ঢাকা ১০ শ্রাবণ ১৪৩১, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪

তারুণ্যের বিকাশে অনুষ্ঠিত হল ‘শান্তি ও সম্প্রীতি সংলাপ’

প্রকাশ: ০৭ জুলাই ২০২৪, ০৫:০৭ পিএম
আপডেট: ০৭ জুলাই ২০২৪, ০৫:০৭ পিএম
তারুণ্যের বিকাশে অনুষ্ঠিত হল ‘শান্তি ও সম্প্রীতি সংলাপ’

রাজধানীর গুলশানের ইএমকে সেন্টারে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হলো ‘শান্তি ও সম্প্রীতি সংলাপ’। মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় ইয়ুথ এংগেজমেন্ট ইন ডেমোক্রেসি প্রকল্পের আওতায় ফিল্মস ফর পিস ফাউন্ডেশনের আয়োজনে এই সংলাপে তরুণ ও অভিজ্ঞদের মিলনমেলা ঘটে।

সংলাপের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ও ইয়ুথ এংগেজমেন্ট ইন ডেমোক্রেসি প্রকল্প সম্পর্কে কথা বলেন ফিল্মস ফর পিস ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক পারভেজ সিদ্দিকী। 
দুটি সেশনে আয়োজিত সংলাপে উঠে আসে উদ্যোক্তা হওয়ার পথে তরুণদের চ্যালেঞ্জগুলো। পাশাপাশি আমন্ত্রিত অতিথিরা সেসব চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় বেশকিছু পরামর্শ ও সুপারিশ দেন । ‘সুযোগ এবং চ্যালেঞ্জ’ শিরোনামের প্রথম সেশনে  ড.মাকসুদা সুলতানার সঞ্চালনায় শিল্পী টিপু মুনশি, নৃত্যশিল্পী পূজা সেনগুপ্ত, অধ্যাপক আফসানা ফেরদৌসি,বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের সাবেক প্রধান নির্বাহী জাবেদ আহমেদ তরুণদের সাথে কথা বলেন। 

‘সাফল্যের জন্য দক্ষতা উন্নয়ন’ শিরোনামে দ্বিতীয় পর্বে ফিল্মস ফর পিস ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা-পরিচালক নন্দিত অভিনেত্রী রোকেয়া প্রাচীর সঞ্চালনায় আলোচনায় অংশ নেন কেয়ার গিভিং বিশেষজ্ঞ শিল্পী আক্তার, সাকিব রায়হান, ন্যাশনাল হোটেল অ্যান্ড ট্যুরিজম ট্রেনিং ইনস্টিটিউটের ফুড অ্যান্ড বেভারেজ বিভাগের প্রধান জাহিদা বেগম, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তরের প্রকল্প বিশেষজ্ঞ মানিক মাহমুদ ও সুপরিচিত বক্তা ও কর্পোরেট ব্যাক্তিত্ব সোলায়মান সুখন। 

অতিথিদের সাথে আলোচনা ও আলাপচারিতায় অভিজ্ঞদের পরামর্শে সম্মৃদ্ধ হয় তরুণরা ।  

সংলাপের মূল লক্ষ্য ছিল দেশের বিভিন্ন খাতের উদীয়মান তরুণ এবং অভিজ্ঞরা যাতে নিজেদের অভিজ্ঞতা বিনিময় করতে পারেন এবং নতুন আইডিয়া ও সমাধান খুঁজে পান। তরুণদের অর্থনৈতিক ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করতে হলে কিভাবে তাদের শিক্ষায়, কর্মসংস্থানে এবং উদ্যোক্তা উন্নয়নে সহায়তা করা যায় তা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। 

এছাড়া বর্তমান শিক্ষাব্যবস্থা এবং কর্মসংস্থানের মধ্যে সমন্বয় করে জীবনমুখী শিক্ষা ব্যবস্থা চালুর ওপর জোর দেয়া হয়।

তরুণদের নেতৃত্ব বিকাশের জন্য জাতীয় সংসদসহ সবক্ষেত্রে তাদের প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিতের দাবি জানানো হয়। সংলাপে বক্তারা তরুণদেরকে সফল উদ্যোক্তা হতে আগে দক্ষতা উন্নয়নের পরামর্শ দেন। 

সংলাপে তরুণদের প্রতিভা, উদ্ভাবনী দক্ষতা এবং সৃজনশীলতাকে উন্নত করার উপায়গুলো নিয়ে আলোচনা হয়। অংশগ্রহণকারীরা স্বপ্ন পূরণের পথে এবং বাংলাদেশের আর্থিক-সামাজিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা পান। 

আয়োজনের শেষে সমাপনী বক্তব্য রাখেন ও তরুণ উদ্যোক্তাদের হাতে ক্রেস্ট তুলে দেন মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের বনশ্রী মিত্রা নিয়োগী।

সফল টিনএজার হতে  সাত পরামর্শ

প্রকাশ: ১২ জুলাই ২০২৪, ০১:০৪ পিএম
আপডেট: ১২ জুলাই ২০২৪, ০১:০৪ পিএম
সফল টিনএজার হতে  সাত পরামর্শ

লেখাপড়া শেষে কর্মজীবনে প্রবেশ করেই সফল মানুষ হয়ে ওঠার প্রসঙ্গ আসে। এসব সফল মানুষের পেছনে পড়ে থাকে স্মৃতিময় টিনএজ বয়সের রঙিন দিনগুলো। কিন্তু অনেক টিনএজারের কাছে তার সময়টি খেলাধুলার মাঠ নয়, টিনএজ বয়স থেকেই তাদের জীবনে সফলতা অর্জনের পথ খুঁজতে হয়। বিশেষজ্ঞদের মতে, চাইলে একজন সফল টিনএজার হয়ে ওঠাও অসম্ভব কিছু নয়। যদিও এ বয়সে সফল হওয়াটা সহজ কথা নয়, কিন্তু অনেকের ক্ষেত্রেই তা সম্ভাবনাময়। এখানে টিনএজ বয়সেই সফলতা লাভের সাতটি পরামর্শ।

স্কুলে ভালো করো: ভবিষ্যৎ কেমন হবে- টিনএজাররা এর পরিচয় রাখে স্কুলজীবনে। তাই লেখাপড়ার কাজটি বেশ মনোযোগের সঙ্গে করা জরুরি। হতে পারে অনেক বিষয়ই ভালো ঠেকছে না; কিন্তু এরপরও সফল হয়ে ওঠার বিষয়টি মাথায় রেখে দারুণ একটা ফল বাগিয়ে নিতে ঝাঁপ দাও।

নিজস্বতা তৈরি করো: তুমি যেমন, সবসময় তেমনই থাকো। বড়রা এ নিয়ে দ্বিমত পোষণ করলেও তুমি নিজের মতো থাকার চেষ্টা করবে। এর সঙ্গে যোগ করবে আত্মবিশ্বাস। নিজের সামর্থ্যের ওপর ভরসা করবে। এই গুণগুলোর পরিচর্যা করো। যা নিজের জন্য ভালো বলে মনে হয়, নিজস্বতা নিয়ে তা করতে কোনো দোষ নেই।

মাদক থেকে দূরে থাকো: কখনোই মাদকের প্রতি আকৃষ্ট হবে না। আগ্রহের বশে একটু চেখে দেখার ইচ্ছাও মনে আনবে না। তোমার সব ভালো এবং সম্ভাবনাময় বিষয়ের ইতি ঘটাতে এই একটি বিষয়ই যথেষ্ট। বিন্দুমাত্র মাদকে আগ্রহ না রাখলে তোমার কিছুই যাবে-আসবে না। কাজেই টিনএজারদের মাদককে ঘৃণা করতে হবে।

নিজের গণ্ডিতে ভালো কিছু করো: তুমি যেখানে থাকো তার চারপাশের মানুষ এবং পরিবারের জন্য ভালো কিছু করার চেষ্টা চালিয়ে যাও। নিজের লেখাপড়ার ক্ষতি না করেও ছোট ছোট অথচ সমাজের জন্য ভালো অনেক কিছুই করা যায়। এতে করে তুমি সুখী হবে এবং বড় কিছু করার আশা জন্ম নেবে। এর ফলে সম্ভাবনার জানালাগুলো খুলে যাবে, যা তুমি আগে কখনো দেখনি।

জীবনের লক্ষ্য স্থির করো: টিনএজ বয়সের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি কাজ হলো, জীবনের লক্ষ্য স্থির করা। একবার লক্ষ্য সম্পর্কে পরিষ্কার হয়ে গেলে নির্দিষ্ট দিকে এগিয়ে যেতে সুবিধা হবে তোমার। লক্ষ্যকে ক্যারিয়ারের সঙ্গে যুক্ত করো। এতে চলার পথের সন্ধান পাবে। এই বয়স থেকেই পথের দিশা পেলে তোমাকে ঠেকায় কে?

ব্যবহার ভালো করো: পরিচিত বা অপরিচিত সবার সঙ্গেই ভালো ব্যবহার করো। এটি তোমার দারুণ এক ব্যক্তিত্ব তৈরি করে দেবে। বন্ধুমহল, শুভাকাঙ্ক্ষী ও বড়দের পরামর্শ শুনবে। সেখান থেকে নিজের জন্য ভালো মনে হয় এমন পরামর্শগুলো গ্রহণ করো। আচরণ ভালো থাকলে সবাই তোমাকে সুপরামর্শই দেবে।

ভালো বন্ধুমহল তৈরি করো: বন্ধুরা জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ। এখানে যদি ভালোদের সমাগম ঘটে, তবে তোমার জীবনে ভালো কিছু না কিছু ঘটতেই থাকবে। তাই তোমার মতো সফল টিনএজারদেরই বন্ধু হিসেবে পাওয়ার চেষ্টা করো। সুবিধার নয়, এমন বন্ধুদের সঙ্গ ত্যাগ করো। এসব বন্ধু জীবনটাকে বিষাক্ত করে দেবে।

জাহ্নবী

ভ্রমণকন্যা আসমা আজমেরী

প্রকাশ: ১২ জুলাই ২০২৪, ০১:০২ পিএম
আপডেট: ১২ জুলাই ২০২৪, ০১:০২ পিএম
ভ্রমণকন্যা আসমা আজমেরী
বাংলাদেশের পতাকা হাতে আসমা আজমেরী

বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক ট্রাভেলার্সদের মধ্য অন্যতম এক নাম কাজী আসমা আজমেরী। ঘুরে বেড়াচ্ছেন দেশ থেকে দেশান্তরে। ইতোমধ্যে ১৪৫টি দেশ ভ্রমণ করছেন। বর্তমানে তিনি গাম্বিয়ায় রয়েছেন। বাংলাদেশের পাসপোর্ট হওয়ার কারণে তার ভিসা পেতে সমস্যা হয়। তবু বাংলাদেশের লাল সবুজের পতাকার বাহক হিসেবেই ঘুরবেন বিশ্বময়।

আসমা খুলনা শহরে বড় হয়েছেন। কাজী গোলাম কিবরিয়া ও কাজী সাহিদা আহমেদ দম্পতির একমাত্র মেয়ে তিনি। ছোটবেলায় মায়ের সঙ্গে স্কুলে আসা-যাওয়া করতেন। এক দিন স্কুল ছুটির পর তার মা নিতে এলেন না। অবশেষে তিনি একাই সাহস করে বাসার উদ্দেশে হাঁটা শুরু করেন। হাঁটছেন আর তাকিয়ে দেখছেন আকাশটাকে। আকাশ দেখে তার মনে হলো, সে আকাশের শেষ সীমানা দেখবেন। কিন্তু আকাশের শেষ সীমানা আর দেখতে পাওয়া যায় না। সে দিন তিনি বেলা ১১টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত হেঁটেছিলেন। পরে এলাকাবাসী তাকে ধরে নিয়ে বাসায় পৌঁছে দেন।

আসমা বড় ইকবালনগর গার্লস হাইস্কুল থেকে এসএসসি এবং খুলনা মহিলা কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করার পর নর্থসাউথ ইউনিভার্সিটি থেকে ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগে স্নাতক এবং ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটি থেকে এমবিএ করেন। আসমা থাকেন অস্ট্রেলিয়ার পার্থে। সেখান থেকে সারা দুনিয়া ঘুরে লাটাই-সুতার টানে ফিরে আসেন বাংলাদেশে। আবার পাখির মতো উড়াল দেন পরবর্তী না দেখা দেশে।

শুধু জনপ্রিয়তার জন্য নয়, আসমা দেশ ভ্রমণ করেন নিজের শখে। শখের বশে ভ্রমণ শুরু করলেও এখন অনুভব করেন, তিনি ভ্রমণের মাধ্যমে নিজ দেশকে বিশ্বের বুকে তুলে ধরতে পারছেন। সেটা তাকে বেশ আনন্দ দেয়। তার ইচ্ছে ২০২৭ সালের মধ্যে পৃথিবীর সব দেশ ভ্রমণ পূর্ণ করবেন। ভ্রমণ বিশ্বে বাংলাদেশি হিসেবে ইতিহাস গড়তে চান তিনি। আসমা বলেন, আমার বিশ্ব ভ্রমণের শুরুটা খুব একটা সুখকর ছিল না। ব্যাপারটা হলো, (আমাদের দেশে এমন একটা ধারণা প্রচলিত) বাংলাদেশের মেয়েরা ভ্রমণ করতে পারে না, কিন্তু ছেলেরা পারলে মেয়েরা কেন পারবে না! 
২০০৯ সালে নেপাল ভ্রমণ দিয়েই আমার বিশ্ব ভ্রমণের যাত্রা শুরু, বলেন তিনি। তবে শুরুতে ইচ্ছা ছিল ৫০টি দেশ ঘোরার, কিন্তু ২০২২ সালের ডিসেম্বরে তার ছয় মহাদেশে ভ্রমণ করা দেশের সংখ্যা ১৪২টি।

আজমেরি বলেন, প্রথমে আমার পরিবার ভ্রমণের বিষয়টি ভালোভাবে নেয়নি। আমার আব্বু ভ্রমণ খরচ দিতে না চাইলেও আমার মা তার গহনা বিক্রির টাকায় আমাকে খরচ জোগাতে সাহায্য করেন। তবে এটাই শুধু বাধা ছিল না, আমার পরিবারের ঘনিষ্ঠ লোকেরা আমার একা ঘোরার বিষয়টি নেতিবাচক হিসেবে নেয় এবং আমার বাবাকে তারা অভিযোগ করে যার উত্তরে বাবা আমাকে আমার একা ঘোরার বিষয়টি কাউকে না জানাতে বলেছিলেন। তবে যখন আমি ২০১৮ সালে ১০০টি দেশ ভ্রমণ সম্পন্ন করি, তখন আমার পরিবারের লোকেরা বিষয়টি ইতিবাচক ভাবে নেয়, বিশেষ করে যারা প্রগতিশীল মনোভাবাপন্ন।

বাংলাদেশি পাসপোর্ট হিসেবে অনেক দেশের ভিসা পেতে নানা রকম ভোগান্তি পোহাতে হয়, দীর্ঘদিন লেগে যায়। অনেক দেশের ভিসা পেতে খুব সমস্যা হয়ে যায়। সাউথ আফ্রিকার ভিসা পেতে বলতে গেলে আমার দশ বছর লেগে গেছে। প্রথম ২০১০ সালে যেতে চেয়েছি সাউথ আফ্রিকায়, তখন বিশ্বকাপ ফুটবল খেলা দেখার জন্য যেতে চেয়েছিলাম। তখন বলা হয়েছিল শ্রীলঙ্কার কলম্বো থেকে নিতে হবে ভিসা। ২০১১ সালে কলম্বোতে যাই তখন আমাকে বলা হয় ইনভাইটেশন ছাড়া তারা আমাকে ভিসা দেবে না। আমি তাদের বললাম সেখানে তো আমি কাউকে চিনি না, আমি একজন বিশ্ব পর্যটক। তখন তারা আমাকে আমাদের হোম মিনিস্ট্রি থেকে লেটার নিয়ে যেতে বলে। কিন্তু সে সময় আর হয়ে ওঠেনি। আমি যখন নিউজিল্যান্ডে থাকি তখনো চেষ্টা করেছি, ভিসা পাইনি। সর্বশেষ দিল্লি থেকে ভিসা পেয়েছি। এমন নানান ঘটনা আছে, অনেক দেশ আছে যেগুলো ভিসা পেতে আমার খুব বিড়ম্বনা হয়েছে। সেনেগালের ভিসা পেতে ১৬ মাস সময় লেগেছে, আরও অনেক দেশ আছে যেখানে ভিসা পাওয়া অনেক সমস্যা হয়।
তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশিদের জন্য অনেক দেশের ভিসা পাওয়া খুবই কষ্টকর-দুর্লভ, বলতে গেলে পাওয়াই যায় না। সুইডিশ বা অন্য ভালো দেশের পাসপোর্ট হোল্ডার টিকিট কাটছে আর চলে যাচ্ছে। কিন্তু আমাদের এই বাংলাদেশি পাসপোর্টে আমরা অনেক দেশেই যেতে পারি না, ভিসা পাই না।

তিনি আরও বলেন, আমি জর্জিয়া থেকে আজারবাইজানের ভিসা করেছি, সেটা ছিল আমার ৯৬তম দেশ ভ্রমণ। প্রথমে তো তারা ভিসা দেবেই না, তারা বলেছে দিল্লিতে যেতে হবে। আমি প্রতিদিন জর্ডানের অফিসে যেতাম, অনুরোধ করতাম ভিসা দেওয়ার জন্য। অনেক অনুরোধের পর তারা দিয়েছিল ৩ দিনের ভিসা। তারা দেখেছে আমি অনেক দেশ ঘুরেছি।

এরপর টানা দুই বছর অস্ট্রেলিয়ায় চাকরি করার পর আবারো জুন মাসে তিনি ভ্রমণে বের হন। ১৭ জুন সেনেগালে ১৪৪তম দেশ হিসেবে ভ্রমণ করেন। সেখান থেকে জাহাজে তিনি জিংসুয়াং শহরে যান। ২৭ জুন তিনি গাম্বিয়ায় ফিরে আসেন।

জাহ্নবী

 

টিনএজারদের জন্য সুন্দর ভবিষ্যৎ চাই

প্রকাশ: ১২ জুলাই ২০২৪, ০১:০০ পিএম
আপডেট: ১২ জুলাই ২০২৪, ০১:০০ পিএম
টিনএজারদের জন্য সুন্দর ভবিষ্যৎ চাই

পৃথিবীর এখন সবচেয়ে আলোচিত দুটি বিষয়ের একটি হলো রাশিয়া বনাম ইউক্রেন যুদ্ধ, অপরটি ফিলিস্তিন বনাম ইসরায়েল যুদ্ধ। গত বছরের অক্টোবরে নতুন করে শুরু হওয়া ফিলিস্তিন-ইসরায়েলের যুদ্ধ এখনো চলমান। জাতিসংঘের মতে, এই যুদ্ধে সবচেয়ে বেশি প্রাণ হারিয়েছে শিশু। অতীত ইতিহাসের পাতা উল্টালে দেখা যায়, বিশ্বের প্রতিটি দেশের যুদ্ধ-বিগ্রহের মধ্যে সবচেয়ে বেশি নির্যাতিত-নিপীড়িত হয়েছে নারী ও শিশু।

সহিংসতা-সংঘাতের মধ্যে পক্ষ বা বিপক্ষ শক্তির কাছে নারী ও শিশুরা সহজ শিকার হয়ে দাঁড়িয়েছে।  সদ্য গত হওয়া বছরে গাজায় নিহত হওয়া মানুষের মধ্যে অর্ধেকেরও বেশি শিশু আর নারী। জাতিসংঘের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গাজায় প্রতি দশ মিনিটে নিহত হচ্ছে একটি শিশু। জাতিসংঘ গাজাকে শিশুদের সমাধি হিসেবে ঘোষণা করেছে। জাতিসংঘের শিশুবিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ গাজাকে পৃথিবীর বুকে সবচেয়ে বিপজ্জনক স্থান হিসেবে চিহ্নিত করেছে। যে শিশুদের হাতে নিহিত রয়েছে আগামী দিনের ভবিষ্যৎ সম্ভাবনা, সেই শিশুরাই এখন হুমকির মুখে।  আজকে জন্ম নেওয়া শিশুটি এক সময় বেড়ে উঠবে। শৈশব, কৈশোর পেরিয়ে সেই শিশুটি একদিন প্রবেশ করবে তারুণ্যে। একদিন তারুণ্যের দুর্বার শক্তি দিয়ে সব বাধা-বিপত্তি পেছনে ফেলে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে এগিয়ে নেবে বিশ্বকে। শিশুরা স্রষ্টার এক অপরূপ সৃষ্টি। তাদের মধ্যে থাকে না অপরের ক্ষতি করার কোনো মনোবাসনা। বিশ্বের কয়েক কোটি শিশুর মধ্যে মুষ্টিমেয় কিছু শিশু তাদের সুন্দর শৈশবটা উপভোগ করতে পারছে। আবার অনেক শিশু বেঁচে থেকেও ধুঁকে ধুঁকে মরছে। আমরা অনাগত কিংবা সদ্য জন্ম নেওয়া শিশুদের জন্য এখনো নিরাপদ একটি পরিবেশ তৈরি করতে পারিনি। পারিনি ছোট্ট মানুষগুলোর জন্য নিরাপদ জায়গা করে দিতে। হয়তো কখনো এটা সম্ভব হবে কি-না জানি না। এই বিশ্ব আজ বড় ব্যর্থ। ব্যর্থতার দায় যতটা না পরিবার বা সমাজের ওপর বর্তায়, বর্তমান সময়ে তার চেয়ে বেশি বর্তায় বিশ্বের ওপর। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে যুদ্ধ-সংঘাত এখন নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার। বিভিন্ন ধরনের অস্ত্রের ঝনঝনানি আর হিংস্রতার মধ্যে করুণ দিনাতিপাত করছে অনেক শিশু। রাতটা কোনোভাবে পার করলেও, ভোরটা শুরু করছে বোমার শব্দ শুনে। কিংবা নিশ্চিন্তে রাত পার করে যে ভোরের নতুন সূর্য দেখবে, এতটুকু নিশ্চিয়তাও শিশুদের দিতে পারছে না অনেক দেশ। এক দেশ অন্য দেশের প্রতিহিংসার কবলে পড়ে প্রতিনিয়ত প্রাণ হারাচ্ছে শিশুরা। 

বিভিন্ন সন্ত্রাসী গোষ্ঠী শিশুদের নানাভাবে অপব্যবহার করছে। বৃহৎ স্বার্থের কথা ভুলে গিয়ে তাদের ক্ষুদ্র স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য মাধ্যম হিসেবে বেছে নিচ্ছে এসব নিষ্পাপ শিশুকে। কোমল মনে ছড়িয়ে দিচ্ছে হিংস্রতার বিষবাষ্প। মৃত্যু নিশ্চিত জেনেও ঠেলে দিচ্ছে অপরাধজগতের দিকে। ফিলিস্তিন কিংবা ইউক্রেনসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে চলমান সংঘাত পৃথিবীর জন্য ভালো কিছু বয়ে আনবে না। বিশেষজ্ঞরা সব সময় সতর্ক করছেন- এসব চলমান ভয়াবহ সংঘাত প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে শিশুদের মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর মারাত্মকভাবে প্রভাব ফেলছে। গাজার চলমান যুদ্ধে নিরপরাধ শিশুরা নিহত হলেও অদ্ভুত হলেও সত্যি যে, এ ব্যাপারে শক্তিধর রাষ্ট্রগুলোর কোনো উদ্বেগ লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। এমনকি জাতিসংঘও এটা বন্ধ করতে ব্যর্থ বলে মনে হচ্ছে। বিষয়টা ছোট হলেও গভীর উদ্বেগ আর ভাবার বিষয়। জাতিসংঘ শিশু অধিকার কনভেনশন সনদ বা সিআরসিতে স্বাক্ষরকারী দেশ হিসেবে আমেরিকার মতো উন্নত রাষ্ট্রগুলো যদি শিশুদের অধিকারের বিষয়ে এভাবে চুপ থাকে, তা হলে আগামী প্রজন্মের জন্য অন্ধকার এক পৃথিবী অপেক্ষা করে আছে। আজ এ দেশ তো কাল ওই দেশ, এভাবে কি গোটা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়বে সংঘাত-সহিংসতার রেশ! যেকোনো সংঘাতে শিশুরা আর কত বলির পাঁঠা হবে? এই প্রশ্ন কি তাদের মনে জাগেনি কখনো। এসব থেকে উত্তরণের জন্য বিশ্বের ক্ষমতাসীন রাষ্ট্রগুলো একটু সচেতন হলেই পারে শিশুদের নির্মম মৃত্যু রোধ করতে। অন্তরে শিশুদের প্রতি এতটুকু ভালোবাসা থাকলে, বিভিন্ন দেশের পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমে অনায়াসে একটি শিশুবান্ধব পৃথিবী সহজে গড়ে তোলা যায়। অন্তত শক্তিধর রাষ্ট্রগুলো চেষ্টা করলে শিশুদের প্রতি দায়িত্ব ও কর্তব্য হিসেবে আগামী পৃথিবীর কল্যাণের জন্য এতটুকু করতে পারে। শিশুদের জন্য নিরাপদ পৃথিবী এখন সময়ের দাবিতে পরিণত হয়েছে। পরিশেষে বলতে ইচ্ছে করে, সংঘাত-সহিংসতা নিপাত যাক- শিশুরা পরিত্রাণ পাক।

জাহ্নবী

রোবট বানান সানি জুবায়ের

প্রকাশ: ১২ জুলাই ২০২৪, ১২:৫৯ পিএম
আপডেট: ১২ জুলাই ২০২৪, ১২:৫৯ পিএম
রোবট বানান সানি জুবায়ের
সানি জুবায়ের ও তার দল

সানি জুবায়ের। দেশকে তাক লাগিয়ে বিজ্ঞানে প্রতিনিয়তই নতুন ইতিহাস গড়ে চলেছেন বাংলাদেশি এই তরুণ উদ্ভাবক। নতুন নতুন আবিষ্কারে যেন বাধাহীন তার পথচলা।

জুবায়েরের স্কুলজীবন কাটে মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজে। ২০২০ সালে এইচএসসি শেষ করেছেন ঢাকা কলেজ থেকে। বর্তমানে ব্র্যাক ইউনিভার্সিটিতে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে পড়াশোনা করছেন। হাতের স্পর্শ ছাড়াই কম্পিউটার চালু, দুর্ঘটনা এড়াতে স্বয়ংক্রিয় ব্রেক, গাড়ির মুখোমুখি সংঘর্ষ এড়াতে রিসিভারসহ এমন বেশ কয়েকটি চমৎকার প্রযুক্তি আবিষ্কার করে বেশ আলোচিত সানি জুবায়ের। সম্প্রতি ‘ফায়ার ফাইটিং রোবট’ বানিয়ে ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার পেয়েছেন তিনি।

ভালোবাসেন গবেষণাধর্মী কাজ এবং রোবটিক্স। গত ৮ বছর ধরে এসব কাজের সঙ্গে যুক্ত আছেন। রোবটিক্সের প্রতি ভালোবাসা ছোটবেলা থেকেই। হাতেখড়ি হয়েছে নিজে নিজেই ছোটবেলায়। খুঁজে বেড়ান যন্ত্রের ভেতরের ভাষাকে। রেজিস্টার, ট্রানজিস্টর আর সার্কিট বোর্ড প্রতিনিয়তই তাকে কৌতূহল-উদ্দীপ্ত করত। নতুন কোনো কিছু করার চিন্তা থেকে টুকিটাকি ছোট ছোট জিনিস বানাতে শুরু করেন। অংশগ্রহণ করেন বিভিন্ন আন্তস্কুল ও কলেজ এবং জাতীয় বিজ্ঞান মেলায়। ধীরে ধীরে বানাতে শুরু করেন অত্যাধুনিক কিছু রোবট।

সানি জুবায়ের বলেন, বেশ কয়েকটি অটোনোমাস রোবট এবং মার্স রোভার বানাতে সক্ষম হই। কাজ করেছি অগ্নিনির্বাপণের জন্য ডিফেন্ডার নামক রোবটের ওপর। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দিয়ে তৈরি করা হচ্ছে এই রোবটকে। অগ্নিনির্বাপণের জন্য এর পূর্বে কাজ করা হয়েছে সিগমা রোবটে, যেটি কি-না ডিফেন্ডার রোবটের প্রাথমিক ভার্সন ছিল এবং সামনেও বেশ কয়েকটি প্রকল্প রয়েছে। প্রতিনিয়ত সেসব প্রকল্পের জন্য কাজ করে যাচ্ছি।

সানি জুবায়েরের বানানো রোবট

এই তরুণ উদ্ভাবকের বানানো কিছু রোবট-
FR21 (Fighter Robot)- সামরিক কাজে ব্যবহার উপযোগী একটি রোবট।
Brain Bot- সম্পূর্ণ অটোনোমাস-ভিত্তিক দৈনিক কাজে সাহায্যকারী রোবট।
Atla- কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন একটি মঙ্গল রোভার।
Farmover -একটি কৃষি রোবট।
Falcon XXIV - একটি রেসিং রোবট।
Sigma 21- একটি অগ্নিনির্বাপক রোবট।
Atlas AUV -একটি অটোনোমাস পরীক্ষামূলক সাবমেরিন।
Waterbot - সাগরের পানি পরিষ্কারকারক একটি রোবট।
Sigma – আগুন নির্বাপণকারী রোবট।

সানি জুবায়ের জানান তার অর্জনের কথা- ১৬টি জাতীয় বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তি প্রতিযোগিতায় পদক অর্জন করি। যার মধ্যে ছিল জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ, ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা, জাতীয় রোবটিক চ্যালেঞ্জ, জাতীয় রোবট অলিম্পিয়াডসহ আরও কয়েকটি প্রতিযোগিতা। আন্তস্কুল এবং কলেজ প্রতিযোগিতায় সর্বমোট ৫৫টি পুরস্কার পাই। এর মধ্যে ছিল- নটর ডেম বিজ্ঞান মেলা, আদমজী বিজ্ঞান মেলা, আইডিয়াল বিজ্ঞান মেলা, বিএন এমপিসি আয়োজিত বিজ্ঞান মেলা, ইম্পেরিয়াল আয়োজিত বিজ্ঞান মেলা উইলস লিটল ফ্লাওয়ার বিজ্ঞান মেলাসহ আরও বেশ কয়েকটি বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তি প্রতিযোগিতা।

এ ছাড়াও তিনি জানান, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত বিজ্ঞান প্রতিযোগিতায় ১৫টি পদক অর্জন করি। এর মধ্যে ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত ফ্যাব ফেস্ট চ্যাম্পিয়ন। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত সিএসই ফেস্ট চ্যাম্পিয়ন। আইইউবি বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত টেক ফেস্ট চ্যাম্পিয়ন। খুলনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত টেকভ্যাল চ্যাম্পিয়ন। ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজি আয়োজিত ম্যাক্কেলারেশন চ্যাম্পিয়ন। এনএসইউ আয়োজিত ন্যাশনাল রোবটিক কম্পিটিশন চ্যাম্পিয়ন ইত্যাদি।

তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় আমি এবং আমার দল বাংলাদেশকে সম্মানের সঙ্গে উপস্থাপন করি। বর্তমানে সদস্য সংখ্যা ১৮ জন, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক এবং জাতীয় প্রতিযোগিতায় আমার দলসহ অংশগ্রহণ করি। আমাদের দলটির মূল উদ্দেশ্য হলো বিজ্ঞান প্রযুক্তিতে বাংলাদেশের কৃতিত্বকে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে গৌরবের সাথে উপস্থাপন করা। পাশাপাশি দেশের গুরুতর কিছু সমস্যাকে প্রযুক্তির মাধ্যমে সমাধান করা।

জাহ্নবী

প্রশংসিত টিনএজ উদ্যোক্তা

প্রকাশ: ০৫ জুলাই ২০২৪, ১২:৫৫ পিএম
আপডেট: ০৫ জুলাই ২০২৪, ১২:৫৫ পিএম
প্রশংসিত টিনএজ উদ্যোক্তা
হার্ট মেইন ও বিনুশা

কেক কারিগর বিনুশা 

মায়ের জন্মদিনে তাকে চমকে দিতে একটা বুদ্ধি বের করল আট বছরের বিনুশা। বন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে বাড়িতেই সে বানিয়ে ফেলল জন্মদিনের সব থেকে মজার কেক। কেমন হয়েছিল? যেমনটা সে চেয়েছিল, সে রকম নয়। তবে খেতে অতটা মন্দ হয়নি। কিন্তু দোকানের কেকের মতো হয়নি বলে খুব মন খারাপ হয়েছিল তার। সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলে আর কখনোই সে কেক বানাবে না। কিন্তু পরে মনে হয়, আরেকবার চেষ্টা করেই দেখি! সেবার সত্যিই নিজের বানানো কেক খেয়ে চমকে গিয়েছিল বিনুশা।

ভারতের চেন্নাইয়ের অমৃতা বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী বিনুশা দশ বছর বয়সে গড়ে তুলল নিজের পেস্ট্রি কেকের ব্র্যান্ড ‘ফোর সিজন পেস্ট্রি’। ২০১৯ সালে বাড়ি থেকে নিজের ব্র্যান্ডের পেস্ট্রি বিক্রি শুরু করে সে। সংবাদমাধ্যমে সে বলেছিল, ‘গ্রীষ্ম, বর্ষা, শরৎ, বসন্ত এ চার ঋতুকে মাথায় রেখে আমি এই ব্র্যান্ডের নাম দিয়েছি। এ চার ঋতুর রঙে আমি কাপ কেক তৈরি করি। পাশাপাশি চকলেট ও স্যান্ডুইচও বানাই। মা-বাবা যখন জানতে পারল যে আমি বেকিংয়ের কাজটা করতে ভালোবাসি, তারা আমাকে সাপোর্ট দিতেন। তারা আমাকে বেশ কয়েকটি কর্মশালায় ভর্তি করিয়ে দিলেন। সেখানে আমি বেশ কজন উদ্যোক্তার সঙ্গে পরিচিত হওয়ার সুযোগ পেয়েছিলাম, যা আমাকে এগিয়ে যেতে ভীষণ সহযোগিতা করেছিল।’

স্কুল ও পড়াশোনার ফাঁকে কেক তৈরির জন্য আলাদা সময় বের করে রাখত বিনুশা। আর ওই দশ বছর বয়সেই সে ঠিক করে রেখেছিল, বড় হয়ে সে বড় রন্ধনশিল্পী হবে। সেই মোতাবেক নেবে উচ্চশিক্ষা। ভারতের তামিলনাড়ুতে বেশ কয়েকটি কলেজে মোটিভেশনাল স্পিকার হিসেবে বক্তৃতা দিয়েছেন তিনি। অনলাইনে বেকিংয়ের ক্লাসও নিচ্ছেন নিয়মিত। তার স্বপ্ন নিজের দেশের অল্প আয়ের মানুষের জন্য সে একটা রান্নার স্কুল খুলবে।

ঘোড়া ব্যবসায়ী মিয়া মনজিডেলিস
ঘোড়া সব শিশুই পছন্দ করে। বিদেশে যারা গ্রামে থাকে, তাদের জন্য ঘোড়ার দেখা পাওয়া সহজ। কিন্তু শহর বা উপশহরে যাদের বাস, ঘোড়া তারা কোথায় পাবে? নিউইয়র্কের লং আইল্যান্ডের বাসিন্দা পাঁচ বছরের মিয়া মনজিডেলিসও মা-বাবার কাছে একটা খেলনা ঘোড়া চেয়েছিল। কিন্তু তার মা-বাবা রাজি হচ্ছিল না। মনজিডেলিস তখন বাবাকে বলল, চলো আমরা ঘোড়া বানাই আর অন্য বাচ্চাদের কাছে বিক্রি করি। তাহলে আমার ঘোড়াটাও হয়ে যাবে। মনজিডেলিস ও তার বাবা মিলে পাওয়ার পনি ও ইউনিকর্ন নিয়ে ভাবতে বসল। শিশুরা যাতে সহজে চড়তে পারে, ঘোড়ার আকৃতির এ রকম একটা জিনিস কীভাবে বানানো যায়! শুরুতে কষ্ট হচ্ছিল, কিন্তু দ্রুত তারা সেটা বানিয়ে ফেলে। সেই ঘোড়ার পায়ে লাগানো থাকে চারটি চাকা, সে ঘরময় ঘুরে বেড়াতে পারে ওই চাকায় ভর করে। সেটাকে চালানো যায় আইফোনের অ্যাপের সাহায্যে। বাজারে ছাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পাওয়ার পনি নামে মনজিডেলিসের ওই কোম্পানি সাফল্য পেয়ে যায়। দ্রুত তাদের কোম্পানিতে লোকবল বাড়াতে হয়। ২০২১ সালে পাঁচ হাজার ঘোড়া বিক্রি করে তারা। শিশুদের কাছে ঘোড়া বিক্রির টাকায় সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের সহযোগিতা করে মনজিডেলিস। 

হার্ট মেইনের সুগন্ধি মোম
বোনকে খ্যাপাতে গিয়ে বুদ্ধিটা মাথায় আসে। স্কুলের তহবলি সংগ্রহের জন্য মেয়েদের সুগন্ধিযুক্ত কিছু জিনিস বিক্রি করত ওর বোন। তেরো বছরের হার্ট মেইন চিন্তা করল, আমি পুরুষের সুগন্ধিযুক্ত জিনিস বিক্রি করব। শুরু করল তার সুগন্ধি মোম কোম্পানি, ব্র্যান্ডের নাম ম্যানক্যানস। হাতে তৈরি মোম বিক্রি করে তারা। বেভারক্রিক ক্যানডেল কোম্পানির একটি পণ্য এটি। পুরুষেরা ব্যবহার করেন এ রকম বেশ কিছু সুগন্ধিযুক্ত মোম ও সাবান তৈরি করে তার কোম্পানি। চৌদ্দ বছরের হার্টের কোম্পানি বছরে ছয় অঙ্কের আয় শুরু করে। তার এক একটি মোম বিক্রি হয় পাঁচ ও বারো ডলারে। মজার ব্যাপার হচ্ছে, আয় করা টাকা থেকে নিয়মিত ওহিয়ো, পেনসিলভানিয়া, পশ্চিম ভার্জিনিয়া ও মিশিগানে সোপ কিচেনে দান করে।

রাইয়ান হিকম্যানের রিসাইক্লিং সেন্টার
ছোটবেলায় অব্যবহৃত বোতল বা ক্যান একদম পছন্দ করত না রাইয়ান হিকম্যান। সারা বাড়ি ঘুরে ঘুরে সে বোতল সংগ্রহ করত। তারপর এক দিন বাবার সঙ্গে গিয়ে সেগুলো দিয়ে আসত রিসাইক্লিং সেন্টারে। অনেক বোতলের বদলে সে পেত পাঁচ ডলার। সেটা তাকে ভীষণ আনন্দ দিয়েছিল। এরপর নিজের ছোট্ট বাইসাইকেলের পেছনে একটা ছোট্ট বস্তা ঝুলিয়ে সে পাড়াপড়শির কাছ থেকে অব্যবহৃত বোতল সংগ্রহ শুরু করল। এভাবেই মাত্র সাত বছর বয়সে যাত্রা করে তার নিজের রিসাইক্লিং প্রতিষ্ঠান রাইয়ানস রিসাইক্লিং কোম্পানি।

পরিচিতি পেয়ে বিখ্যাত হয়ে উঠতে সময় লাগেনি রাইয়ানের। বিখ্যাত সব সংবাদমাধ্যমে তাকে নিয়ে খবর প্রকাশিত হয়েছে। টেলিভিশনে সাক্ষাৎকার দিতে দিতে সে এখন ক্লান্ত। নিজের ওয়েব সাইটে সে একপর্যায়ে টি-শার্ট বিক্রি করতে শুরু করল, যাতে কেবলই লেখা ছিল ‘মেক দ্য সি ট্র্যাস ফ্রি’। তার আয়ের মুনাফা চলে যায় উদ্ধারকারী সংস্থা প্যাসিফিক মেরিন ম্যামাল সেন্টারে। ২০২২ সালের একটা হিসেবে দেখা গেছে তার একার প্রতিষ্ঠান সে বছর ১৫ লাখ বোতল ও ক্যান জড়ো করেছে, এবং ১৫ লাখ মার্কিন ডলার সংগ্রহ করেছে। পৃথিবীকে পরিচ্ছন্ন করতে নতুন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে রাইয়ান। সবার সহযোগিতা চেয়ে সে বলেছে, ‘আমরা সবাই যদি একটু একটু করে এগিয়ে আসি, পৃথিবী পরিচ্ছন্ন হতে খুব বেশি সময় লাগবে না।’

দয়ালু কিকি হার্ডি 
স্কুলের সহপাঠীদের খাওয়ার টাকা নেই। এটা জানার পর যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার কিকি হার্ডির ভীষণ মন খারাপ হয়েছিল। তার বয়স মাত্র পাঁচ, পড়ে কিন্ডারগার্টেনে। সে জানতে পারে, অনেক শিশু টাকার অভাবে না খেয়ে থাকে, আবার কেউ কেউ খাওয়ার জন্য অনেক টাকা দেনা করে ফেলে। সেই দেনার পরিমাণ মাসে প্রায় ৬শ মার্কিন ডলার।

ঋণগ্রস্ত এই সহপাঠীদের জন্য কিকি ভিন্ন উপায়ে টাকা সংগ্রহ শুরু করে। বিস্কুট, গরম গরম কোকোসহ নানা রকম জুস বিক্রি করে সে তহবিল সংগ্রহ করে, যার নামে দেয় কিকিস কাইন্ডনেস প্রজেক্ট। এই প্রকল্পের মাধ্যমে শুরুতেই কিকি সংগ্রহ করে ফেলে ৭ হাজার ডলার, যার মাধ্যমে শুধু তার স্কুল নয়, পুরো জেলার শিশুদের দুপুরের খাবারের ঋণ শোধ করে দেওয়া হয়।

দয়ালু কিকি হার্ডির নাম ছড়িয়ে পড়ে সারা দেশে। এখন শুধু অন্যদের ধার শোধ করতে তহবিল সংগ্রহ নয়, বরং সচেতনতা সৃষ্টিতে কাজ করছে ছোট্ট হার্ডি। যাতে সুবিধাবঞ্চিত শিশুরা ভালোথাকা শিশুদের দ্বারা উপকৃত হয়। 

সূত্র: ইনভেস্টোপিডিয়া

জাহ্নবী