে যাই গাছটা। মাঝারি আকারের বৃক্ষ, প্রায় দশ-বারো মিটার লম্বা, কাণ্ড সোজা—সরল ও গোলাকার। গাছে দোলানো ঝোলানো ডালপালা। ডালের দুই পাশে সাজানো চকচকে সবুজ লম্বা লম্বা আয়তাকার পাতা, পাতার কিনারা সমান, তবে সামান্য ঢেউখেলানো, অগ্রপ্রান্ত সুচালো, শাখার দুই পাশে পাতাগুলো বিপরীতভাবে সজ্জিত, একেবারে আগায় বা শীর্ষে একটি পাতা, শিরা স্পষ্ট দেখা যায়। শাখায় শাখায় দুলছে গোল গোল বলের মতো নস্যি রঙের ফল। কোনো ডালে কোনো ফুল নেই, ফুল ফোটা শেষ হয়ে গেছে আরও আগেই। গ্রীষ্ম-বর্ষা ফুল ফোটার সময়। ফুলের রং হালকা হলুদ, কখনো একক আবার কখনো কয়েকটা ফুল থোকায় ফোটে, ফুলে ঘ্রাণ আছে। 

ফল পাকবে আরও পরে, সাধারণত হেমন্তের দিকে পরিপক্ব হয়। ফল সুগোল, শক্ত কাঠের মতো পুরু খোসা, বাদামি। ভেতরে ভুট্টার দানার মতো কয়েকটা বীজ থাকে। পরিপক্ব হলে সেসব ফল সংগ্রহ করে বীজ বের করা হয়। বীজ পিষে তেল বের করা হয়। চালমুগরা তেল অত্যন্ত ঔষধি গুণসম্পন্ন। এ গাছের আর কোনো অংশকে ঔষধার্থে ব্যবহারের পরামর্শ প্রাচীন বৈদ্যরা দেননি। চক্রপাণি দত্ত তার প্রণীত ‘চক্রদত্ত সংগ্রহ’ গ্রন্থে অর্শরোগে চালমুগরার তেল পান করার উপদেশ দিয়েছেন। বিভিন্ন প্রাচীন আয়ুর্বেদ শাস্ত্রে এও বলা হয়েছে যে, যেভাবে তিল থেকে তেল বের করা হয়, সেভাবে চালমুগরার বীজও পিষে নিলে তেল পাওয়া যায়। চালমুগরার তেল বিভিন্ন চর্মরোগ, বাত ও দেহের কোনো স্থানে থেঁতলে গেলে সেখানে মালিশ করলে উপকার পাওয়া যায়। 

তেল মালিশ করলে চুলকানি থাকলে তাও সেরে যায়। এমনকি মাথার খুশকি দূর করতে চালমুগরার তেল মাথায় মাখা হয়। অতীতে কুষ্ঠরোগ হলে রোগীকে একঘরে করে রাখা হতো। তাকে ঘৃণার চোখে দেখত সমাজ। এমনকি কুষ্ঠরোগীকে সে সমাজ থেকে বের করে দেওয়া হতো। কিন্তু সে যাবে কোথায়? শেষে গ্রামীণ বৈদ্যরাই তাকে চালমুগরার তেল ব্যবহারের নিদান দিতেন। বলতেন, কুষ্ঠরোগের প্রাথমিক অবস্থায় চালমুগরার তেল গরম করে তাতে সামান্য মৌ-মোম মিশিয়ে মলমের মতো করে লাগালে ও চালমুগরার তেল ১০ ফোঁটা মাত্রায় দুই বেলা খেলে কুষ্ঠরোগের যন্ত্রণা থেকে রেহাই পাওয়া যায়। এ উপদেশ দিয়েছেন আয়ুর্বেদাচার্য শিবকালী ভট্টাচার্য তার ‘চিরঞ্জীব বনৌষধি’ বইয়ের পঞ্চম খণ্ডে। 

চালমুগরার উদ্ভিদতাত্ত্বিক নাম Hydnocarpus kurzii ও গোত্র Flacourtiaceae। এ গাছ চিরসবুজ প্রকৃতির, অর্থাৎ শীতে এর পাতা ঝরে না। কাঠ খুব শক্ত, কাঠের ভেতরের রং সাদা, বাইরের রং হলদে, বাকল ধূসর। গাছের আদি নিবাস ভারতবর্ষ ও মায়ানমার। সে অর্থে গাছটি আমাদের দেশি। তবে চালমুগরাগাছ সমতলের চেয়ে ত্রিপুরা, খাসিয়া পাহাড় বা সিলেট অঞ্চল, চট্টগ্রামের পার্বত্য এলাকা, কক্সবাজারের অরণ্য ও পার্বত্য চট্টগ্রাম, ইয়াঙ্গুন প্রভৃতি এলাকায় ভালো জন্মে।

চালমুগরাগাছ এত ঔষধি গুণের হলেও তার ব্যবহার সেভাবে এখন আর হয় না। অকম্মা গাছের খাতায় চলে যাওয়ায় ধীরে ধীরে বন থেকেও সে হারিয়ে যাচ্ছে। এ গাছকে টিকিয়ে রাখতে হলে প্রাকৃতিক পরিবেশে এর প্রকৃত আবাসস্থলে চারা লাগাতে হবে। বাংলাদেশ বন গবেষণা ইনস্টিটিউট সমতলে না লাগিয়ে পাহাড়ের মধ্যদেশ থেকে পাদদেশ পর্যন্ত চালমুগরাগাছ লাগানোর পরামর্শ দিয়েছে।

‘বাঘ বিধবা’ সোনামণির কষ্টকাহিনি

প্রকাশ: ১৫ জুলাই ২০২৪, ১০:২০ এএম
আপডেট: ১৫ জুলাই ২০২৪, ১০:২০ এএম
‘বাঘ বিধবা’ সোনামণির কষ্টকাহিনি
সাতক্ষীরার কালীগঞ্জের সোনামণির দিন কাটে একাকিত্বে আর সংকটে। ছবি: খবরের কাগজ

সুন্দরবনসংলগ্ন এলাকার আলোচিত এক মুখ সোনামণি। যার দুই স্বামীর প্রাণ কেড়ে নিয়েছে রয়েল বেঙ্গল টাইগার। বাঘের আক্রমণে দুই স্বামী নিহত হওয়ার পর থেকে ‘অপয়া’, ‘অলক্ষ্মী’, ‘স্বামীখেকো’ অপবাদ মাথায় নিয়ে বেঁচে থাকতে হচ্ছে সোনামণিকে। কোনো অনুষ্ঠানে দাওয়াত দিলেও তাকে খেতে দেওয়া হয় সবার শেষে।

বর্তমানে সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার মুন্সীগঞ্জ বাজারের পেছনে জেলেপাড়ায় বসবাস তার। দুই স্বামীর সংসারে চার সন্তান থাকলেও সোনামণির দেখভাল করেন না তাদের কেউই। বলতে গেলে একাকী জীবনে সংকট নিত্যদিনের, নেই কোনো সমাধান। 

বাঘ বিধবা সোনামণির বাবার বাড়ি সাতক্ষীরার কালীগঞ্জে। ছোটবেলা থেকে বাবার অভাবের সংসারে বড় একটা বোঝা ছিলেন তিনি। এ জন্য বেশি দিন বাবার ঘরে থাকতে পারেননি। মাত্র ১৫ বছর বয়সে বাবা তাকে বিয়ে দিয়ে দেন নিজ বংশীয় এক জেলের সঙ্গে।

ভালো ছেলে হওয়ায় পাত্রকে হাতছাড়া করেননি সোনামণির বাবা। বর শ্যামনগর উপজেলার মুন্সীগঞ্জ গ্রামের জেলেপাড়ার তরুণ রাধাকান্ত সরদার। বিয়ের কয়েক বছরের মধ্যেই জন্ম নেয় এক ছেলে। সোনামণি ও তার স্বামীর মুখে হাসি ফুটে ওঠে। বেশ ভালোই চলছিল তাদের জীবন ও সংসার। 

সন্তানের বয়স যখন এক মাস, তখন (১৯৯৯ সাল) স্বামী রাধাকান্ত সরদার বন বিভাগ থেকে পাস-পারমিট নিয়ে সুন্দরবনে মাছ ধরতে যান। সেখানে গিয়ে বাঘের আক্রমণে প্রাণ হারাতে হয় তাকে। বাঘের কবল থেকে রাধাকান্তের লাশ পর্যন্ত খুঁজে পাননি তার সঙ্গীরা। মর্মান্তিক এই ঘটনায় আকাশ ভেঙে পড়ে সোনামণির মাথায়। তছনছ হয়ে যায় সুখের সংসার। মাত্র এক মাস বয়সী শিশুসহ স্বামীর বাড়ি থেকে বিধবা এই নারীকে দূর দূর করে তাড়িয়ে দেন তার শাশুড়ি। সমাজের লোকজন সোনামণিকে ‘অপয়া’ বলে আখ্যা দেন। যেন তার অপরাধের(!) কারণেই স্বামীকে বাঘে খেয়েছে।

কষ্টেসৃষ্টে দিন যেতে থাকে হতভাগিনী সোনামণির। কীভাবে সংসার চলবে? এই সংকটের কী সমাধান? সে সময় স্বামীহারা একজন নারীকে সমাজে অবহেলার চোখে দেখা হতো। অভাবী বাবার সংসারেও জায়গা হয়নি তার। সমাজ তাকে ‘অপয়া’ বলে ধিক্কার দিতে থাকে। একপর্যায়ে প্রতিবেশীরা সোনামণির এক মাস বয়সী শিশুসন্তানের কথা ভেবে তার অবিবাহিত দেবর ভুবেন সরদারের সঙ্গে বিয়ের ব্যবস্থা করেন। এ সংসারে এক ছেলে ও দুই মেয়ের জম্ম হয়। এতে সোনামণির দুঃখ কিছুটা লাঘব হয়। পেছনের কালো শোকার্ত অধ্যায় মুছে ফেলে নতুনভাবে সংসার শুরু করেন। 

২০০৩ সালে ভুবেন সরদার বন বিভাগ থেকে পাস-পারমিট নিয়ে সুন্দরবনে মাছ ধরতে যান। কিন্তু আর ফিরে আসেননি। মন্দ কপাল আর কাকে বলে! প্রথম স্বামীর মতো দ্বিতীয় স্বামীও বাঘের শিকার হন। খুঁজে পাওয়া যায়নি স্বামী ভুবেনের লাশও। 

দুই স্বামী বাঘের পেটে যাওয়ার পর সোনামণিকে স্থানীয় লোকজন ‘অলক্ষ্মী’ ও ‘স্বামীখেকো’ আখ্যা দিয়ে সমাজ থেকে আলাদা করে দেন। শাশুড়ি তাকে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখেন, যাতে ভোরবেলা ঘুম থেকে উঠে অকল্যাণ এড়াতে এই ‘অলক্ষ্মী’র মুখ দেখতে না হয়। 

সোনামণি বলেন, ‘১৯৯৯ সালে আমার স্বামীকে বাঘে ধরে নিয়ে যায়। সে কারণে কোলের এক মাস বয়সী বাচ্চাসহ শাশুড়ি আমাকে তাড়িয়ে দেন। তখন আমাকে বাচ্চা নিয়ে পথে পথে ঘুরতে হয়েছে। পরে দেবর আমাকে বিয়ে করে। ২০০৩ সালে বাঘে ধরে তাকেও।’

সোনামণি আরও বলেন, “আমার এ জীবন তো মৃত্যুর মতোই। স্বামীরা গেল বাঘের পেটে, সেই সঙ্গে আমাকেও মেরে রেখে গেল। আমার মতো সব ‘বাঘ বিধবা’ নারীর জীবন চলছে অপমানে অবহেলায় ধুঁকে ধুঁকে।” 

স্বামী হারানোর অবর্ণনীয় দুঃখকষ্টের সঙ্গে তাদের জীবনে যোগ হয়েছে সামাজিক নির্যাতন ও নিগ্রহ। পরিচিতি জুটেছে ‘অপয়া, ‘অলক্ষ্মী’ ও ‘স্বামীখেকো’ হিসেবে। স্ত্রীর মন্দভাগ্য স্বামীদের বাঘের মুখে ফেলেছে বলে মনে করে এই সমাজ। এই দায় মাথায় নিয়ে বহু ‘বাঘ বিধবা’ অসহায় নারী বাধ্য হন স্বামীর ঘর ছাড়তে। কিন্তু তার পরও বেঁচে থাকতে হয়। সন্তান লালন-পালন করতে হয়। রোজগারের জন্য যুদ্ধ না করে উপায়ই বা কী?। এমন হাজারও সংকটে বিপন্ন অভাগিনী ‘বাঘ বিধবা’রা। তাদের ভাঙাপোড়া জীবনে বিবর্ণ অন্ধকার ছাড়া অন্য কিছু নেই।

নাম তার সরস্বতী চাঁপা

প্রকাশ: ১২ জুলাই ২০২৪, ১১:৩৬ এএম
আপডেট: ১২ জুলাই ২০২৪, ১১:৩৬ এএম
নাম তার সরস্বতী চাঁপা
ছবি: লেখক

একেই বলে দশচক্রে ভগবান ভূত! দশজন যদি ভগবানকে ভূত বলে ডাকে, তবে তার সে নামটাই একদিন স্থায়ী হয়ে যায়। লোকমুখের রটনা খুবই মারাত্মক। কখনো কখনো তা বিপর্যয়েরও কারণ হয়। তবে সরস্বতী চাঁপার ক্ষেত্রে কথাটা কতটা সত্য হবে, জানি না। কেননা এ গাছের চারা সম্প্রতি বাংলাদেশে এসেছে ভারত থেকে। 

এ গাছের কোনো বাংলা নাম না থাকায় নার্সারির লোকেরা একে ডাকতে শুরু করেন সরস্বতী চাঁপা বলে। এরপর সেসব নার্সারি থেকে যারা চারা কিনে নিয়ে বাগানে লাগান, তখন তার ধবধবে সাদা সুগন্ধি ফুলের রূপে বিমোহিত হয়ে নার্সারির লোকদের দেওয়া সে নামকেই আপন করে নিয়ে তারা ডাকতে শুরু করেন সরস্বতী চাঁপা বলে। আবার কেউ কেউ এ নামটাকে এতটাই পছন্দ করেছেন যে, সে নামের পক্ষে বেশ জোরালো একটা যুক্তিও দাঁড় করিয়েছেন। তারা বলছেন, এ গাছের কাঠ দিয়ে বাদ্যযন্ত্র বীণা তৈরি হয়। বীণা আর বই হলো সরস্বতীর হাতের শোভা, সংগীতকলা ও জ্ঞানের প্রতীক। আবার ফুলের শুভ্রতাও শুভ্রবসনা সরস্বতীর সঙ্গে মানানসই। তাই এ গাছের নাম সরস্বতী চাঁপা তো হতেই পারে। 

উদ্ভিদ বিজ্ঞানীরা সাধারণত যেকোনো উদ্ভিদের নামকরণ করেন তার বিভিন্ন বৈশিষ্ট্যের ওপর ভিত্তি করে। বৈশিষ্ট্যের ওপর ভর করে প্রথমে করা হয় তার দ্বিপদী নামকরণ, যাকে আমরা উদ্ভিদতাত্ত্বিক নাম বা প্রজাতিগত নাম বলি। এসব নামের দুটো অংশ থাকে, যাকে বলে এপিথেট বা নামাংশ। এরপর করা হয় তার সাধারণ নাম, যা সাধারণত ইংরেজি নাম হিসেবে পরিচিত হয়। এরপর আসে স্থানীয় নাম। এটা বিভিন্ন ভাষাভাষীর কাছে বিভিন্ন আঞ্চলিক নামে প্রতিষ্ঠা পায়। 

এসব নামকরণ যে বিজ্ঞানীরা করেন তা নয়, স্থানীয় লোকেরাই এসব নাম দেন, তাই এগুলোকে বলা যায় লোকনাম। সরস্বতী চাঁপা নামটিকে যদি বাংলাদেশি লোকেরা দিয়ে থাকেন, তবে সেটা দোষের কিছু না। শুধু খেয়াল রাখতে হবে যে তার উদ্ভিদতাত্ত্বিক নামটা যেন আমরা না বদলাই, সে অধিকার বিজ্ঞানীরা আমাদের দেননি।

পাঁচ-ছয় বছর আগে ধানমন্ডির ৯ নম্বর রোডের একটা বাড়ি ‘টোনাটুনি’তে সরস্বতী চাঁপাগাছ দেখেছিলাম। খুব ছোট সে গাছে লম্বা ঝুলন্ত ছড়ায় ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র সাদা রঙের ফুল ফুটতে দেখেছিলাম। তেমন আহামরি রূপ না থাকায় বেশি গুরুত্ব দিইনি। কিন্তু বাগানের মালিক ডা. ফেরদৌস আরা যখন সে ফুলের সুগন্ধ শুঁকে দেখতে বললেন, তখন সে সুগন্ধে বিমোহিত হয়ে গেলাম। ওই ছোট্ট ফুলের এত সৌরভ! তিনি জানিয়েছিলেন, গাছটা তিনি ঢাকার বৃক্ষমেলা থেকে কিনেছিলেন। এর পর থেকেই গাছটার খোঁজখবর নিতে শুরু করি। সংবাদ পেয়েও যাই নানা জনের ফেসবুক পেজের মাধ্যমে। তার মানে সরস্বতী চাঁপা বাংলার মাটিতে ঠাঁই করে নিয়েছে। কিন্তু এর বিস্তারিত তথ্য তেমন পেলাম না। বছর দুয়েক আগে আশুলিয়ার চারাবাগের এক নার্সারিতে চারা পেয়ে আমিও তা কিনে নিয়ে টাঙ্গাইলের সখিপুরে যাদবপুর গ্রামে কবি নজরুল পার্কের চাঁপাবাগে লাগাই। 

সেখানে অন্যান্য চাঁপাগাছের সঙ্গে সরস্বতী চাঁপার গাছও বড় হতে থাকে। পরের বছরই তাতে ফুল ফোটে। পাতার কোল থেকে প্রায় ৮-১০ ইঞ্চি লম্বা ছড়া বা পুষ্পমঞ্জরিতে অনেকগুলো সাদা রঙের ফুল ফোটে দফায় দফায়। তার কাছে যেতেই সেই সুগন্ধ। পরের বছর দেখলাম, গাছটা আরও বড় হয়েছে, বাড়ছে বেশ দ্রুত। তবে ঢাকায় রমনা পার্কের মধ্যেই যে সরস্বতী চাঁপার একটা বয়স্ক গাছ আছে, তা কোনো দিন চোখে পড়েনি। মহুয়া চত্বরের পাশে সে গাছটায় বর্ষাকালেও ফুল ফুটছে। বড় বৃক্ষের পাতার ফাঁকে ছোট ছোট লম্বা মঞ্জরিতে ছোট ছোট ফুল থাকায় হয়তো তা চোখ এড়িয়ে গেছে। গাছটার বাকলও অদ্ভুত। বাদামি রঙের টিস্যু পেপারের মতো পরতে পরতে সাজানো বাকল, লম্বা চেরা চেরা ফাটলের মতো দাগ, বর্ষার জলে ভিজে জবজবে হয়ে আছে।

কিন্তু এ দেশের বইপত্র ঘেঁটে ও গাছের কোনো উল্লেখ কোথাও পেলাম না। অবশ্য ঘাঁটতে ঘাঁটতে বিদেশি একটি বইয়ে ওর উদ্ভিদতাত্ত্বিক নাম পেলাম Citharexylum spinosum ও গোত্র ভার্বেনেসি, ইংরেজি নাম ফ্লোরিডা ফিডলউড। তার মানে এ গাছটার জন্মভূমি আমেরিকার ফ্লোরিডা। ক্যারিবীয় দেশগুলোতে এ গাছ বেশ দেখা যায়। গাছ আছে ভেনেজুয়েলা, গায়ানা ও সুরিনামে, ভারতেও আছে। মনে হয়, সেখান থেকেই আমাদের দেশে এ গাছের অনুপ্রবেশ। প্রতিবছর বৃক্ষমেলার সুবাদে এ দেশে চারা ব্যবসায়ীরা বিদেশ থেকে, বিশেষ করে ভারত ও থাইল্যান্ড থেকে নতুন নতুন গাছ এনে বাংলার উদ্ভিদসম্পদকে সমৃদ্ধ করে যাচ্ছেন। এটিও তেমনিভাবে এসেছে। এ গাছের প্রতিষ্ঠিত কোনো বাংলা নাম নেই। সরস্বতী চাঁপা নামটি আমরা গ্রহণ করতে পারি। 

সরস্বতী চাঁপা ছোট বৃক্ষপ্রকৃতির বহুবর্ষজীবী চিরসবুজ গাছ। গাছ ১৫ মিটার পর্যন্ত লম্বা হয়। পাতা উপবৃত্তাকার, পাতার বোঁটার রং কমলা আভাযুক্ত। পাতা ও ডালের সংযোগস্থল বা কক্ষ থেকে লম্বা ছড়ার মতো পুষ্পমঞ্জরিতে প্রায় সারা বছরই ফুল ফোটে, ফুলগুলো অত্যন্ত সুগন্ধযুক্ত। পুষ্পমঞ্জরির দৈর্ঘ্য ৮ থেকে ১৬ সেন্টিমিটার, পাপড়ি ৫টি। হিজল ফুলের মতো ছড়ায় পুষ্পমঞ্জরি ঝুলতে থাকে। ফুল শেষে গোলাকার ফল হয়। পাকলে ফলের রং হয় লাল থেকে কালো। বন্য প্রাণী ও পাখিদের খুব প্রিয় এই ফল। সুগন্ধি ফুল প্রজাপতিদেরও আকৃষ্ট করে। বীজ থেকে চারা হয়। তাই সহজে বাগানে এ গাছের বংশ বৃদ্ধি নিজেরাই করা যায়। এই গাছ আধো ছায়া ও রোদে ভালো হয়। বাগানের শোভাময়ী গাছ হিসেবে লাগানো যায়। গাছ মাঝারি লবণাক্ততা সইতে পারে। তাই উপকূলীয় অঞ্চলের বাগানেও এ গাছ লাগানো যায়।

আবারও হালদায় ভেসে উঠল ১২ কেজি ওজনের কাতলা

প্রকাশ: ০৮ জুলাই ২০২৪, ০১:১৯ পিএম
আপডেট: ০৮ জুলাই ২০২৪, ০৩:৩৮ পিএম
আবারও হালদায় ভেসে উঠল ১২ কেজি ওজনের কাতলা
ছবি : খবরের কাগজ

এশিয়ার একমাত্র প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র হালদায় আবারও ১২ কেজি ওজনের মৃত মা কাতলা মাছ ভেসে উঠে। পরে মাছটি উদ্ধার করে মাটিচাপা দেওয়া হয়। 

রবিবার (৭ জুলাই) উরকিরচর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে থেকে মাছটি উদ্ধার করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) পরামর্শে মাটিচাপা দেওয়া হয়। 

৭নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সাজ্জাদ শাহ বিষয়টি খবরের কাগজকে নিশ্চিত করেন। 

এ মাছের ছবি দিয়ে মহিউদ্দিন চৌধুরী নামের একজন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে লিখেন, ‘কিছু অমূল্য সম্পদ আছে যা একবার হারিয়ে গেলে আর ফিরে পাওয়া সম্ভব নয়। তেমনই একটি অমূল্য সম্পদ এই মা মাছ। এক সময়ে এই হালদার পোনার ওপর নির্ভর করে অনেক পরিবার বছরে কয়েক মাস সচ্ছলভাবে চলতে। হালদাপাড়ের কিছু মানুষের জীবিকাই ছিল পোনা কেন্দ্রিক। সরকার অনেক উদ্যোগ নেওয়ার পরও কার্যকর কোনো সুফল আসছে না। শিকারি আর কলকারখানার বর্জ্যে হালদা আজ বিপন্ন।’

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের চেয়ারম্যান ও চবির হালদা গবেষণাগারের সমন্বয়ক মনজুরুল কিবরিয়া খবরের কাগজকে বলেন, ‘এ নিয়ে ছয়টি মরা মাছ ও দুটি ডলফিন উদ্ধার হয়েছে। মা মাছের ময়নাতদন্ত করা হচ্ছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাবে। মূলত দূষণের কারণেই হালদায় মা মাছ মারা যাচ্ছে। দূষণ কী জন্য হচ্ছে সেটি বের করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি আমরা।’ 

আবদুস সাত্তার/জোবাইদা/অমিয়/