ঢাকা ৩০ আষাঢ় ১৪৩১, রোববার, ১৪ জুলাই ২০২৪

জাপানে ইলেকট্রিক গাড়ির নতুন মডেল উন্মোচন করল বিওয়াইডি

প্রকাশ: ২৮ জুন ২০২৪, ০২:৩৫ পিএম
আপডেট: ২৮ জুন ২০২৪, ০২:৩৬ পিএম
জাপানে ইলেকট্রিক গাড়ির নতুন মডেল উন্মোচন করল বিওয়াইডি
ছবি: সংগৃহীত

চীনের শেনঝেনভিত্তিক বৈদ্যুতিক গাড়ি (ইভি) নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বিল্ড ইয়োর ড্রিমস বা বিওয়াইডি চলতি সপ্তাহে বিদ্যুৎচালিত গাড়ির নতুন মডেল উন্মোচন করেছে। এটি একটি সেডান গাড়ি, যা জাপানের বাজারে এখন পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানটির সবচেয়ে দামি মডেল। জাপানে গ্রাহকরা দীর্ঘদিন ধরে দেশীয় ব্র্যান্ডগুলো পছন্দ করে আসছেন।

শেনঝেনভিত্তিক গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, গত মঙ্গলবার থেকে জাপানে ফ্ল্যাগশিপ ‘সিল’ মডেলের ইভির জন্য অর্ডার নেওয়া শুরু করেছে। দেশটিতে এই গাড়ির রিয়ার-হুইল-ড্রাইভ সংস্করণের প্রস্তাবিত খুচরা মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে জাপানি মুদ্রায় ৫২ লাখ ৮০ হাজার ইয়েন, যা মার্কিন মুদ্রায় প্রায় ৩৩ হাজার ১১১ ডলার। চীনের বাজারে এই মডেলের দাম শুরু হয়েছে চীনা মুদ্রায় ১ লাখ ৭৯ হাজার ৮০০ ইউয়ান থেকে, যা মার্কিন মুদ্রায় প্রায় ২৪ হাজার ৭৫৯ ডলার।

জাপানে বিল্ড ইয়োর ড্রিমসের গাড়ির বাজার সম্প্রসারণ দেশীয় গাড়ি নির্মাতাদের জন্য উদ্বেগের বিষয় হতে পারে। কারণ জাপানি গাড়ির ব্র্যান্ডগুলো চীনের বাজারে বিওয়াইডি ও অন্যান্য চীনা ইভি ব্র্যান্ডের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করেছে। তবে জাপানের বাজারে শুধু ব্যাটারিচালিত গাড়িই বিক্রি করছে বিওয়াইডি। প্রতিষ্ঠানটি দেশটিতে প্লাগ-ইন হাইব্রিড গাড়ি বাজারজাত করেছে না। চীনের বাজারে প্লাগ-ইন হাইব্রিড গাড়ির বড় ধরনের প্রতিযোগী বিওয়াইডি। জাপানের রাজধানী টোকিওতে সিল মডেলের গাড়ি উন্মোচন কালে বিওয়াইডি অটো জাপানের প্রেসিডেন্ট আৎসুকি তোফুকুজি জানান, চলতি বছরের এপ্রিল থেকে জুন মাসে গত বছরের তুলনায় দেশটিতে তাদের গাড়ি বিক্রি কিছুটা কমেছে। জাপান সরকার ইলেকট্রিক গাড়ি উৎপাদনে ভর্তুকি কমিয়ে দেওয়ার ফলে গাড়ির বিক্রি হ্রাস পেয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, তারা জাপানে রিয়ার-হুইল-ড্রাইভ এবং অল-হুইল-ড্রাইভ দুটি সংস্করণ বাজারজাত করবে। উভয় সংস্করণে ৮২ দশমিক ৫৬ কিলোওয়াট আওয়ারের ব্যাটারি থাকবে। রিয়ার-হুইল-ড্রাইভ সংস্করণের গাড়িটি একবার চার্জে ৬৪০ কিলোমিটার চলবে, অন্যদিকে অল-হুইল-ড্রাইভ সংস্করণের গাড়িটি চলবে ৫৭৫ কিলোমিটার।

এর আগে জাপানে অ্যাটো-থ্রি (Atto 3) ও ডলফিন (Dolphin) মডেলের ইলেকট্রিক গাড়ি বাজারে এনেছে বিওয়াইডি। ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ইয়োকোহামায় প্রথম গাড়ি বিক্রি শুরুর পর থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় ২৫ হাজার ইউনিট গাড়ি বিক্রি হয়েছে প্রতিষ্ঠানটির। প্রতি বছর জাপানে অন্তত একটা নতুন মডেল যোগ করার পরিকল্পনার কথাও জানিয়েছে তারা।

শহুরে যানজটের সহজ সমাধান স্কুটার

প্রকাশ: ১২ জুলাই ২০২৪, ০৪:৪১ পিএম
আপডেট: ১২ জুলাই ২০২৪, ০৪:৪১ পিএম
শহুরে যানজটের সহজ সমাধান স্কুটার
ছবি: সংগৃহীত

যানজটের কবলে পড়ে শহুরে জীবন হয়ে উঠেছে বিরক্তিকর। এই সমস্যা থেকে মুক্তির জন্য অনেকেই বিকল্প যানবাহনের কথা ভাবছেন। আর এ ক্ষেত্রে স্কুটার হয়ে উঠেছে জনপ্রিয় একটি বিকল্প বাহন। শহরের যানজটে আটকে থাকার ঝামেলা থেকে মুক্তি পেতে অনেকেই এখন স্কুটার ব্যবহার করছেন। নারী-পুরুষ সকলের কাছেই সহজ বাহন হিসেবে স্কুটার দ্রুত জনপ্রিয়তা অর্জন করছে। হালকা ও চালানো সহজ এই বাহনের উল্লেখযোগ্য সুবিধা তুলে ধরা হলো আজকের আয়োজনে।

চালানো সহজ
স্কুটার চালানো অত্যন্ত সহজ। বাইকের মতো গিয়ার ও ক্লাচের ঝামেলা নেই। যারা সাইকেল চালাতে জানেন, তাদের জন্য স্কুটার শেখা আরও সহজ হবে। ভারসাম্য রক্ষা করতে পারলেই মূলত স্কুটার চালানো শেখা শেষ। রাস্তায় চলাচলের অভ্যাস অর্জনে কিছুদিন সময় লাগবে।

আরামদায়ক
স্কুটারে আরাম করে বসা যায়। সামনের আসনে পা রাখার জন্য প্রশস্ত জায়গা রয়েছে। পেছনের আসনের যাত্রীও সহজে এই বাহনে চড়তে পারেন। বিশেষ করে বয়স্কদের জন্য স্কুটার বাইকের চেয়ে অনেক বেশি আরামদায়ক। কারণ বাইকের পেছনের আসন অনেক সময় সরু ও উঁচু হয়, যা বয়স্কদের জন্য চড়তে অসুবিধাজনক হয়। 

নিরাপদ
বাইকের তুলনায় স্কুটার নিরাপদ কি না তা নিয়ে বিতর্ক থাকলেও, সাধারণভাবে স্কুটারকে বেশি নিরাপদ বলে ধরে নেওয়া হয়। কারণ স্কুটারের গতি বাইকের তুলনায় কম থাকে, যা দুর্ঘটনার সম্ভাবনা কমায়। স্কুটারে পা রাখার জন্য নির্দিষ্ট জায়গা থাকে, যা দুর্ঘটনার সময় আঘাত থেকে রক্ষা করতে পারে। বাইকে পা রাখার জন্য এমন নির্দিষ্ট জায়গা নেই। এর উচ্চতা কম থাকে, এজন্য বাইকের তুলনায় সহজে নিয়ন্ত্রণ করা যায়। তবে স্কুটারে বাইকের তুলনায় সুরক্ষা সরঞ্জাম কম থাকে। স্কুটার বাইকের তুলনায় নিরাপদ হতে পারে, তবে সুরক্ষা সরঞ্জাম ব্যবহার করা এবং সাবধানে চালানো অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

জায়গা
স্কুটারে সিটের নিচে এবং পায়ের কাছে বেশ জায়গা থাকে। সিটের নিচের অতিরিক্ত জায়গায় হেলমেট রাখা যায়। পায়ের কাছে জিনিসপত্র বহন করাও সুবিধাজনক। তবে বাজারে কিছু স্পোর্টি স্কুটার এসেছে, যেগুলোতে পায়ের কাছে জায়গা থাকে না।

ভ্রমণ
থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া, নেপাল, শ্রীলঙ্কাসহ অনেক দেশে ভ্রমণের জন্য স্কুটারের বেশ জনপ্রিয়তা রয়েছে। প্রয়োজনীয় অনুমতি নিয়ে স্কুটারে দেশের ভেতর ও বাইরে ভ্রমণ করতে পারবেন। এতে অর্থ ও সময় দুটোই বাঁচবে।

যানজটের হাত থেকে মুক্তি পেয়ে ঝামেলামুক্ত যাতায়াতের জন্য স্কুটার একটি আদর্শ সমাধান হতে পারে। চালানো সহজ, আরামদায়ক, নিরাপদ ও ভ্রমণ উপযোগী এই সকল দিক বিবেচনা করে শহুরে জীবনে স্মার্ট সমাধান স্কুটার।

/আবরার জাহিন

 

বাজাজের বিশ্বের  প্রথম সিএনজিচালিত মোটরবাইক

প্রকাশ: ১২ জুলাই ২০২৪, ০৪:৩৮ পিএম
আপডেট: ১২ জুলাই ২০২৪, ০৪:৩৮ পিএম
বাজাজের বিশ্বের  প্রথম সিএনজিচালিত মোটরবাইক
ছবি: সংগৃহীত

ভারতীয় মোটরবাইক নির্মাতাপ্রতিষ্ঠান বাজাজ বিশ্বের প্রথম সিএনজিচালিত বাইক উন্মোচন করেছে। ‘বাজাজ ফ্রিডম ১২৫ সিএনজি’ নামে বাজাজ এটিকে পরিচয় করিয়েছে। এই বাইক ঘিরে বাইকপ্রেমীদের মধ্যে আগ্রহ তুঙ্গে। কোনো স্টাইলিশ গঠন কিংবা অন্য কিছু নয়। এই বাইক ঘিরে আগ্রহের মূল কারণ এটি সিএনজি অর্থাৎ কমপ্রেসড ন্যাচারাল গ্যাসে চালানো যাবে। এই জ্বালানির মূল্য পেট্রলের থেকে অনেক কম। ফলে জ্বালানি বাবদ খরচ সাশ্রয় হবে।

ফ্রিডম সিএনজি বাইকে রয়েছে ১২৫ সিসি এয়ার কুলড সিঙ্গল সিলিন্ডার ইঞ্জিন। এটি সর্বোচ্চ ৯ দশমিক ৫ হর্সপাওয়ার এবং ৯ দশমিক ৭ এনএম টর্ক উৎপাদন করতে পারে। ইঞ্জিনটি একটি ৫-স্পিড গিয়ারবক্সের সঙ্গে যুক্ত রয়েছে। বাইকটির ইঞ্জিন ১২৫ সিসির হলেও পারফরম্যান্স দেবে ১০০ সিসির। এটি একটি বাই-ফুয়েল মোটরসাইকেল। অর্থাৎ বাইকটিতে দুই ধরনের জ্বালানির সুবিধা পাওয়া যাবে। এটি সিএনজির পাশাপাশি পেট্রলেও চলবে। পেট্রল ও সিএনজি জ্বালানির বিকল্প খুব সহজেই পরিবর্তন করা সম্ভব। বাইকটির বাঁ দিকের হ্যান্ডেলবারে এই জন্য একটি সুইচ দেওয়া হয়েছে। এক সুইচেই সিএনজি থেকে পেট্রোলে চালানো যায় এই বাইক।

বাইকটিতে সিএনজি সিলিন্ডার কোথায় রয়েছে অনুমান করা কঠিন। এই বাইকের জন্য বাজাজ একটি ইউনিক দুই কেজি সিএনজি ধারণক্ষমতার ট্যাঙ্ক ডিজাইন করেছে, যা এটির সিটের নিচে রয়েছে। এ ছাড়া রয়েছে একটি দুই লিটার ধারণক্ষমতার পেট্রল ট্যাঙ্ক। 
বাজাজের দাবি, ফ্রিডম ১২৫ সিএনজিতে ২১৩ কিলোমিটার পর্যন্ত চলতে পারে। পেট্রোল ট্যাঙ্কে ১১৭ কিলোমিটার পর্যন্ত যেতে পারে। সম্মিলিতভাবে এই বাইকের রেঞ্জ হবে ৩৩০ কিলোমিটার।

বাজাজের এই নতুন সিএনজিচালিত বাইক একটি ট্রেলিস ফ্রেমের ওপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে, যা এই সেগমেন্টে প্রথম। সামনে রয়েছে টেলিস্কপিক ফর্ক ও মোনো শক রিয়ার সাসপেনশন। ফ্রন্টে ১৭ ইঞ্চি টায়ারটিতে একটি ২৪০ মিলিমিটারের ডিস্ক ব্রেক রয়েছে। বাইকটির হুইলবেস ১৩৪০ মিলিমিটার, সিটের উচ্চতা ৮২৫ মিলিমিটার ও গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্স ১৭০ মিলিমিটার। এই বাইকে সামনে রাউন্ড হেডল্যাম্প, ব্লুটুথ, ডিজিটাল মিটার এবং রিভার্স এলইডি কনসোলের মতো অত্যাধুনিক ফিচারও রয়েছে। এতে রয়েছে এলইডি হেডলাইট।

এই বাইকে ৭৮৫ মিলিমিটার দীর্ঘ সিট রয়েছে। বাইকটির মজবুত ট্রেলিস ফ্রেম, এটিকে হালকা ও শক্তিশালী করেছে। কোম্পানি বলছে, বাইকটি ইন্ডাস্ট্রির ১১টি বিভিন্ন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে, এটিকে সম্পূর্ণ নিরাপদ করে তুলেছে। বাইকটিকে সামনে, পাশ, ওপর থেকে এমনকি ট্রাকের নিচে পিষ্ট করেও পরীক্ষা করা হয়েছে।

তিনটি সংস্করণে পাওয়া যাবে হাইব্রিড বাইকটি। সংস্করণগুলো হলো ড্রাম, ড্রাম এলইডি ও ডিস্ক এলইডি। বেসিক সংস্করণের দাম ধরা হয়েছে ভারতীয় মুদ্রায় ৯৫ হাজার রুপি এবং টপ-এন্ড সংস্করণের দাম ১ লাখ ১০ হাজার রুপি।

বাজাজের তথ্যমতে, ইতোমধ্যে ভারতে ফ্রিডম ১২৫-এর বুকিং শুরু হয়েছে। এই মোটরসাইকেল প্রথমে দেশটির গুজরাট ও মহারাষ্ট্র রাজ্যে বিক্রি শুরু হবে, এর পর পাওয়া যাবে গোটা ভারতে। বাজাজ এই সিএনজিচালিত বাইক মিসর, তানজানিয়া, পেরু, ইন্দোনেশিয়া ও বাংলাদেশের মতো অন্যান্য দেশেও রপ্তানি করবে।। মোট সাতটি রঙে এই বাইক পাওয়া যাবে। এর মধ্যে রয়েছে ক্যারিবিয়ান ব্লু, এবোনি ব্ল্যাক-গ্রে, পিউটার গ্রে-ব্ল্যাক, রেসিং রেড, সাইবার হোয়াইট, পিউটার গ্রে-ইয়েলো, আবলুস কালো-লাল রং। বাজাজ দাবি করছে, এই বাইক চলানোর খরচ যেকোনো পেট্রলচালিত বাইক থেকে অনেক কম হবে। দৈনিক ব্যবহারের সময় এর অপারেশন খরচ প্রায় ৫০ শতাংশ কমে যাবে। এতে বাইকটি ৫ বছর ব্যবহারে প্রায় ৭৫ হাজার রুপি সাশ্রয় হবে।

/আবরার জাহিন

নির্দিষ্ট সময়ে গাড়ির ব্যাটারি প্রতিস্থাপন করবে ফেরারি

প্রকাশ: ০৫ জুলাই ২০২৪, ০১:৫৬ পিএম
আপডেট: ০৫ জুলাই ২০২৪, ০১:৫৬ পিএম
নির্দিষ্ট সময়ে গাড়ির ব্যাটারি প্রতিস্থাপন করবে ফেরারি
ফেরারি। ছবি: সংগৃহীত

বিলাসবহুল স্পোর্টস গাড়িনির্মাতা প্রতিষ্ঠান ফেরারি গাড়ির কার্যক্ষমতা ও বাজারমূল্য ধরে রাখতে ব্যাটারি প্রতিস্থাপন প্রকল্প চালু করেছে। গত সোমবার ব্যাটারি প্রতিস্থাপন প্রকল্পের ঘোষণা দেয় ফেরারি।

হাইব্রিড মডেলের গাড়ির জন্য দুটি নতুন ওয়ারেন্টি সেবার প্রকল্প হাতে নিয়েছে ফেরারি। এর আওতায় নির্দিষ্ট সময়ে গাড়ির ব্যাটারি প্রতিস্থাপন করতে পারবেন হাইব্রিড গাড়ির মালিকরা। এই পদক্ষেপের লক্ষ্য ফেরারি গাড়ির পুনঃবিক্রয় মূল্য ধরে রাখতে সাহায্য করা। কারণ সময়ের সঙ্গে সঙ্গে এ ধরনের গাড়ির ব্যাটারির সক্ষমতা কমে যায়। আর বৈদ্যুতিক গাড়ির দাম নির্ধারণে প্রাধান্য পায় ব্যাটারি।

ফেরারি জানিয়েছে, তাদের নতুন ওয়ারেন্টি সেবা হাইব্রিড ও পাওয়ার হাইব্রিড প্রোগ্রামের আওতায় গাড়িগুলোতে অষ্টম ও ১৬তম বছরে হাইভোল্টেজ ব্যাটারি প্যাক প্রতিস্থাপন করবে। এর আগে প্রতিষ্ঠানটি হাইব্রিড পাওয়ার ট্রেনের যন্ত্রাংশের জন্য পাঁচ বছরের ওয়ারেন্টি সেবা চালু করেছে।

স্পোর্টস গাড়িনির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি আরও জানিয়েছে, এই দুটি সেবা পরবর্তী মালিকের কাছে স্থানান্তরযোগ্য হবে। অর্থাৎ ওয়ারেন্টির সময়কালের মধ্যে গাড়ির মালিকানা পরিবর্তন হলেও পরবর্তী যেকোনো মালিক সেবাগুলো ফেরারির কাছে থেকে পাবেন। এটি দীর্ঘ মেয়াদে হাইব্রিড ফেরারি গাড়িগুলোর কার্যকারিতা ও উৎকর্ষ ধরে রাখতে চালু করেছে। ফেরারি আরও বলেছে, ভবিষ্যতে ব্যাটারি প্রযুক্তি উন্নত করতে প্রতিস্থাপিত এইচভিবি ব্যাটারির নতুন ও আধুনিক উপাদান হবে, যা মূল ব্যাটারির মতো একই কার্যকারিতা নিশ্চিত করবে।

এই প্রোগ্রামগুলো পুরো গাড়ি এবং গুরুত্বপূর্ণ পাওয়ার ট্রেন উপাদানগুলোর জন্য ওয়ারেন্টি দেবে। এগুলো দুই থেকে চার বছরের জন্য নবায়নযোগ্য প্যাকেজে যাবে। 
গোপন সূত্রের বরাত দিয়ে জানিয়েছে, এই প্রতিস্থাপন প্রক্রিয়ার জন্য খরচ হবে প্রায় ৭ হাজার ইউরো বা মার্কিন মুদ্রায় প্রায় ৭ হাজার ৫৩০ ডলার। এই সুবিধা আগামী বছরে আসন্ন ফেরারির সম্পূর্ণ বৈদ্যুতিক মডেলেও পাওয়া যাবে।

ফেরারি পেট্রল ইঞ্জিনের জন্য বিখ্যাত। তবে ২০১৯ সাল থেকে হাইব্রিড বৈদ্যুতিক গাড়ি বিক্রি করছে। ২০২৫ সালের শেষের দিকে তাদের প্রথম সম্পূর্ণ বৈদ্যুতিক গাড়ি বাজারে আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

/আবরার জাহিন

টাটা মোটরস আনছে নতুন ৩ গাড়ি

প্রকাশ: ০৫ জুলাই ২০২৪, ০১:৪৯ পিএম
আপডেট: ০৫ জুলাই ২০২৪, ০১:৪৯ পিএম
টাটা মোটরস আনছে নতুন ৩ গাড়ি
ছবি: সংগৃহীত

ভারতের গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান টাটা মোটরস চলতি বছরের বাজারে বেশ কয়েকটি নতুন মডেলের গাড়ি এনেছে। এ বছরে আরও ৩টি নতুন গাড়ি আনছে টাটা মোটরস, যার মধ্যে রয়েছে দুটি এসইউভি ও একটি হ্যাচব্যাক। এই গাড়িগুলোর মধ্যে একটি সিএনজিচালিত, অন্যটি বিদ্যুৎচালিত।