ঢাকা ৬ আষাঢ় ১৪৩১, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪

কানে দ্যুতি ছড়িয়েছেন যারা

প্রকাশ: ২৬ মে ২০২৪, ০৩:৫১ পিএম
আপডেট: ২৬ মে ২০২৪, ০৩:৫৯ পিএম
কানে  দ্যুতি ছড়িয়েছেন যারা

ফ্রান্সের কান শহরে বসেছে চলচ্চিত্রের বিশ্বের অন্যতম সম্মানজনক আয়োজন ‘কান চলচ্চিত্র উৎসব’। ১৪ মে কান উৎসবের ৭৭তম আসরের পর্দা উঠে। শোবিজ দুনিয়ার অন্যতম বড় চলচ্চিত্র উৎসব এটি। ১২ দিনব্যাপী আনন্দঘন পরিবেশে তারকাদের এ মিলনমেলা চলে ২৫ মে পর্যন্ত। বরাবরের মতো এবারও লালগালিচায় আলো ছড়িয়েছেন হলিউড-বলিউডসহ বিশ্বের নামিদামি তারকারা। আজকের বিশ্ব ফ্যাশন নিয়ে লিখেছেন শাহিনুর আলম কলি 

বেলা হাদিদ
মার্কিন সুপারমডেল বেলা হাদিদ। কান চলচ্চিত্র উৎসবে একেবারে শেষে দিকে হাজির হয়েছিলেন। সেখানেই ফিলিস্তিনের স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রতীক লাল কেফিয়াহ দিয়ে বানানো পোশাক পরে নজর কেড়েছেন সবার। এভাবে বেলা নিজের শিকড় ফিলিস্তিনের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যকে সম্মান জানানোর পাশাপাশি যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশটির নাগরিকদের প্রতি সংহতি প্রকাশ করেছেন। স্বাধীনতাকামী ফিলিস্তিনিদের দূত হয়ে ফ্রান্সের কান সৈকত থেকে দ্যুতি ছড়িয়েছেন তিনি।

 

ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন
গত শুক্রবার  কান উৎসবের লালগালিচায় হাঁটেন ভারতীয় অভিনেত্রী ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন। প্রতি বছরের মতো এবারেও ঐশ্বরিয়ার পোশাকে ছিল আকর্ষণের কেন্দ্র। ভারতীয় ফ্যাশন হাউজ ফাল্গুনি-শেন পিককের কালো-সোনালি গাউনে মুগ্ধ করে ভক্ত-অনুসারীদের। গাউনের লম্বা টেইল নজরকাড়া ছিল। তবে দ্বিতীয় লুক, অর্থাৎ ১৭ মে গতানুগতিক ধারা বাইরে বেরিয়ে ভিন্ন লুকে হাজির হন  ঐশ্বরিয়া। পরেছেন সবুজ-রুপালি গাউন। যদিও পোশাকটি দেখলে মনে হবে, জন্মদিনের প্লাস্টিকের চকমকি ফিতা দিয়েই বানানো গাউনটি। তবে নাটকীয় পোশাকের লম্বা টেইল এবং সুউচ্চ হাতা বিশেষভাবে নজর কেড়েছে।

কিয়ারা আদভানি
বলিউড অভিনেত্রী কিয়ারা আদভানি প্রথমবারের মতো কান ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে গিয়েছেন। রেড সি ফিল্ম ফাউন্ডেশন উইমেন ইন সিনেমা গালায় ভারতের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করেন তিনি। কিয়ারা প্রবাল গুরুং ডিজাইন করা সাদা রঙের গাউনে নজর কাড়ে  সবার। ডিপ নেকলাইন ও হাই-স্লিটেড গাউনের মানানসই মুক্তোর লম্বা দুল ও সাদা হাই হিলে সেজেছিলেন। এক হাতে আংটি, অন্য হাতে সুন্দর কাজ করা রিস্টব্যান্ড। তাকে স্টাইল করেছেন  স্টাইলিস্ট লক্ষ্মী লেহর। গালা ডিনার ইভেন্টের জন্য কিয়ারা বেছে নিয়ে ছিলেন সিল্কের কাপড়ে তৈরি অফ শোল্ডার গোলাপি ও কালো একটি গাউন। পোশাকটির পেছনে একটি বড় বো ছিল।

হাতে পরেছিলেন কালো লেইসের গ্লাভস। গয়না হিসেবে ব্র্যান্ড বুলগারির ব্র্যান্ডের হীরার নেকপিস আর আংটি বেছে নিয়েছিলেন । চুল বেঁধে উঁচু খোঁপা করেছিলেন। একেবারেই মিনিমাল মেকআপে নিজেকে সাজিয়েছিলেন তিনি। চোখে লেন্স পরে  পিংক আইশ্যাডো, উইং আইলাইনার আর মাসকারাতে। ঠোঁটে দিয়েছিল ন্যুড পিংক লিপস্টিক।

উর্বশী রাওতেলা
উর্বশী রাওতেলা এই বলিউড অভিনেত্রী তাঁর অভিনয়ের তুলনায় ব্যতিক্রমধর্মী ফ্যাশনের জন্য বেশি আলোচনায় থাকেন। কান চলচ্চিত্র উৎসবে এবার তিনি সবার নজর কাড়লেন ডিজাইনার খালেদ এবং মারওয়ানের গোলাপি রঙের বডিকন অফ শোল্ডার গাউনটি। লাল ঝলমলে পুঁতি দিয়ে নকশা করা হয়েছে গাউনের জমিন। ডিপ নেকলাইন, থাই-হাই স্লিট, ফ্লোর ছোঁয়া ট্রেন গাউনে তাকে অসাধারণ লেগেছে। তবে সবচেয়ে বেশি নজর কেড়েছে কাঁধের সঙ্গে যুক্ত রাফেল শ্রাগটি। এর সঙ্গে তাঁর ম্যাচিং গ্লাভস, জুতাও ছিল আকর্ষণীয়। বরাবরের মতো চোখের সাজ নজর কেড়েছে।

এমা স্টোন
আসরের চতুর্থ দিনে রেড কার্পেটে আলো ছড়িয়েছেন অস্কার জয়ী অভিনেত্রী এমা স্টোন। ৩৫ বছর বয়সী এই অভিনেত্রী লুই ভিতোঁর বারগেন্ডি হল্টারনেক গাউনে হাজির হয়েছিলেন। পুরো গাউন জুড়ে সিকুইনের কাজ করা ছিল। ভি-নেকের গাউনে সঙ্গে ম্যাচিং করে বারগান্ডি স্যান্ডেল পরেছিলেন।

সেলেনা গোমেজ
জনপ্রিয় হলিউড তারকা সেলেনা গোমেজ নিজের সিনেমার প্রিমিয়ারে এসেছিলেন একদম ওল্ড হলিউড গ্ল্যামার লুকে। ফরাসি ফ্যাশন ব্র্যান্ড স্যঁ লরার সাদা-কালো অফ দ্য শোল্ডার গাউনে তাকে অসাধারণ লেগেছিল। বডি হাগিং ভেলভেট গাউনের নেকলাইনের সাদা ক্রিস-ক্রস  করা ছিল। গয়না হিসেবে বেছে  নিয়েছেন বুলগারির নেকলেস ও শ্যান্ডেলিয়ার কানের দুল। পায়ে ছিল স্যান্টনিরর স্ট্র্যাপি হিল। হালকা মেকআপ সঙ্গে মাঝসিঁথি করে পনিটেইল করে চুল বেধে ছিলেন।  

সালমা হায়েক
হলিউড অভিনেত্রী সালমা হায়েক এমিলিয়া পেরেজ’ চলচ্চিত্রের প্রিমিয়ারে হাজির হয়েছিলেন। কালো সিকুইনের স্ট্র্যাপলেস গাউনে লালগালিচায় মাতিয়েছেন তিনি। কালো গাউনের সঙ্গে বেছে নিয়েছিলেন জ্যামিতিক নকশা করা সোনালি বালা আর কালো চামড়ার ছোট পার্স। তবে বেশ নড়র কেড়েছে কালো পাথর আর হীরা দিয়ে সাজানো বড় নেকলেসটি। কমলা ও বাদামির মিশ্রণের আইশ্যাডো, গাঢ়ো লিপস্টিক,ঢেউ খেলানো কোঁকড়া চুলে অভিনেত্রীকে বেশ স্টাইলিশ লাগেছে।

কলি

 

 

 

মজাদার ‘বিফ স্টু’

প্রকাশ: ১৫ জুন ২০২৪, ০৫:৪৭ পিএম
আপডেট: ১৫ জুন ২০২৪, ০৫:৪৮ পিএম
মজাদার ‘বিফ স্টু’

গরুর মাংস দিয়ে নানা পদ তৈরি করা যায়। তেমনই এক পদ হলো বিফ স্টু। এবার ঈদে তৈরি করতে পারেন খুব সহজে। বিফ স্ট্রুর সহজ রেসিপি দিয়েছেন আনিসা আক্তার নূপুর 

উপকরণ
বিফ কিমা ১০০ গ্রাম, গরুর মাংস ২৫০ গ্রাম, গাজর কিউব ১ কাপ, আলু কিউব ১ কাপ, পেঁয়াজ ৪ টুকরো করা, পেঁয়াজ কিউব ৩ টেবিল চামচ, আদা স্লাইস ৩ টুকরো, রসুনকোয়া ৭-৮টি, গোলমরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ, ময়দা ১ টেবিল চামচ, টমেটো সস ৩ টেবিল চামচ, ওয়েস্টার সস ১ টেবিল চামচ, অরিগানো আধা চা চামচ, তেল ১ টেবিল চামচ, পানি আধা লিটার, লবণ স্বাদমতো।

প্রণালি
প্রথমে একটি হাঁড়িতে পানি দিয়ে লবণ রসুন কোয়া আদা কিউব পেঁয়াজ টুকরো করা জ্বাল করে নিন। তারপর অন্য প্যানে তেল গরম করে মাংস দিয়ে নেড়েচেড়ে গোলমরিচ গুঁড়া লবণ দিয়ে মাংসের পানি বের হলে তা ঢেকে রান্না করুন পানি শুকিয়ে যাওয়া পর্যন্ত। পানি শুকিয়ে এলে আলু গাজর পেঁয়াজ দিয়ে কিছুক্ষণ কষিয়ে নিন। ভালো করে নেড়েচেড়ে মসলার পানিটা দিয়ে দিন। তারপর টমেটো সস ও ওয়েস্টার সস দিয়ে নেড়েচেড়ে ঢেকে ২০ মিনিট রান্না করুন। এরপর চুলার আঁচ লো রেখে অরিগানো দিয়ে পাঁচ মিনিট ঢেকে রেখে নামিয়ে পরিবেশন করুন।

 কলি

 

ঈদের ডেজার্ট

প্রকাশ: ১৫ জুন ২০২৪, ০৫:৪১ পিএম
আপডেট: ১৫ জুন ২০২৪, ০৫:৪৯ পিএম
ঈদের ডেজার্ট

কোরবানির ঈদে থাকে মাংসের নানা পদ। সঙ্গে  থাকে ডেজার্টের আইটেম।  এবার ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে কয়েকটি ভিন্নধর্মী ডেজার্টের রেসিপি দিয়েছে  জান্নাত আরা এ্যানি

 

জেলি কাস্টার্ড পুডিং

উপকরণ

জেলো তৈরির জন্য
পানি ৪ কাপ, স্ট্রবেরি জেলো প্যাক ২ প্যাকেট, প্লাস্টিকের ডেজার্ট কাপ ৬টি।

কাস্টার্ড তৈরির জন্য
১৫০ গ্রাম গুঁড়ো দুধ, পানি ৬০০ গ্রাম, চিনি ১/২ কাপ, ভ্যানিলা কাস্টার্ড পাউডার ৪ চামচ, পানি ১/৪ কাপ।

গারনিশিংয়ের জন্য
হুইপিং ক্রিম ১ কাপ, আইসিং সুগার ২ টেবিল চামচ, পাইপিং ব্যাগ, নজেল।

প্রণালি
একটি প্যানে ৪ কাপ পানি ফুটিয়ে নিন। চুলা বন্ধ করে জেলো মিক্স যোগ করুন, পুরোপুরি মিশে যাওয়া পর্যন্ত মিশ্রিত করুন। জেলো ডেজার্ট কাপে কাপের ১/৩ জেলো ঢালুন। জেলো জমে না যাওয়া পর্যন্ত ফ্রিজে ঠাণ্ডা করুন। গুঁড়া দুধ পানির সঙ্গে ভালো করে মিশিয়ে নিন। কাস্টার্ড পাউডার পানির সঙ্গে মেশান। একটি প্যানে দুধ জ্বাল করুন। চিনি দিন এবং ক্রমাগত নাড়ুন। তারপরে কাস্টার্ড মিশ্রণটি দিয়ে দিন এবং ঘন না হওয়া পর্যন্ত অনবরত নাড়ুন। জেলো কাপের মধ্যে গরম অবস্থায় ঢেলে দিন। ঠাণ্ডা হওয়ার জন্য ফ্রিজে রাখুন। একটি পাত্রে ক্রিম বিট করুন এবং আইসিং সুগার দিন। হুইপড টপিংয়ের সঙ্গে কাপগুলো সাজাতে আপনার পছন্দের যেকোনো টিপসহ একটি প্লাস্টিকের পাইপিং ব্যাগ নিন। কাস্টার্ড জেলোর ওপরে ক্রিম সাজিয়ে নিন। ফ্রিজে রেখে ঠাণ্ডা করুন এবং পরিবেশন করুন।

লেমন চিজ কেক

উপকরণ
ক্রিম চিজ ২৫০ গ্রাম, ক্রিম ১ টিন, সাদা জেলোটিন ১ প্যাকেট, ঘন দুধ ১ কাপ, চিনি ১ কাপ, লেমন জেলো ১ প্যাকেট, লেবুর রস ২ টেবিল চামচ, মাখন ১০০ গ্রাম, বিস্কুট গুঁড়া ১ প্যাকেট, লেবু গোল করে কাটা ৮/১০টা।

প্রণালি
প্রথমে বিস্কুট গুঁড়া আর মাখন ভালো করে মাখিয়ে কেক মোল্ডের নিচে সমানভাবে বিছিয়ে ১০ মিনিট ফ্রিজে রাখুন। এবার লেবু কাটা আর লেমন জেলো বাদে বাকি সব উপকরণ একসঙ্গে বিট করে বিস্কুটের স্তরের ওপর সমান করে ঢেলে ২০ মিনিট আবার ফ্রিজে রাখুন। তারপর আবার লেমন জেলো বানিয়ে এর ওপর ঢেলে ফ্রিজে ৪-৫ ঘণ্টা রেখে ঠাণ্ডা করে নিন। পছন্দসই সাজিয়ে পরিবেশন করতে করুন।

কলি 

 

পর্দা বিরিয়ানি

প্রকাশ: ১৫ জুন ২০২৪, ০৫:২৫ পিএম
আপডেট: ১৫ জুন ২০২৪, ০৫:৪৯ পিএম
পর্দা বিরিয়ানি

উপকরণ

ইস্ট ১ টেবিল চামচ, চিনি ১ টেবিল চামচ, লবণ ১ টেবিল চামচ, তেল ১ টেবিল চামচ, ময়দা ৩ কাপ।

প্রণালি

আধা কাপ কুসুম গরম পানি দিয়ে সব উপকরণ ভালো করে মথে ঢেকে রাখতে হবে ১৫ মিনিট। এরপর রুটির মতো বেলে বড় করে বানাতে হবে।

খাসির মাংস রান্নার উপরকণ
খাসির মাংস ১ কেজি, পেঁয়াজকুচি দেড় কাপ, ঘি ৪ টেবিল চামচ; এলাচ, দারুচিনি ৩টি করে, গোলমরিচ ৬/৭টি, লবঙ্গ ৫/৬টি, বড় এলাচ- ৪টি, আদা ও রসুন বাটা ২ টেবিল চামচ, ধনিয়ার গুঁড়া ১ টেবিল চামচ, লবণ পরিমাণমতো।

প্রণালি

 একটি পাত্রে ঘি দিয়ে পেঁয়াজ বাদামি করে ভেজে নিতে হবে। এর মধ্যে সব মসলা দিয়ে মাংসগুলোকে ভালো করে লো আঁচে ভেজে নিতে হবে। এরপর পানি দিয়ে মিডিয়াম আঁচে ঢেকে দিতে হবে। সেদ্ধ হয়ে গেলে মাংসগুলোকে তুলে পোলাওয়ের জন্য পানি দিয়ে আধা কেজি পোলাওয়ের চাল রান্না করে দমে দিতে হবে।

উপকরণ

ঘি ৩ টেবিল চামচ, পেঁয়াজকুচি ১ কাপ, বাদাম বাটা ৩ টেবিল চামচ, আদা ও রসুন বাটা ২ টেবিল চামচ, কাঁচামরিচ বাটা ২ টেবিল চামচ, লেবু ১ টেবিল চামচ, গরমমসলা গুঁড়া ১ টেবিল চামচ, লবণ পরিমাণমতো।

প্রণালি

একটি পাত্রে ঘিয়ের মধ্যে পেঁয়াজকুচি বাদামি করে ভেজে নিতে হবে। এরপর সামান্য পানি দিয়ে সব মসলা দিয়ে মাংস ভালো করে কষাতে হবে। মাংসের মধ্যে ১ কাপ পানি দিয়ে রান্না করতে হবে। পানি শুকিয়ে গেলে নামিয়ে রাখতে হবে।

এরপর রুটির মধ্যে পোলাওয়ের লেয়ার দিয়ে তার ওপর মাংসগুলো বিছিয়ে পেঁয়াজ বেরেস্তা, কাজুবাদাম, কিশমিশ ছড়িয়ে দিয়ে আবার মাংসের সঙ্গে বেরেস্তা, বাদাম, কিশমিশ ছড়িয়ে দিতে হবে। এরপর রুটির মুখ আটকিয়ে দিয়ে ডিম ব্রাশ করে ওপরে সাদা তিল ছিটিয়ে দিতে হবে। ১৮০ তাপমাত্রায় ২০ মিনিট বেক করতে হবে। তৈরি হয়ে গেলে নামিয়ে কেটে ডিজাইন করে নিয়ে গরম গরম পরিবেশন করতে হবে।

 কলি 

বাবার মলাটে আবৃত ভালোবাসা

প্রকাশ: ১৬ জুন ২০২৪, ১২:০৫ পিএম
আপডেট: ১৬ জুন ২০২৪, ১২:০৯ পিএম
বাবার মলাটে আবৃত ভালোবাসা
মডেল: অদিতি হাবিব অনন্যা ও তার বাবা হাবিবুল ইসলাম হাবিব। ছবি: শরিফ মাহমুদ

বাবা মানে তপ্ত রোদে শীতল ছায়া, কঠোর শাসনের আড়ালে স্নিগ্ধ কোমল মায়া। বাবা মানে ভরসা। বাবা, দুই অক্ষরের শব্দটি যিনি ধারণ করেন, তার কোনো নির্দিষ্ট দেশ বা গণ্ডি নেই। বাবা মানেই এমন এক ব্যক্তি, যিনি বিভিন্ন চাপ সামলিয়ে সন্তানদের আগলে রাখেন ভালোবাসায়। তার ভালোবাসাটা কিছুটা সুপ্ত। পৃথিবীর সব সন্তানের কাছেই বাবা তার আদর্শ। কখনো কঠোর, কখনো কোমল আর স্নেহ ভালোবাসায় সন্তানকে আগলে রাখেন। শুধু আদর ভালোবাসা বা শাসন নয় বরং বাবা তার দায়িত্ব এবং কর্তব্য নিয়ে তার সন্তানকে বড় করে তোলেন। নিজের শত দুঃখ কষ্ট থাকলেও সন্তানকে বুঝতে দেন না। বাবারা কখনোই নিজের কথা ভাবেন না।

সন্তানের জন্য মায়ের যেমন ভালোবাসা অফুরন্ত তেমনি বাবার ভালোবাসাও অফুরন্ত। পৃথিবীর সব সন্তানের কাছে বাবা মানে একটা আদর্শ, প্রথম হাত ধরে চলতে শেখা, আদর-শাসন আর বিশ্বস্ততার জায়গা।

বিংশ শতাব্দীর প্রথমদিক থেকে বাবা দিবস পালন শুরু হয়। ইতিহাস থেকে জানা যায়, ১৯০৮ সালে প্রথম বাবা দিবস উদযাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। যুক্তরাষ্ট্রের ওয়েস্ট ভার্জিনিয়ার ফেয়ারমন্টে ৫ জুলাই এই দিবস পালন করা হয়। মিসেস গ্রেস গোল্ডেন ক্লেটনের উদ্যোগেই মা দিবসের আদলে দিবসটি পালিত হয়। দুই বছর পর ১৯১০ সালে যুক্তরাষ্ট্রের সেনোরা স্মার্ট ডট নতুন পরিসরে বাবা দিবস পালন করে। সেনোরাকেই বাবা দিবসের উদ্যোক্তা মনে করা হয়। ১৯৬৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট লিন্ডন বি জনসন জুন মাসের তৃতীয় রবিবারকে আনুষ্ঠানিকভাবে বাবা দিবস হিসেবে নির্ধারণ করেন। ১৯৭২ সালে প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সন প্রতি বছর জাতীয়ভাবে বাবা দিবস পালনের রীতি চালু করেন।
প্রতি সন্তানের চিরন্তন ভালোবাসার প্রকাশ প্রতিদিনই ঘটে। বাবার জন্য বিশেষ দিন হিসেবে প্রতি বছর ‘বিশ্ব বাবা দিবস’ পালিত হচ্ছে। জুন মাসের তৃতীয় রবিবার প্রতি বছর বিশ্বের ১১১ দেশে পালিত হয় বাবা দিবস। পৃথিবীর সব বাবার প্রতি শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা প্রকাশের ইচ্ছা থেকেই দিবসটি পালন করা শুরু হয়েছে। তবে অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ডসহ কয়েকটি দেশ সেপ্টেম্বরের প্রথম রবিবার বাবা দিবস পালন করে থাকে।

মায়ের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক থাকে। কিন্তু বাবার সঙ্গে বন্ধুত্ব খুব কম সন্তানেরই হয়ে ওঠে। কেন এই দূরত্ব থাকবে পৃথিবীর সবচেয়ে কাছের মানুষটির সঙ্গে। বিশ্বের প্রায় সব বাবার প্রতি ভালোবাসা জানান সন্তানরা। দিনটিকে উদযাপন আর স্মরণীয় করে রাখতে অনেক সন্তানই বাবাকে দিয়ে থাকেন বিশেষ কিছু। বাবা দিবসে হতে পারে এমনই সেরা কিছু উপহার। তার পছন্দের খাবার তৈরি করে, ফুলের তোড়া, বাঁধাই করা ছবি, নোটবুক ও কলম বই, হাতঘড়ি, সুগন্ধি, হতে পারে অসাধারণ উপহার। এ ছাড়া বহুদিন দেখা হয়নি বাবার এমন সব বন্ধুকে নিয়ে আনন্দ-আড্ডার পরিকল্পনা করা যেতে পারে। চাইলে মা-বাবার জন্য তাদের পছন্দের রেস্তোরাঁয় একান্ত নৈশভোজের ব্যবস্থা, মুভি টিকিট, থিয়েটারের টিকিটের ব্যবস্থা করে সারপ্রাইজ দিতে পারেন। তাছাড়া কোনো ট্রিপও প্ল্যান করতে পারেন উপহার হিসেবে। কিছু না পারলে নিজে হাতে একটি কার্ড তৈরি করে বাবাকে দিয়ে বলি- বাবা তোমাকে খুব ভালোবাসি।

বর্তমানে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের কল্যাণে দিনটির ব্যাপকভাবে উদযাপন হয়ে থাকে। ফেসবুক, ইনস্টাগ্রামের ওয়ালগুলো ভরে যায় প্রিয় বাবার ছবিতে। যাদের বাবা বেঁচে আছেন তারা আনন্দ-উচ্ছ্বাসে ছবি আপলোড করেন। আর যাদের বাবা নেই, তারা বাবার ছবি পোস্ট করে, বাবাকে নিয়ে লিখে স্মৃতিচারণ করেন। এ ছাড়া তারকারা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বাবার সঙ্গে ভালোবাসাময় মুহূর্ত ভাগ করে নেন ভক্তদের সঙ্গে। কখনো বাবার সঙ্গে, কখনো নিজে বাবা হয়ে।

শুধু একটি দিন নয়, বছরের প্রতিদিনই বাবার প্রতি নিজের ভালোবাসা প্রকাশ করুন। শ্রদ্ধাবোধ ও ভালোবাসায় ভরিয়ে রাখুন কখনো হার না মানা মানুষটিকে। বাবা দিবসে শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা পূর্ণতা পাক, দৃঢ় হোক পরিবারের বন্ধন। পৃথিবীর সব বাবার প্রতি রইল বিনম্র শ্রদ্ধা ও ভালবাসা। শুধু একটি দিন নয়, বছরের প্রতিদিনই বাবার প্রতি নিজের ভালোবাসা প্রকাশ করুন। শ্রদ্ধাবোধ ও ভালোবাসায় ভরিয়ে রাখুন কখনো হার না মানা মানুষটিকে।

আলোচিত মডেল হান্ট 'ফেস অব বাংলাদেশ'-এর খেতাব জিতলেন জারিফ, দিল আফরোজ ও আকলিমা

প্রকাশ: ১৪ জুন ২০২৪, ০৪:২৮ পিএম
আপডেট: ১৪ জুন ২০২৪, ০৪:৩৫ পিএম
আলোচিত মডেল হান্ট 'ফেস অব বাংলাদেশ'-এর খেতাব জিতলেন জারিফ, দিল আফরোজ ও আকলিমা

বাংলাদেশের ফ্যাশনকে সর্বস্তরে ছড়িয়ে দেওয়ার লক্ষ্যে বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) শুরু হয়েছে আর্কা ফ্যাশন উইকের দ্বিতীয় আসর। প্রথমদিন দুটি আকর্ষণ ছিল ফ্যাশনপ্রেমী দর্শনার্থীদের জন্য। বিকাল ৫টায় টাঙ্গাইল বয়নকাব্য শীর্ষক প্রদর্শনীটি উদ্বোধন করা হয়। সেখানে নিজেদের সৃজনশীল সৃষ্টি তুলে ধরেন এক ঝাঁক প্রতিভাবান শিল্পী। চারু আর কারুশিল্প তো আসলে একই সূত্রে গাঁথা। জুয়েল এ রবের কিউরেশনে এখানে নিজেদের কাজ প্রদর্শন করেছেন শিল্পীরা।

এরপর আর্কা ফ্যাশন উইকের অংশ হিসেবে অনুষ্ঠিত হয় দেশের অন্যতম মডেল হান্ট ফেস অব বাংলাদেশের চুড়ান্ত পর্বের প্রতিযোগিতা। ২০২৪ সালের অক্টোবর মাসে দক্ষিণ কোরিয়ায় অনুষ্ঠেয় ফেস অফ এশিয়ায় বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করবেন জারিফ শাবাব, আলিমা আতিকা ও দিল আফরোজ হাসান। গতকাল ফেস অব বাংলাদেশের চূড়ান্ত পর্বে এরা বিজয়ী হয়েছেন।

এবারের ফেস অব বাংলাদেশের চূড়ান্ত পর্ব অনুষ্ঠিত হয়েছে আর্কা ফ্যাশন উইক ২০২৪-এর অংশ হিসেবে। উল্লেখ্য, এশিয়া মডেল ফেস্টিভাল তিনদিনের একটি অনুষ্ঠান। এখানে এশিয়ার বিভিন্ন দেশের মডেলদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হয় ফেস অব এশিয়া। এই ইভেন্ট প্রতিবছর দক্ষিণ কোরিয়ার সংস্কৃতি, ক্রীড়া ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। এই বৈশ্বিক সংস্কৃতি উৎসব এশিয়ার পপ সংস্কৃতি, শিল্প ও এশিয়ার মডেল, ফ্যাশন আর বিউটি ইন্ডাস্ট্রিকে এশিয়াব্যাপী প্রসারে বিশেষ ভূমিকা রাখার পাশাপাশি এশিয়ার মডেল ও শিল্পীদের বৈশ্বিক ব্র্যান্ডের সঙ্গে পরিচিত করিয়ে দেয়। ফেস অফ বাংলাদেশ হল দক্ষিণ কোরিয়ায় এশিয়া মডেল ফেস্টিভালের ফেস অব এশিয়ার জাতীয় প্রতিযোগিতা।

এটি এমন একটি মডেলিং প্রতিযোগিতা যা বাংলাদেশের সৌন্দর্য, সংস্কৃতি এবং মূল্যবোধের প্রতিনিধিত্বকারী ব্যক্তিদের সনাক্ত করতে অনুষ্ঠিত হয়। এর লক্ষ্য বাংলাদেশী মডেলদের বৈচিত্র্য এবং প্রতিভা প্রদর্শন করা এবং তাঁদের মডেলিং ও বিনোদন শিল্পে এগিয়ে যাবার জন্য একটি প্ল্যাটফর্ম সরবরাহ করা। এই বছর ফেস অফ বাংলাদেশ-এর জন্য আমাদের ৭ জন মেয়ে এবং ৮ জন ছেলে প্রতিযোগী অংশ নিয়েছে।

এর আগে বিকেলে টাঙ্গাইল বয়নকাব্য শীর্ষক প্রদর্শনীটি উদ্বোধন করা হবে। এখানে নিজেদের সৃজনশীল সৃষ্টি তুলে ধরবেন এক ঝাঁক প্রতিভাবান শিল্পী। চারু আর কারুশিল্প তো আসলে একই সূত্রে গাঁথা। জুয়েল এ রবের কিউরেশনে এখানে নিজেদের কাজ প্রদর্শন করবেন শিল্পীরা।

এই প্রতিযোগিতায় বিচারকের দায়িত্ব পালন করেন আটজন বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব, যারা নিজ নিজ ক্ষেত্রে স্বনামধন্য। তাঁরা হলেন উদ্যোক্তা, সৌন্দর্য বিশেষজ্ঞ এবং পারসোনার সিইও কানিজ আলমাস খান, হাল ফ্যাশনের পরামর্শক এবং ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রি ইনসাইডার ও হেরিটেজ টেক্সটাইল এক্সপার্ট সাইফুর রহমান, সাবেক মডেল এবং বাংলালিংকের ব্র্যান্ডস অ্যান্ড কমিউনিকেশন ডিরেক্টর উরফি আহমেদ, এশিয়া মডেল ফেস্টিভ্যালের ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন ডিরেক্টর রাউলেন লি, চিত্রশিল্পী ও ফ্যাশন ডিজাইনার কুহু প্লামন্ডন,  জুরহেম-এর ক্রিয়েটিভ পরিচালক মেহরুজ মুনির, আর্কা স্টুডিও এবং আর্কা ফ্যাশন উইকের প্রতিষ্ঠাতা আসাদ সাত্তার ও মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশ ২০১৯, ফেস অব বাংলাদেশ ২০১৯ ও তারকা মডেল শিরিন আক্তার শিলা।

 কলি