ঢাকা ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪

নির্মাণের এক মাসেই ভেঙে যাচ্ছে মহিষেরচরের সড়ক

প্রকাশ: ১৫ মে ২০২৪, ১০:১৯ এএম
নির্মাণের এক মাসেই ভেঙে যাচ্ছে মহিষেরচরের সড়ক
ছবি : খবরের কাগজ

মাদারীপুর সদরের মহিষেরচর এলাকায় ২ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত সড়কে এক মাসের মধ্যে ভাঙন দেখা দিয়েছে। এজিং (সড়কের কিনারা) ভেঙে হুমকির মুখে পড়েছে নতুন সাড়ে তিন কিলোমিটার সড়ক। এতে নষ্ট হচ্ছে রাষ্ট্রীয় সম্পদ। স্থানীয়রা বলছেন, নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কাজ করায় এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। ঠিকাদার এ বিষয়ে মুখ খুলতে রাজি না হলেও সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কর্মকর্তা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) মাদারীপুর সদর উপজেলা অফিস সূত্রে জানা গেছে, এক মাস আগে এডিপির অর্থায়নে উপজেলার মহিষেরচর লঞ্চঘাট থেকে জাফরাবাদ পর্যন্ত সাড়ে তিন কিলোমিটার সড়ক নির্মাণ করা হয়। সড়কের নির্মাণ ব্যয় ধরা হয় প্রায় ২ কোটি টাকা।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, সড়কের নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার এক মাসের মধ্যে বিভিন্ন স্থানে ফাটল দেখা দিয়েছে। সামান্য বৃষ্টিতেই কোনো কোনো জায়গার কার্পেটিং উঠে এজিং ভেঙে গেছে। এ ছাড়া নিম্নমানের ইট, খোয়া, পাথর, বালু ব্যবহার করার কারণে বিভিন্ন স্থানে সড়ক উঁচু নিচু হয়ে দেবে গেছে। এ ছাড়া পাকা সড়কের দুই পাশে কমপক্ষে তিন ফুট মাটি থাকার কথা। অথচ অধিকাংশ সড়কেই এই নিয়ম মানা হয়নি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক বাসিন্দা বলেন, ‘কয়েকদিন আগে এই রাস্তা দিয়ে একটি ট্রাক গিয়েছিল। ওই গাড়ির চাপেই সড়কের বিভিন্ন অংশ ভেঙে গেছে। নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কাজ করার কারণেই নির্মাণের এক মাসের মধ্যেই সড়ক ভাঙতে শুরু করেছে।’

স্থানীয় বাসিন্দা রাকিবুল ইসলাম বলেন, ‘এত অল্প সময়ের মধ্যে রাস্তা ভেঙে যাওয়ার বিষয়টি দুঃখজনক। কর্তৃপক্ষের উচিত তদন্ত করে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া। এভাবে রাষ্ট্রীয় সম্পদ নষ্ট করা ঠিক নয়।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক ব্যবসায়ী বলেন, ‘সড়ক নির্মাণের কয়েকদিন পরই বিভিন্ন জায়গায় গর্ত হয়েছে, দেবে গেছে। অনেক স্থান উঁচু নিচু। কাজ করার সময় ঠিকাদার সঠিক নিয়মে ইট বালু ব্যবহার করেননি। পুরনো ইট তুলে তার ওপরে বিটুমিন (পিচ) ঢেলে রোলার দিয়ে কার্পেটিং করার কারণেই রাস্তার এই অবস্থা হয়েছে।’

যদিও বিষয়টি নিয়ে ঠিকাদার মো. খোকন কথা বলতে রাজি হননি। তিনি উপজেলা ইঞ্জিনিয়ারের সঙ্গে যোগাযোগ বলতে বলেন। এলজিইডির মাদারীপুর সদর উপজেলা প্রকৌশলী মনোয়ার হোসেন জানান, যেসব জায়গায় ভেঙে গেছে, সেখানে মাটি ফেলে মেরামত করা হবে। নিম্নমানের কাজের অভিযোগ তিনি অস্বীকার করেন।

ভালুকায় সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন স্বামী-স্ত্রী

প্রকাশ: ২৫ মে ২০২৪, ০১:২৭ এএম
ভালুকায় সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন স্বামী-স্ত্রী

ময়মনসিংহের ভালুকায় অজ্ঞাতনামা গাড়িচাপায় স্বামী-স্ত্রী নিহত হয়েছেন। শুক্রবার (২৪ মে) রাত সাড়ে ১১টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

বিষয়টি খবরের কাগজকে নিশ্চিত করে ভালুকা হাইওয়ে থানার সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) মো. কামরুজ্জামান বলেন, রাতে অজ্ঞাতনামা গাড়িচাপায় পঞ্চাশোর্ধ্ব এক নারী ও এক পুরুষের লাশ সড়কে পাশে পড়ে ছিল। পরে স্থানীয়রা দেখতে পেয়ে থানায় খবর দিলে ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ দুটি উদ্ধার করা হয়। এ সময় স্থানীয়রা নিশ্চিত করেছেন তারা স্বামী-স্ত্রী। তারা ভালুকায় মেয়ের বাড়িতে বেড়াতে এসে দুর্ঘটনার শিকার হন।

বান্দরবান সীমান্তে মাইন বিস্ফোরণে আহত ২ বাংলাদেশি

প্রকাশ: ২৪ মে ২০২৪, ১১:৩৩ পিএম
বান্দরবান সীমান্তে মাইন বিস্ফোরণে আহত ২ বাংলাদেশি
ছবি : খবরের কাগজ

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম সীমান্তে মাইন বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন দুইজন। তারা মূলত বিদ্রোহী গোষ্ঠীর সদস্যদের সবজি দিতে গিয়েছিলেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। 

শুক্রবার (২৪ মে) রাত আটটার দিকে ঘুমধুমের ৩৪-৩৫ নাম্বার পিলারের মাঝামাঝি স্থানে এ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। 

বিস্ফোরণে আহতরা হলেন- ঘুমধুম ইউনিয়নের ফকিরাঘোনা এলাকার হাবিবুর রহমানের ছেলে মনির আহমেদ ওরফে সোনা মিয়া (২৫) ও একই এলাকার আবুল হোসেনের ছেলে আবু তাহের (৩০)। 

ঘুমধুম ইউনিয়নের গ্রাম পুলিশের প্রধান রঞ্জিত কুমার খবরের কাগজকে বলেন, রাত আটটার দিকে তারা ওইপারে গিয়েছিলো সবজি নিয়ে। সেখান থেকে ফিরছিলো। পথিমধ্যে মাইন বিস্ফোরণ হয়। এতে দুইজনই পড়ে যান। আহত অবস্থায় দুইজনকে উদ্ধার করে প্রথমে কুতুপালং এমএসএফ হাসপাতাল ও উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

তিনি আরও জানান, মনিরের ডান পায়ের ঘুড়ালি থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। এছাড়াও তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আর আবু তাহেরের শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাত প্রাপ্ত হয়েছেন। 

ঘুমধুম ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোহাম্মদ আলম জানান, মাইন বিস্ফোরণে দুইজন আহত হয়েছে। তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। কেনো তারা সীমান্তে গেছে তা তিনি নিশ্চিত করে বলতে পারেন নি।

মুহিববুল্লাহ মুহিব/এমএ/

সিলেটে রেকর্ড ছাড়াচ্ছে তাপমাত্রা, আজ ৩৭.৭ ডিগ্রি

প্রকাশ: ২৪ মে ২০২৪, ০৮:০৮ পিএম
সিলেটে রেকর্ড ছাড়াচ্ছে তাপমাত্রা, আজ ৩৭.৭ ডিগ্রি
ছবি : খবরের কাগজ

সিলেটজুড়ে বইছে মৃদু তাপপ্রবাহ। প্রতিদিনই রেকর্ড ছাড়াচ্ছে সিলেটের তাপমাত্রা। শুক্রবার (২৪ মে) দুপুর ৩টায় সিলেটের তাপমাত্রা ছিলো ৩৭.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা চলতি মৌসুমের সর্বোচ্চ। এই তাপমাত্রা সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত চলমান ছিল।

সিলেট আবহাওয়া অফিসের কর্মকর্তা শাহ মোহাম্মদ সজিব হোসেন এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে গতকাল ছিল ৩৭.৫ ডিগ্রি তাপমাত্রা। মাত্র ২৪ ঘন্টার ব্যবধানে ভেঙে যায় তাপমাত্রার এই রেকর্ড। এরআগে গত সপ্তাহে ১৬ মে সিলেটে ছিলো সর্বোচ্চ ৩৭ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা। ওই তাপমাত্রাকে ধরে নেওয়া হয়েছিলো বছরের সর্বোচ্চ। কিন্তু শুক্রবার মাত্র আট দিনের মাথায় গত সপ্তাহের রেকর্ড ভাঙে।

সপ্তাহখানেক ধরে সিলেটের উপর দিয়েও মৃদু থেকে মাঝারি ধরণের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। এই তাপপ্রবাহের কারণে জনজীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। গরমের তীব্রতায় ছোট-বড় সবার হাঁসফাঁস অবস্থা। বিশেষ করে বৃদ্ধ, শিশু ও শ্রমজীবী মানুষজন এই গরমে চরম কষ্টে আছেন। প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হচ্ছেন না অনেকে। তবে জীবিকার তাগিদে প্রচণ্ড গরমের মধ্যে কেউ মাথায় ছাতা দিয়ে বের হচ্ছেন। তারপরও হিট স্ট্রোকসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষজন।

সিলেট আবহাওয়া অধিদপ্তরের ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, আকাশ আংশিক মেঘলা থেকে অস্থায়ী মেঘলা থাকবে। অস্থায়ী দমকা/ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি/বজ্রবৃষ্টি হতে পারে সিলেটের এক বা দুই জায়গায়। সিলেটে দিন ও রাতের তাপমাত্রা সামান্য বৃদ্ধি পেতে পারে। আর্দ্রতা বৃদ্ধির কারণে অস্বস্তি বাড়তে পারে। সিলেটের উপর দিয়ে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে।

এ ব্যাপারে সিলেট আবহাওয়া অফিসের কর্মকর্তা শাহ মোহাম্মদ সজিব হোসেন বলেন, সিলেটের উপর দিয়ে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে। আজকের তাপমাত্রা গতকালের রেকর্ড ছাড়িয়েছে। আজ বিকাল ছয়টায় রেকর্ডকৃত তাপমাত্রা ৩৭.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা এই বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। এরআগে বিকাল তিনটায় তাপমাত্রা ছিল ৩৭.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

শাকিলা ববি/এমএ/

আমদানি নিষিদ্ধ ঘনচিনি খালাস, অভিযোগের সত্যতা পেয়েছে দুদক

প্রকাশ: ২৪ মে ২০২৪, ০৭:৪২ পিএম
আমদানি নিষিদ্ধ ঘনচিনি খালাস, অভিযোগের সত্যতা পেয়েছে দুদক
ছবি : খবরের কাগজ

মিথ্যা ঘোষণায় আনা ১৪ হাজার কেজি আমদানি নিষিদ্ধ ঘনচিনি খালাস দেওয়ার অভিযোগ চট্টগ্রাম কাস্টমের বিরুদ্ধে। অভিযোগের ভিত্তিতে সেখানে অভিযান চালায় দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) টিম। রেকর্ডপত্র যাচাই শেষে সত্যতাও মিলেছে অভিযোগের। 

শুক্রবার (২৪ মে) দুদকের উপপরিচালক ও জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. আকতারুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। 

সূত্র জানায়, আমদানি নিষিদ্ধ হওয়ার পরেও মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর ঘনচিনি (১৪ হাজার কেজি)  ছাড় দেওয়ার অভিযোগ পায় দুদক। ওই অভিযোগের ভিত্তিতে গত বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম কাস্টমে অভিযান চালায় দুদকের একটি টিম। ওই অভিযানে নেতৃত্ব দেন দুদক চট্টগ্রাম সমন্বিত জেলা কার্যালয়-১-এর সহকারী পরিচালক মো. এমরান। এ সময় দুদক টিম চট্টগ্রাম কাস্টমসের এআইআর শাখা থেকে অভিযোগসংক্রান্ত সব রেকর্ডপত্র সংগ্রহ করে। রেকর্ডপত্র পর্যালোচনা শেষে অভিযোগের সত্যতা পায় দুদক। 

দুদকের উপপরিচালক ও জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. আকতারুল ইসলাম জানান, প্রাথমিক তদন্ত ও রেকর্ডপত্র পর্যালোচনা করে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে। তাই চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস থেকে প্রাপ্ত তথ্যাবলি বিস্তারিতভাবে যাচাই করে পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন কমিশনে দাখিল করা হবে।

রাজশাহীতে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত যুবকের মৃত্যু

প্রকাশ: ২৪ মে ২০২৪, ০৭:১৭ পিএম
রাজশাহীতে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত যুবকের মৃত্যু
ইলিয়াস আহমেদ। ছবি : সংগৃহীত

রাজশাহীর বাগমারায় জমি নিয়ে পূর্ব শত্রুতার জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত ইলিয়াস আহমেদের (৩০) মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার (২৪ মে) ভোর সাড়ে ৫টার দিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

নিহত ইলিয়াস আহমেদ উপজেলার গণিপুর ইউনিয়নের মাঝি গ্রামের মৃত সাজেদুর রহমানের বড় ছেলে। গত ১৪ মে বিকেলে উপজেলার আমতলী মোড়ে মোটরসাইকেল রোধ করে তার উপর হামলা চালায় প্রতিপক্ষের লোকজন। এতে গুরুতর আহতাবস্থায় তাকে রামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে টানা ১০ দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর তার মৃত্যু হয়।  

নিহতের স্বজনরা বলেন, জমি নিয়ে পূর্বশত্রুতার জেরে ইলিয়াসকে হত্যা করা হয়েছে। গত ১৪ মে বিকেলে আমতলী বাজারে যাওয়ার উদ্দেশে বের হলে মোটরসাইকেল রোধ করে তাকে এলোপাতাড়ি দেশীয় অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে গুরুতর জখম করা হয়। এই হামলার নেতৃত্ব দেন তার ফুফা শ্বশুর আইনুল হকসহ আরও ৭-৮ জন। এরপর ঘটনাস্থল থেকে ইলিয়াসকে উদ্ধার করে রামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ১০ দিন চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় শুক্রবার ভোরে মারা যান তিনি।

এ বিষয়ে বাগমারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) সোহেব খান বলেন, প্রায় ১০ দিন আগে বাগমারায় একটি মারামারির ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়। এই ঘটনায় ছয় আসামির মধ্যে একজনকে গ্রেপ্তার করে জেলা হাজতে পাঠানো হয়েছে। বাকিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

এনায়েত করিম/এমএ/