ঢাকা ৬ আষাঢ় ১৪৩১, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪

স্বতন্ত্র লড়বেন লেবার নেতা করবিন

প্রকাশ: ২৫ মে ২০২৪, ০৮:৪৫ এএম
আপডেট: ২৫ মে ২০২৪, ০৮:৪৫ এএম
স্বতন্ত্র লড়বেন লেবার নেতা করবিন
যুক্তরাজ্যের লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন

যুক্তরাজ্যের লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন আগামী ৪ জুলাইয়ের জাতীয় নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে দাঁড়াবেন। বিষয়টি লেবার পার্টিকে কিছুটা চাপের মুখে ফেলবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

মূলত উত্তর লন্ডনের আসন নিয়েই প্রতিকূলতার মুখে পড়তে হতে পারে দলটিকে। ৪০ বছরেরও বেশি সময় ধরে উত্তর লন্ডনের ওই আসনে প্রতিনিধিত্ব করে আসছেন তিনি। গতকাল শুক্রবার হঠাৎ তিনি জানান, এবার ওই আসন থেকে স্বতন্ত্র দাঁড়াবেন ‘সমতা, গণতন্ত্র ও শান্তির পক্ষে আওয়াজ তুলতে।’  

আল-জাজিরার খবর বলছে, লেবার পার্টির কর্মকর্তারা ওই আসনের প্রার্থীর তালিকায় ৭৪ বছর বয়সী করবিনের নাম রাখেনি। আর এ কারণেই একা লড়ার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। 

করবিন এক ভিডিও বার্তায় বলেন, ‘আমি চাই আমাদের রাজনৈতিক দলগুলো গণতান্ত্রিক হোক, কিন্তু প্রার্থী বাছাইয়ের ক্ষেত্রে ইসলিংটন নর্থ লেবারের সদস্যদের অধিকার প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে। এ কারণেই আমাদের এর বিরুদ্ধে দাঁড়াতে হবে। আমাদের দাঁড়াতে হবে এবং বলতে হবে, এসব আমরা আর সহ্য করব না।’ সূত্র: আল-জাজিরা 

যুক্তরাজ্যের নির্বাচন: জরিপে এগিয়ে লেবার, অভিবাসন চাপে সুনাক

প্রকাশ: ২০ জুন ২০২৪, ১২:৩৩ পিএম
আপডেট: ২০ জুন ২০২৪, ১২:৩৩ পিএম
যুক্তরাজ্যের নির্বাচন: জরিপে এগিয়ে লেবার, অভিবাসন চাপে সুনাক

যুক্তরাজ্যের নির্বাচনের আর বেশি সময় বাকি নেই। সব ঠিক থাকলে আগামী ৪ জুলাই দেশটিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। মতামত জরিপের তথ্য বলছে, দেশটির বিরোধী দল লেবার পার্টি নির্বাচনি দৌড়ে এগিয়ে রয়েছে। অন্যদিকে অভিবাসন ইস্যুতে চাপের মুখে আছেন ঋষি সুনাকের ক্ষমতাসীন দল কনজারভেটিভ পার্টি।

নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রচারে ব্যস্ত দেশটির রাজনৈতিক দলের ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। প্রায় প্রতিটি ইস্যু নিয়েই হচ্ছে আলোচনা-সমালোচনা। যুক্তরাজ্য ৬৫০টি নির্বাচনি এলাকায় বিভক্ত। প্রত্যেকটি এলাকা থেকে স্থানীয় বাসিন্দারা একজন করে আইনপ্রণেতা নির্বাচিত করবেন।

ব্রিটিশ গণমাধ্যমগুলোর প্রতিবেদন বলছে, নির্বাচনের এ আবহে ঋষি সুনাকের জন্য চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে দুটি বিষয়। এর একটি ক্রমাগত বাড়তে থাকা অভিবাসীর সংখ্যা। আর দ্বিতীয়টি হলো- মূল্যস্ফীতি।

যুক্তরাজ্যে মূল্যস্ফীতি গতকাল বুধবার সকালে দুই পয়েন্ট কমেছে। পলিটিকোর ইউরোপীয় সংস্করণের বরাতে এ তথ্য জানা গেছে। বিষয়টি ঋষি সুনাককে নির্বাচনি মৌসুমে কিছুটা স্বস্তি দেবে বলেই প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে পলিটিকো।

তবে একই কথা অভিবাসন ইস্যুর ক্ষেত্রে জোরালোভাবে খাটছে না। কারণ যুক্তরাজ্যে অভিবাসী নৌকা এসে হাজির হওয়ার সংখ্যা ১৯ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ পর্যায়ে গিয়ে ঠেকেছে। গত মঙ্গলবারও ছোট ছোট নৌকা দিয়ে আট শরও বেশি অভিবাসন প্রত্যাশী ব্রিটেনে পা রেখেছেন। একক দিনের হিসাবে এ সংখ্যা ২০২২ সালের নভেম্বরের পর সর্বোচ্চ বলেই জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। এর আগে ২০২২ সালের নভেম্বরে এক দিনে ৯৪৭ জন অভিবাসী এসে হাজির হয়েছিলেন।

রয়টার্সের প্রতিবেদন আরও বলছে, এত অভিবাসী আসার বিষয়টি ৪ জুলাইয়ের নির্বাচনের আগে সুনাকের ওপর চাপ তৈরি করবে। যুক্তরাজ্যের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তথ্যউপাত্ত বলছে, চলতি বছরে এ পর্যন্ত ১২ হাজার ৩০০-এর বেশি অভিবাসী এসেছেন যুক্তরাজ্যে।

এই অভিবাসী ইস্যু প্রভাব ফেলেছে মতামত জরিপে। সুনাকের কনজারভেটিভ পার্টি মতামত জরিপে লেবার পার্টির চেয়ে অনেকটাই পিছিয়ে রয়েছে। অনেক ভোটারের জন্যই অভিবাসনের ইস্যুটি অনেক বড় একটি উদ্বেগের বিষয়। তারা চান এ ধরনের নৌকা আসা বন্ধ হোক। এ ছাড়াও সুনাক ক্ষমতায় আসার আগে যে কয়টি বড় মাপের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, তার একটি ছিল- অবৈধ অভিবাসন কমানো। সেটি তিনি এখনো পূরণ করতে পারেননি।

সুনাকের অভিবাসন নীতির একটি পরিকল্পনা হলো- অভিবাসন প্রত্যাশীদের যুক্তরাজ্য থেকে রোয়ান্ডায় পাঠিয়ে দেওয়া এবং ফ্রান্স থেকে ছোট নৌকায় করে অভিবাসী আসার ঢল ঠেকানো। তবে এবার নির্ধারিত সময়ের অনেক আগে নির্বাচন করার ঘোষণা দিয়েছেন সুনাক। ফলে ওই পরিকল্পনা এখনো বাস্তবায়িত হয়নি।

মতামত জরিপে বিরোধী দল লেবার পার্টি প্রায় ২০ পয়েন্ট এগিয়ে রয়েছে। দলটি বলছে, ক্ষমতায় আসতে পারলে রোয়ান্ডা নীতি বাতিল করবে তারা। এর বদলে তারা পুলিশ, দেশীয় গোয়েন্দা বিভাগ ও আইনজীবীদের নিয়ে ‘বর্ডার সিকিউরিটি কমান্ড’ গড়ে তুলবে। এই বর্ডার সিকিউরিটি কমান্ড মানবপাচার রোধে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থার সঙ্গে কাজ করবে। সূত্র: পলিটিকো, বিবিসি, রয়টার্স

দিল্লিতে গরমে বেড়েছে বিদ্যুতের চাহিদা

প্রকাশ: ২০ জুন ২০২৪, ০৯:৩৬ এএম
আপডেট: ২০ জুন ২০২৪, ০৯:৩৬ এএম
দিল্লিতে গরমে বেড়েছে বিদ্যুতের চাহিদা
ছবি : সংগৃহীত

ভারতের রাজধানী দিল্লিতে দীর্ঘ গরমে বেড়েছে বিদ্যুতের চাহিদা। চলতি সপ্তাহে এ সংক্রান্ত নতুন রেকর্ড হয়েছে। ভারতীয় গণমাধ্যমের প্রতিবেদন বলেছে, এ সপ্তাহে দিল্লিতে বিদ্যুতের চাহিদা ছিল ৮ হাজার ৬৪৭ মেগাওয়াট।

কয়েক সপ্তাহ ধরেই দিল্লি ও উত্তর ভারতের বিভিন্ন অংশে তাপমাত্রার পারদ ৪৪ থেকে ৪৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ঘরে ছিল। এতে করে বেড়ে গেছে এসিসহ নানা ধরনের শীতলীকরণ যন্ত্রের ব্যবহার, যা আখেরে গিয়ে প্রভাব ফেলেছে বিদ্যুতে। চাহিদা অনুযায়ী সরবরাহ না থাকায় দেখা দিয়েছে বিদ্যুৎ বিভ্রাটও।

বিদ্যুৎ খরচে দিল্লি রেকর্ড করেছে গত মঙ্গলবার। সেদিন ওই শহরে সর্বোচ্চ বিদ্যুৎ খরচ হয়েছে ৮৯ হাজার মেগাওয়াট। বিবিসির খবর বলছে, চলতি মৌসুমে দিল্লির বিদ্যুৎ চাহিদার রেকর্ড বেশ কয়েকবার ভেঙেছে। গত সোমবার দিল্লির বিমানবন্দরও কয়েক মিনিটের জন্য বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কবলে পড়েছিল। সে সময় বেশ কয়েকটি টার্মিনালে নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। 

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ছবিতে দেখা গেছে যাত্রীরা দীর্ঘ সারিতে অপেক্ষা করছে। অন্যদিকে চেক-ইন কাউন্টারে বিমানবন্দর কর্মীদের কম্পিউটার চালু হওয়ার জন্য অপেক্ষা করতে দেখা গেছে। শুধু বিদ্যুৎ নয়, তীব্র পানি সংকটের সঙ্গেও লড়ছে দিল্লি। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে মানুষকে পানির জন্য দীর্ঘ সারিতে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করতে দেখা গেছে। সূত্র: বিবিসি

গাজায় ইসরায়েলি হামলা চলছে, উত্তেজনা লেবাননের সঙ্গেও

প্রকাশ: ২০ জুন ২০২৪, ০৮:৪১ এএম
আপডেট: ২০ জুন ২০২৪, ০৮:৪১ এএম
গাজায় ইসরায়েলি হামলা চলছে, উত্তেজনা লেবাননের সঙ্গেও

গাজায় হামলা অব্যাহত রেখেছে ইসরায়েলি বাহিনী। তাদের হামলায় নতুন করে অন্তত সাতজন নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া ইসরায়েলি বাহিনীর গোলাবর্ষণের পর গাজার আল-মাওয়ানি শরণার্থী শিবিরে আগুন ধরে যায়।

ইসরায়েলি বাহিনীর বিরুদ্ধে গাজার কর্মকর্তারা স্বাস্থ্যকর্মীদের নির্যাতনের অভিযোগ তুলেছেন। ইসরায়েলের হাতে গাজার ৩১০ জন স্বাস্থ্যকর্মী বন্দি আছে বলেও জানিয়েছেন তারা। গাজার কর্মকর্তারা ওই নির্যাতিত বন্দিদের মুক্তি দাবি করেছেন। পাশাপাশি ওই বন্দিদের ভাগ্যে কী ঘটেছে, তা জানার জন্য আন্তর্জাতিক তদন্তও দাবি করেছেন।

গাজায় সহায়তার প্রবাহও কমে গেছে। খোদ জাতিসংঘ জানিয়েছে এ তথ্য। তারা বলছে, সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে সহায়তা প্রবাহের অবনতি হয়েছে নাটকীয়ভাবে। এতে করে গাজাবাসীর মধ্যে আতঙ্ক ও ক্ষুধা দেখা দিয়েছে।

গত বছরের ৭ অক্টোবর থেকে এ পর্যন্ত ইসরায়েলি গোলাবর্ষণে অন্তত ৩৭ হাজার ৩৭২ জন নিহত হয়েছেন। অন্যদিকে আহত হয়েছেন ৮৫ হাজার ৪৫২ জন। ইসরায়েলি হামলায় নিহতদের মধ্যে বেশির ভাগই বেসামরিক।

এদিকে লেবাননের দিকেও উত্তেজনা ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে। ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী দেশটিতে অভিযান পরিচালনা করতে চাচ্ছে। এ রকম এক অভিযানের পরিকল্পনায় ইসরায়েলি কর্মকর্তারা অনুমোদন দিয়েছেন বলেও জানা গেছে। এ ছাড়া লেবাননের বৈরুতে সফর করেছেন মার্কিন দূত অ্যামস হচস্টেইন।

হিজবুল্লাহ সূত্র জানিয়েছে, হচস্টেইন তাদের কাছে ইসরায়েলের স্পষ্ট বার্তা পৌঁছে দিয়েছেন। আর তা হলো, ইসরায়েল সত্যিকার অর্থেই যুদ্ধের পরিসীমা বৃদ্ধির কথা ভাবছে এবং সময় দ্রুত ফুরিয়ে আসছে।

যুক্তরাষ্ট্র সরাসরি হিজবুল্লাহর সঙ্গে কথা বলেনি। মার্কিন দূত আলাপ করেছেন লেবাননের পার্লামেন্টের স্পিকার নাবিহ বেরির সঙ্গে। তিনি হিজবুল্লাহর ঘনিষ্ঠ মিত্র হিসেবে পরিচিত। বেরি মার্কিন দূতের বার্তা পৌঁছে দিয়েছেন লেবাননের সশস্ত্র গোষ্ঠীর কাছে।

মূলত হিজবুল্লাহর ড্রোন দিয়ে তোলা কিছু ছবি প্রকাশের প্রতিক্রিয়ায় এ বার্তা দেওয়া দেওয়া হয়েছে। সেসব ছবিতে হাইফা এলাকায় অবস্থিত ইসরায়েলের বেশকিছু স্পর্শকাতর সামরিক ও বেসামরিক সাইট দেখা গেছে। ইসরায়েল কোনো অভিযান চালালে হিজবুল্লাহও যে পাল্টা আঘাত হানতে সক্ষম, সে বার্তাই যেন তারা দিয়েছে ওই ছবিগুলোর মধ্য দিয়ে। সূত্র: আল-জাজিরা

যুক্তরাষ্ট্রে বৈধতা পাবেন ৫ লাখ অবৈধ অভিবাসী

প্রকাশ: ২০ জুন ২০২৪, ০৮:১৭ এএম
আপডেট: ২০ জুন ২০২৪, ০৮:১৭ এএম
যুক্তরাষ্ট্রে বৈধতা পাবেন ৫ লাখ অবৈধ অভিবাসী
প্রতীকী ছবি

নির্বাচনকে সামনে রেখে পাঁচ লাখ অবৈধ অভিবাসীকে বৈধতা দিতে যাচ্ছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। অবৈধ অভিবাসী স্বামী-স্ত্রীকে বৈধতার লক্ষ্যে আবেদন করার জন্য একটি ‘প্যারোল ইন প্লেস’ পদক্ষেপের কথাও বিবেচনা করছে হোয়াইট হাউস।

হোয়াইট হাউসের বরাতে জানা গেছে, যারা অন্তত ১০ বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছেন, তাদের জন্য ওই প্রক্রিয়া প্রযোজ্য হবে। একই সঙ্গে বৈধভাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কাজ করার অনুমতি পাবেন তারা। 

তবে কীভাবে প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হবে তা এখনো স্পষ্ট নয়।

হোয়াইট হাউস গত মঙ্গলবার জানায়, বাইডেন প্রশাসন আগামী মাসগুলোতে কিছু স্বামী-স্ত্রীকে প্রথমে স্থায়ী বসবাস এবং পরে নাগরিকত্বের জন্য আবেদনের অনুমতি দেবে। 

যুক্তরাষ্ট্রের প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মতে, এই সংখ্যা পাঁচ লাখের মতো হতে পারে। এ ছাড়া ২১ বছরের কম বয়সী ৫০ হাজার যুবককেও বৈধতা দেওয়া হবে। সূত্র: এএফপি

পিয়ংইয়ং সফরে পুতিন

প্রকাশ: ১৯ জুন ২০২৪, ০৮:৫৭ এএম
আপডেট: ১৯ জুন ২০২৪, ০৯:১৩ এএম
পিয়ংইয়ং সফরে পুতিন
রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে স্বাগত জানাচ্ছেন উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন। ছবি: কেসিএনএ

অবশেষে উত্তর কোরিয়ার রাজধানী পিয়ংইয়ংয়ে অবতরণ করেছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। আনুষ্ঠানিকভাবে ২৪ বছর পর তিনি উত্তর কোরিয়া সফর করছেন।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার (১৮ জুন) রাতে তিনটার দিকে পুতিনকে বহনকারী বিশেষ বিমানটি পিয়ংইয়ংয়ে অবতরণ করে। এ সময় তাকে বিমানবন্দরের স্বাগত জানান উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন। রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদসংস্থা তাস এ খবর জানিয়েছে।

এই সফরে দুই নেতা রাশিয়া ও উত্তর কোরিয়ার মধ্যে শক্ত বন্ধনের বহিঃপ্রকাশ।  

পুতিনের নীতি উপদেষ্টা ইউরি উশাকভও ইঙ্গিত দিয়েছেন যে দুই দেশ একটি নিরাপত্তা অংশীদারিত্ব স্বাক্ষর করতে পারে।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর ২০০০ সালে তিনি উত্তর কোরিয়া সফর করেছিলেন। তখন দেশটির নেতৃত্বে ছিলেন কিম জং ইল, যিনি ২০১১ সালে মারা যান। পরে তার ছেলে কিম জং উন তার স্থলাভিষিক্ত হন।

তাস জানিয়েছে, রুশ সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা পিয়ংইয়ংয়ে পুতিনের সঙ্গে সফর করছেন। এর মধ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ, প্রথম উপ-প্রধানমন্ত্রী ডেনিস মান্টুরভ, উপ-প্রধানমন্ত্রী আলেকজান্ডার নোভাক, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী আন্দ্রেই বেলোসভ, উপ প্রতিরক্ষা মন্ত্রী আলেক্সি ক্রিভোরুচকো, স্বাস্থ্যমন্ত্রী মিখাইল মুরাশকো, পরিবহন মন্ত্রণালয়ের প্রধান রোমান স্টারোভয়েট, রাশিয়ার মহাকাশ সংস্থা রোসকসমস ইউরি বোরিসভের প্রধান, রাশিয়ান রেলওয়ের প্রধান ওলেগ বেলোজারভ, রাশিয়ার সুদূর পূর্বের প্রিমোরির গভর্নর ওলেগ কোজেমিয়াকো রয়েছেন।

পুতিন উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সঙ্গে কমপক্ষে ৯ ঘন্টা কাটাবেন। স্থানীয় সময় দুপুরে আনুষ্ঠানিক স্বাগত অনুষ্ঠানের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সূচনা হবে।

তারপর বেশ কয়েকটি যৌথ নথি স্বাক্ষর ও সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এই সফর শেষ হবে।

এর আগে গত বছরের সেপ্টেম্বরে ভ্লাদিমির পুতিন এবং কিম জং উনের শেষ দেখা হয়েছিল রাশিয়ায়। তখন রাশিয়ার এই বৈঠকেই কিম রুশ নেতাকে তার সুবিধামতো সময়ে পিয়ংইয়ং সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন।

অমিয়/