ঢাকা ১০ শ্রাবণ ১৪৩১, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪

পায়ে ব্যথা যা জানতে ও করতে হবে

প্রকাশ: ২৭ জুন ২০২৪, ০৫:৫৪ পিএম
আপডেট: ২৭ জুন ২০২৪, ০৫:৫৪ পিএম
পায়ে ব্যথা যা জানতে ও করতে হবে

পা হলো হাঁটাচলা করা এবং সোজা হয়ে দাঁড়ানোর জন্য শরীরের একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। হাঁটা এবং দাঁড়িয়ে থাকার সময় শরীরের ওজনের ভারসাম্য বজায় রাখতে পায়ের গঠন একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আমেরিকান পেডিয়াট্রিক মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের গবেষণাতে জানা গেছে, ৫০ বছর বয়স পর্যন্ত মানুষের এক জোড়া পা গড়ে ৭৫ হাজার মাইল অতিক্রম করে। ফলে পায়ে দীর্ঘ সময় ধরে ক্ষয়ক্ষতি হয়, আঘাত পায় এবং শারীরিক চাপ সহ্য করে, যেগুলো পায়ের ব্যথার মূল কারণ। মাই উপচার অবলম্বনে জানাচ্ছেন মো. রাকিব

নারীদের চেয়ে পুরুষদের পা ব্যথা বেশি হয়। পায়ের যেকোনো জায়গায় ব্যথা হতে পারে। তবে সবচেয়ে বেশি প্রভাবিত হয় গোড়ালি এবং মেটাটারসালস (গোড়ালি এবং পায়ের আঙুলের মাঝের হাড়)। কারণ এরাই শরীরের ওজন সবচেয়ে বেশি বহনকারী পায়ের অংশ। ঘরোয়া চিকিৎসা করতে চাইলে বরফের প্যাক ব্যবহার করতে পারেন। এ ছাড়া সঠিক মাপের জুতা, যা ধাক্কা সামলাতে পারে। চাইলে গোড়ালির নিচে প্যাড ব্যবহার করতে পারেন। করতে পারেন স্ট্রেচিং ব্যায়াম। এগুলো পায়ের ব্যথা কমাতে সাহায্য করে।

বিভিন্ন রকম পায়ের ব্যথা
একজন ব্যক্তির পায়ের বিভিন্ন অংশে ব্যথা হতে পারে। যেমন-
গোড়ালি ব্যথা: গোড়ালি থেকে পায়ের আঙুল পর্যন্ত সরু এবং লম্বা লিগামেন্টটির প্রদাহকে প্ল্যানটার ফ্যাসাইটিস বলা হয়। গোড়ালির বৃদ্ধি (ক্যালসিয়াম জমে গিয়ে হাড় বড় হয়ে যাওয়া) হলে অথবা লিগামেন্টগুলোয় অতিরিক্ত চাপ পড়লে লিগামেন্টগুলোয় টান পড়ে এবং আঘাত লাগে, ফলে গোড়ালি ব্যথা হয়।

গোড়ালি বা পায়ের পাতার মাঝখানে ব্যথা: অনেকক্ষণ শুয়ে থাকার পর (ঘুম থেকে ওঠার পর) বা বসে থাকার পর উঠে দাঁড়িয়ে প্রথম কয়েকটি পদক্ষেপের ফেলার সময় গোড়ালিতে অসহ্য ব্যথা লাগে। কয়েক পা চলার পর ব্যথা কমতে থাকে। ব্যায়াম করার পর বা অনেক্ষণ হাঁটার পর বা ওই রকমের কোনো কাজের পর ব্যথা বেড়ে যায়। ব্যথার সঙ্গে শিরশিরানি বা অসাড়তাও বোধ হতে পারে।

আচিলিস টেনডিনাইটাস: যে টেনডনটি গোড়ালি আর পায়ের মধ্যে সংযোগ রাখে, তার প্রদাহকে আচিলেস টেনডিনাইটিস বলা হয়। পায়ের পেশির শেষ প্রান্ত উপরের দিকে উঠে গিয়ে আচিলেস টেনডন তৈরি হয়। হাঁটা, লাফানো এবং দৌড়ানোর সময়ে পা নিচের দিকে নামাতে আচিলেস টেনডন সাহায্য করে। অত্যধিক হাঁটা বা দৌড়ানো, পায়ের পেশি শক্ত হয়ে যাওয়া, শক্ত জমির উপরে দৌড়ানো, লাফানো এবং এই রকমের অন্যান্য কার্যক্রমের ফলে টেনডনের প্রদাহ হয়। ফ্ল্যাট ফিট, জুতার নাল এবং আর্থ্রাইটাস আচিলেস টেনডনের প্রদাহ হয়।

মধ্য পাতায় ব্যথা: পায়ের পাতার মধ্যবর্তী স্থানের ব্যথাকে মেটাটারসালজিয়া বলা হয়। সঠিক জুতা না পরা, আর্থ্রাইটাস এবং অত্যধিক খেলাধুলার কারণে গোড়ালি আর আঙুলের মধ্যবর্তী জায়গার হাড়ে ব্যথা হয়। স্থূলতা, চ্যাপটা পায়ের পাতা, ধনুকাকৃতির পায়ের পাতা, আর্থ্রাইটাস, বাত, বুনিয়নস (পায়ের বুড়ো আঙুলের প্রথম গাঁটে বেদনাদায়ক ফোলা), হ্যামারটো (পায়ের পাতা স্থায়ীভাবে নিচের দিকে বেঁকে থাকা), মর্টনের নিউরোমা (ক্যানসার নয় এমন একটি ফোলা যা নার্ভকে চাপ দেয়), ফেটে যাওয়া এবং বয়স্কদের ডায়াবেটিস থেকে মেটাটারসালজিয়া হয়।

পাতার সামনের দিকে ব্যথা: কতগুলো সাধারণ সমস্যা যেমন- বাড়তে থাকা পায়ের নখ, ভেরুসে বা আব, নখে ও ত্বকে ছত্রাকের সংক্রমণ, (অ্যাথলেটস ফুট), কড়া পড়া এবং ক্যালোসাইটস (মোটা ও শক্ত চামড়া), বুনিয়নস, হ্যামার টো, ক্ল ফুট এবং বাত পায়ের পাতের সামনের অংশকে প্রভাবিত করে। সাধারণত যে লক্ষণগুলো দেখা যায়, সেগুলো হল, প্রভাবিত জায়গা ফুলে যাওয়া, খসখসে হয়ে যাওয়া এবং সঙ্গে ধক ধক করা ব্যথা হয়। ব্যথাটা তখন হয় যখন পায়ের নখ ভেতর দিকে বাড়তে থাকে এবং বাত থাকে। বাত হচ্ছে হাড়ের প্রদাহ, বিশেষত পায়ের বুড়ো আঙুলের।
পায়ের পাতার বিকৃতি থেকেও ব্যথা হতে পারে যেমন-
হ্যামার টো: পায়ের পাতা হাতুড়ির মতো দেখতে হয়।

ক্ল ফুট: পায়ের বিকৃতির জন্য পায়ের পাতাকে থাবার মতো দেখতে মনে হয়।

বুনিয়ন: হাড়ে একটি শক্ত পিণ্ড হওয়ার কারণে পায়ের বুড়ো আঙুল ডান দিকের আঙুলের দিকে বেঁকে যায়।

স্নায়ু জড়িয়ে যাওয়া: পায়ের পাতার পেশির সংকোচন হওয়াতে স্নায়ুগুলো জড়িয়ে যায়। ফলে পাতার সামনের দিকে জ্বালা ও ব্যথা হয়। যখন স্নায়ুগুলো জড়িত থাকে তখন পায়ে শিরশির করা এবং অসাড়তা বোধ হয়।

ছত্রাকের সংক্রমণ: ছত্রাকের সংক্রমণ হলে ব্যথার সঙ্গে ফোড়া হয় এবং ত্বক শুষ্ক ও খসখসে হয়ে যায়। নখগুলো ভঙ্গুর হয়ে যায় এবং তাদের রং সাধারণত বদলে যায়।

পায়ের সাধারণ ব্যথা
ইডিমা, হাড়ের ফাটল এবং পাদস্ফোট (দীর্ঘ সময় ধরে কম তাপমাত্রাতে থাকার কারণে ফোলা) পায়ের ব্যথার কারণ। ভেরুসে বা আব, কড়া এবং কলুষতার জন্য পায়ে তীক্ষ্ণ ব্যথা হয়। পাদস্ফোট হলে পায়ে তীব্র ব্যথা হয়। চামড়া ফুলে যায় এবং রং বদলে গাঢ় লাল বা নীল হয়ে যায়।
পায়ের ফাটল এবং প্রদাহ যেমন- রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটাস, বাত, অস্টিওআর্থ্রাইটাস, সোরিয়াটিক আর্থ্রাইটাস এবং অন্যান্য সমস্যা থাকলে অসহ্য ব্যথা হতে থাকে। ব্যথার সঙ্গে সঙ্গে পা ফুলে যায়, ফলে পা নাড়াচাড়া করা কষ্টকর হয়ে পড়ে।

পায়ের পাতার ব্যথার চিকিৎসা
বিভিন্ন প্রকার ওষুধ এবং শল্যচিকিৎসার মাধ্যমে পায়ের ব্যথার নিরাময় করা যায়। প্যারাসিটামল জাতীয় ব্যথা কমানোর ওষুধগুলো অল্প ব্যথায় আরাম দেয়। প্রদাহ কমানোর ওষুধগুলো প্রদাহ হ্রাস করে ব্যথা কমায়। যখন অন্য কিছু আর কাজ না করে তখন কর্টিকোস্টেরইড ওষুধ সেবন করলে এবং ব্যথার জায়গায় ইনজেকশান দিলে পা ব্যথা খুব তাড়াতাড়ি কমে যায়। ইউরিক অ্যাসিড কমানোর ওষুধ দিয়ে বাতের চিকিৎসা করা হয়।

এদিকে পায়ের বিকৃতি ঠিক করার জন্য বিভিন্ন পদ্ধতির অস্ত্রোপচার করা হয়। ফলে যে স্নায়ুগুলো অবরুদ্ধ অবস্থাতে শিরশির করা এবং অসাড়তার সঙ্গে সঙ্গে ব্যথার কারণ থাকে, সেগুলো মুক্তি পায়। পায়ের ব্যথাও ঠিক হয়ে যায়। প্ল্যানটার ফাসিয়াতে চাপ সৃষ্টিকারী শক্ত হয়ে যাওয়া পা, যেগুলো স্ট্রেচিং ব্যায়ামে সাড়া দেয় না, সেই পেশিগুলো গ্যাসট্রোনেমাস রিসেশান পদ্ধতিতে টানটান করা হয়। তাতে ব্যথা কমে যায়। প্ল্যানটার ফাসিয়াকে ছাড়াতে একটা ছোট অপারেশন করা হয়, যাতে শক্ত হয়ে যাওয়া প্ল্যানটার ফাসিয়ার টেনশন কমে ব্যথা নিরাময় হয়।

কলি

 

 

হৃৎপিণ্ড সুস্থ রাখতে যা করবেন

প্রকাশ: ২৫ জুলাই ২০২৪, ১২:৫৯ পিএম
আপডেট: ২৫ জুলাই ২০২৪, ১২:৫৯ পিএম
হৃৎপিণ্ড সুস্থ রাখতে যা করবেন

হৃদরোগে প্রতিবছর বহু মানুষের মৃত্যু হচ্ছে। তবে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই এসব মৃত্যু ঠেকানো সম্ভব। মানুষের দেহের অত্যন্ত ক্ষুদ্র একটি অণুজীব মাইক্রোবায়োম যদি সুস্থ থাকে এবং কোমরের আকার যদি খুব বেশি বেড়ে না যায়, পাশাপাশি রক্তচাপ ও কোলেস্টেরলের মাত্রা কম রাখা যায় তাহলেই হৃদরোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব। বিবিসি অবলম্বনে জানাচ্ছেন মেহেদী

বেশি করে আঁশযুক্ত খাবার খাওয়া
যেসব খাবারে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার বা আঁশ আছে সেসব খাবার খেতে হবে। এসব খাবারের কারণে শরীরে স্বাস্থ্যকর ব্যাকটেরিয়া তৈরি হয়। কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণের মধ্যে রাখতে সাহায্য করে এই ব্যাকটেরিয়া। বেশি আঁশ আছে এরকম সবজির মধ্যে রয়েছে শিম ও মটরশুঁটি জাতীয় সবজি, কলাই ও ডাল জাতীয় শস্য এবং ফলমূল। পুষ্টি বিজ্ঞানীরা বলছেন, আলু এবং শেকড় জাতীয় সবজি খোসাসহ রান্না করলে সেগুলো থেকেও প্রচুর আঁশ পাওয়া যায়। এ ছাড়া তারা হোলগ্রেইন আটার রুটি এবং বাদামি চাল খাওয়ারও পরামর্শ দিয়েছেন।

স্যাচুরেটেড ফ্যাট জাতীয় খাবার কমিয়ে ফেলা
যেসব খাবারে বেশি স্যাচুরেটেড ফ্যাট বা জমাট-বাঁধা চর্বি থাকে সেসব খাবার খেলে শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা বেড়ে যায়। ফলে বেড়ে যায় হৃদরোগের ঝুঁকি। চিজ, দই, লাল মাংস, মাখন, কেক, বিস্কুট ও নারকেল তেলে প্রচুর পরিমাণে স্যাচুরেটেড ফ্যাট থাকে। হৃদরোগ প্রতিরোধ করতে হলে স্যাচুরেটেড নয় এমন চর্বি খেতে হবে। এসব খাবারের মধ্যে রয়েছে তেল সমৃদ্ধ মাছ, বাদাম ও বীজ। দিনের সাধারণ রান্নায় অলিভ অয়েল, রেপসিড, সানফ্লাওয়ার, কর্ন এবং ওয়ালনাট তেল ব্যবহার করা সবচেয়ে ভালো।

দুধের বেলায় স্কিমড বা সেমি-স্কিমড (দুধ থেকে চর্বি সরিয়ে নেওয়া) দুধ খেতে হবে। নিশ্চিত করতে হবে খাবারে যাতে বাইরে থেকে চিনি মেশানো না থাকে। লাল মাংসের বদলে খেতে হবে মুরগির মাংস। 

লবণকে বিদায় জানানো
লবণ বেশি খেলে শরীরে রক্তচাপ বেড়ে যায়। ফলে বৃদ্ধি পায় হৃদরোগ ও স্ট্রোকের ঝুঁকি। দিনে সর্বোচ্চ ৬ গ্রাম (এক চা চামচের পরিমাণ) লবণ খাওয়া যেতে পারে। লবণ কম-বেশি খাওয়া একটি অভ্যাসের ব্যাপার। লবণ যত কম খাওয়া হবে, তার চাহিদাও তত কমে যাবে। এই অভ্যাস বদলাতে মাত্র চার সপ্তাহের মতো সময় লাগে। এ সময় পার হওয়ার পর দেখা যাবে আপনি যে খাবারের সঙ্গে লবণ খাচ্ছেন না, সেটি আপনি বুঝতেই পারবেন না। খাদ্য বিশেষজ্ঞের মতে, লবণের পরিবর্তে মসলা দিয়ে খাবার প্রস্তুত করলে তা হৃদরোগের ঝুঁকি কমাবে।

ভিটামিন ও মিনারেল সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া
যেসব খাবারে ভিটামিন ও খনিজ পদার্থ বেশি থাকে সেগুলো আমাদের সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম এবং পটাশিয়ামের মতো খনিজ উচ্চ রক্তচাপ প্রতিরোধ করে। স্বাস্থ্যকর ও ভারসাম্যপূর্ণ ডায়েটের মাধ্যমেই এসব ভিটামিন ও খনিজ পাওয়া সম্ভব। এসবের জন্যে ট্যাবলেটের ওপর নির্ভর করতে হবে না। তবে তার মধ্যে ব্যতিক্রম হচ্ছে ভিটামিন-ডি। কারও শরীরে ভিটামিন ও মিনারেলের অভাব থাকলে প্রতিদিন পাঁচটি ফল বা সবজি খাওয়া যেতে পারে। সঙ্গে ছোট্ট এক গ্লাস জুস। শিম ও ডাল জাতীয় শস্যও খাওয়া যায়। বাদাম ও বীজ জাতীয় খাবারে থাকে ভিটামিন-ই।

মাছ, দুগ্ধজাত খাবার ও হোলগ্রেইনে পাওয়া যায় ভিটামিন-বি। কলা, আলু এবং মাছে পটাশিয়াম। ডাল ও হোলগ্রেইনে ম্যাগনেসিয়াম। দুগ্ধজাত খাবার ও সবুজ পাতার সবজি থেকে পাওয়া যায় ক্যালসিয়াম।

বেশি মোটা হলে ক্যালরি কমিয়ে দিন
শরীর মোটা হলে তা হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। বিশেষ করে কোমরে চর্বি জমা হলে। পুরুষের কোমর যদি ৩৭ ইঞ্চি আর নারীর কোমর ৩১ দশমিক ৫ ইঞ্চির বেশি হয় তাহলে ওজন কমাতে হবে। ক্যালরি গ্রহণের পরিমাণ কমিয়ে ওজন নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব।

 কলি 

পিঠের ব্যথা কমাবেন যেভাবে

প্রকাশ: ২৫ জুলাই ২০২৪, ১২:৫১ পিএম
আপডেট: ২৫ জুলাই ২০২৪, ১২:৫১ পিএম
পিঠের ব্যথা কমাবেন যেভাবে

পিঠব্যথা প্রতিরোধে সবচেয়ে জরুরি হলো পিঠের ওপর চাপ কমানো। তাই দৈনন্দিন চলাফেরা এবং কাজকর্মের সময় দেহভঙ্গির দিকে খেয়াল রাখতে হবে। কিছু কাজ আছে যেগুলোকে দৈনন্দিন জীবনে অভ্যাসে পরিণত করতে পারলে পিঠে ব্যথা বা ব্যাকপেইন থেকে সহজেই দূরে থাকা সম্ভব। চলুন এমন কিছু অভ্যাস সম্পর্কে জেনে নিই। করোনা ডটগভ ডটবিডি অবলম্বনে লিখেছেন ফখরুল ইসলাম

কম ওজন বহন করা 
ভারী ব্রিফকেস, ল্যাপটপ ব্যাগ, স্যুটকেস কিংবা বাজারের ব্যাগ- এগুলো ঘাড় এবং মেরুদণ্ডে অপ্রয়োজনীয় চাপ প্রয়োগ করতে পারে। তাই শুধু প্রয়োজনীয় জিনিসই বহন করতে হবে। এমন ব্যাগ ব্যবহার করতে হবে যা পিঠে, ঘাড়ে, কাঁধে সমানভাবে ভর বিতরণ করে। যেমন ব্যাকপ্যাক। এটা দুই কাঁধে এক সঙ্গে নিতে হয় বলে ভর পুরো শরীরে সমানভাবে ছড়িয়ে পড়ে। ভারী কিছু বহন করতে হলে চাকাওয়ালা ব্যাগ ব্যবহার করা ভালো।

ব্যায়াম করা
পেট এবং পিঠের চারপাশের পেশীগুলো আমাদের সোজা থাকতে সাহায্য করে। পাশাপাশি পুরো শরীরের ভার বহন করতে সহায়তা করে। তাই এগুলোকে শক্তিশালী করলে পিঠে ব্যথা বা ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা কমাতে পারেন। সপ্তাহে অন্তত কয়েকবার পেট ও পিঠের ব্যায়াম করা ভালো।

সোজা হওয়া
সঠিক দেহভঙ্গি মেরুদণ্ডকে সুস্থ রাখে। দেহভঙ্গি সঠিক না হলে তা মেরুদণ্ডে অপ্রয়োজনীয় চাপ প্রয়োগ করে। যারা দীর্ঘক্ষণ কম্পিউটারের সামনে কাজ করেন, তাদের ব্যাকপেইন হওয়ার আশঙ্কা অন্যদের চেয়ে অনেক বেশি থাকে। তাই চেয়ারে বসার সময় সোজা হয়ে বসতে হবে। দাঁড়ানোর সময়ও সোজা হয়ে দাঁড়াতে হবে। কম্পিউটারের মনিটর প্রয়োজনে উঁচু করে নিতে হবে যেন মাথা ও শিরদাঁড়া সোজা রেখে কাজ করা যায়।


টেবিলে ঝুঁকে কাজ না করা
অফিসের চেয়ারে বসার সময় কিংবা দাঁড়ানোর সময় ঝুঁকে যাওয়া যাবে না। বিশেষ করে যারা প্রতিদিন ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থাকেন বা ‘ডেস্ক জব’ করেন তাদের ঠিকভাবে বসা, বিশেষ করে পিঠকে পেছন থেকে সঠিকভাবে চাপ দিয়ে রাখাটা গুরুত্বপূর্ণ।

চেয়ার ভালো হওয়া খুব জরুরি। এমন চেয়ার বেছে নিতে হবে যেটা পিঠের নিচের দিককে সঠিকভাবে চাপ দিয়ে রাখতে পারবে। খেয়াল রাখতে হবে যেন বসলে হাঁটু নিতম্বের থেকে একটু উঁচুতে থাকে।

একটানা দাঁড়িয়ে অথবা বসে না থাকা
দীর্ঘসময় ধরে এক জায়গায় দাঁড়িয়ে থাকা, বসা বা শুয়ে থাকা পিঠের জন্য স্বাস্থ্যকর নয়। তাই যখন সম্ভব বসা থেকে ওঠা, হাঁটাহাঁটি করা এবং হাল্বা স্ট্রেচ করে পেশী, হাড় এবং মেরদণ্ডকে চাপ থেকে মুক্তি দিতে হবে। এটি পিঠে রক্ত সঞ্চালন বাড়িয়ে দেয় এবং সুস্থ রাখে।


হাঁটুর নিচে বালিশ দিয়ে ঘুমান
উপুড় হয়ে বা চিৎ হয়ে ঘুমালে মেরুদণ্ডে চাপ পড়ে। ঘুমের সময় পা সামান্য উঁচু করে রাখলে পিঠের এই চাপ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। তাই হাঁটুর নিচে বালিশ দিয়ে পিঠের ওপর চাপ অর্ধেক কমে ফেলা সম্ভব।

আপনার ক্যালসিয়াম এবং ভিটামিন ডি গ্রহণের পরিমাণ বাড়ান
পর্যাপ্ত পরিমাণে ক্যালসিয়াম এবং ভিটামিন ডি গ্রহণ করলে মেরুদণ্ডের হাড় মজবুত থাকে। ক্যালসিয়াম অস্টিওপরোসিস প্রতিরোধ করতে সাহায্য করতে পারে, যা নারীদের পিঠে ব্যথার একটি বড় কারণ। দুধ, দই, শাকে ক্যালসিয়াম পাওয়া যায়। ভিটামিন ডি পাওয়া যায় চর্বিযুক্ত মাছ, ডিমের কুসুম, গরুর কলিজা এবং পনিরে। এ ছাড়াও বিভিন্ন ধরনের ক্যালসিয়াম বড়ি পাওয়া যায়, যা কার্যকর। তবে ভিটামিন ট্যাবলেট খাওয়ার আগে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে নিতে হবে।

ধূমপান বাদ
ধূমপান ব্যাকপেইন বাড়িয়ে দিতে পারে। নিকোটিন মেরুদণ্ডের ডিস্কগুলোতে রক্তপ্রবাহকে সীমিত করে দেয়, যার ফলে তারা শুকিয়ে যায় বা ফেটে যায়। ধূমপান রক্তে অক্সিজেনের পরিমাণও হ্রাস করে। ফলে পেশীতে কম পুষ্টি পৌঁছায়। এই দুর্বল, অসুস্থ পিঠ দুর্ঘটনাজনিত স্ট্রেন এবং পিঠে ব্যথা সৃষ্টিকারী টানগুলোর জন্য বেশি ঝুঁকিপূর্ণ।

জুতা বদলানো
হাই-হিলের জুতা পিঠের ক্ষতির কারণ হতে পারে। বিশেষ করে তা যদি কেউ নিয়মিত ব্যবহার করে। তাই অল্প উচ্চতার সমান তলিওয়ালা জুতা - স্যান্ডেল ব্যবহার করতে হবে।

 কলি  

মাংসপেশিতে টান  কারণ ও চিকিৎসা

প্রকাশ: ২৫ জুলাই ২০২৪, ১২:৪৬ পিএম
আপডেট: ২৫ জুলাই ২০২৪, ১২:৪৬ পিএম
মাংসপেশিতে টান  কারণ ও চিকিৎসা

মাংসপেশিতে টানপড়া বা শরীরের কোনো অংশ মচকানো একটি সাধারণ সমস্যা। বিশেষজ্ঞরা এটাকে মাসলপুল, মাসল সোরনেস, স্ট্রেইন, স্প্রেইন, ক্র্যাম্প, স্প্যাজম ইত্যাদি বলে থাকেন। মাংসপেশিতে অতিরিক্ত টান খেলে অথবা টিস্যু ছিঁড়ে যাওয়ার কারণে এমনটা হয়ে থাকে। এতে শরীরের ওই অংশটিতে ভীষণ ব্যথা হয়। ল্যাকটিক অ্যাসিড নিঃসরণের জন্য জ্বালাপোড়া করে। এ কারণে মাংসপেশি নাড়াচাড়া করা যায় না। বিবিসি অবলম্বনে জানাচ্ছেন মো. রাকিব

মাসলপুল হয় যে কারণে
১. শরীরের যেকোনো একটি মাংসপেশি অনেকক্ষণ ধরে ব্যবহৃত হতে থাকলে। 
২. ব্যায়াম, খেলাধুলা বা যেকোনো শারীরিক কসরতের আগে ওয়ার্মআপ বা শরীর গরম না করলে।
৩. পেশি ক্লান্ত থাকা অবস্থায় আকস্মিক নড়াচড়া করলে।
৪. হঠাৎ অতিরিক্ত ভারী কিছু উঠালে।
৫. পেশির অতিরিক্ত ও অনুপযুক্ত ব্যবহার করলে।
৬. মানসিক চাপ ও দুশ্চিন্তা করলে।
৭. অনিয়মিত খাদ্যাভ্যাস বিশেষ করে পানি কম খেলে এবং শরীরে সোডিয়াম ও পটাশিয়ামের অভাব দেখা দিলে।

যারা অতিরিক্ত শারীরিক কসরত করে থাকেন যেমন অ্যাথলেটরা মাসলপুলের সমস্যায় বেশি আক্রান্ত হয়ে থাকেন।
যারা দীর্ঘসময় ধরে কম্পিউটারের সামনে কিংবা চেয়ারে বসে কাজ করেন কিংবা লম্বা সময় যানবাহন চালান, তাদের কাঁধ, ঘাড়, পিঠের মাংসপেশিতে টানপড়ার আশঙ্কা বেশি থাকে।

কখন বুঝবেন মাসলপুল হয়েছে:
১. যদি পেশিতে অনেক ব্যথা হয়। পেশি অনেক দুর্বল হয়ে যায়।
২. আঘাতপ্রাপ্ত জায়গাটি যদি ফুলে ওঠে বা লালচে দাগ পড়ে যায়।
৩. যদি আঘাতপ্রাপ্ত স্থানে স্বাভাবিক ওজন নিতে কষ্ট হয়।
৪. মাংসপেশি আপনা আপনি অনেক শক্ত হয়ে যায়।

মাসলপুল হলে কী করবেন:
ব্রিটেনের জাতীয় স্বাস্থ্যসেবার তথ্য মতে, মাংসপেশিতে টান খাওয়ার প্রথম কয়েকদিন চারটি ধাপে এর চিকিৎসা করতে হবে। যাকে সংক্ষেপে রাইস থেরাপি বলা হয়। এর মাধ্যমে ব্যথা অনেকটাই কমিয়ে আনা যায়।
রাইস থেরাপির ৪টি ধাপ হলো: রেস্ট, আইস, কমপ্রেশন ও এলিভেট।
১. রেস্ট বা বিশ্রাম: সব ধরনের শারীরিক ব্যায়াম বা ক্রিয়াকলাপ বন্ধ রাখতে হবে। আঘাতপ্রাপ্ত স্থানে কখনো কোনো ওজন নেয়া যাবে না।
২. আইস বা বরফ : আঘাতের স্থানে দুই থেকে তিন ঘণ্টা পরপর ২০ মিনিটের জন্য বরফের ব্যাগ দিয়ে রাখতে হবে।
৩. কমপ্রেশন বা সংকোচন : আঘাতপ্রাপ্ত স্থানটির নাড়াচাড়া নিয়ন্ত্রণে একটি ব্যান্ডেজ দিয়ে মুড়িয়ে নিতে হবে।
৪. এলিভেট বা উঁচু করা অর্থাৎ আঘাতের স্থানটি যতটা সম্ভব বালিশের উপরে উঠিয়ে রাখতে হবে।
মাংসপেশির ফুলে ওঠা প্রতিরোধে কোনো অবস্থাতেই আঘাত পাওয়ার প্রথম কয়েকদিন ওই স্থানে গরম সেক দেওয়া বা গরম পানি দেওয়া যাবে না। এ ছাড়া আঘাতের স্থানে কোনো অবস্থাতেই মালিশ করা যাবে না।

চিকিৎসা
মাংসপেশিতে টান পড়লে সঙ্গে সঙ্গে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত । বিশেষ করে, মাংসপেশিতে অতিরিক্ত ব্যথা হলে, ব্যথায় জ্বর উঠে গেলে, কয়েকদিন পরও সেই ব্যথা না কমলে, মাংসপেশির ফুলে ওঠা না কমলে বা বাড়লে, শ্বাস নিতে কষ্ট হলে, মাথা ঘুরতে থাকলে, শরীর ভীষণ দুর্বল হয়ে কাঁপতে থাকলে দ্রুত বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের কাছে নিতে হবে।

মাসলপুল হওয়ার পর পেশির ওই অংশ যদি টান করতে গিয়ে ব্যথা অনুভূত হয়, তাহলে সেই চেষ্টা আর করা যাবে না। এতে পরিস্থিতি হিতে বিপরীত হতে পারে। অনেক সময় মচকানোর এই প্রভাব সাত দিন থেকে শুরু করে ছয় মাস পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে।

মাসলপুল এড়াতে কী করবেন
যেকোনো শারীরিক কসরতের আগে বা ভারী কিছু তোলার আগে অবশ্যই ওয়ার্মআপ করে মাংসপেশিগুলোকে সচল করে নিতে হবে। নিয়মিত ব্যায়াম করতে হবে। দীর্ঘক্ষণ না বসে, ৪০ মিনিট বা এক ঘণ্টা পর পর কয়েক মিনিটের জন্য পায়চারি করতে হবে।

 কলি 

ডায়াবেটিস: প্রতিরোধই রক্ষাকবচ

প্রকাশ: ২৫ জুলাই ২০২৪, ১২:৪৩ পিএম
আপডেট: ২৫ জুলাই ২০২৪, ১২:৪৩ পিএম
ডায়াবেটিস: প্রতিরোধই রক্ষাকবচ

ডায়াবেটিসের ঝুঁকি জানুন, প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিন, নিজেকে রক্ষা করুন- এ প্রতিপাদ্য নিয়ে বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস-২০২৩ উদযাপিত হয়েছে দেশে দেশে। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোয় আফ্রিকার দেশগুলোর পর সবচেয়ে বেশি ডায়াবেটিসের রোগী বাড়ছে। আইডিএফের ২০২১ সালের সমীক্ষা মোতাবেক, পাকিস্তানের পর বাংলাদেশেই ডায়াবেটিস রোগীর প্রাবল্য সবচেয়ে বেশি। টাইপ-২ ডায়াবেটিস এবং জটিলতাগুলো প্রতিরোধ করা সম্ভব। তিনটি ধাপে এই প্রতিরোধ করা যায়।

প্রাথমিক প্রতিরোধ
ডায়াবেটিস হতে না দেওয়াই প্রাথমিক প্রতিরোধের লক্ষ্য। এ কাজে যাদের ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি বেশি সেগুলো চিহ্নিত করে প্রতিরোধের চেষ্টা করা। স্বাভাবিক ওজন ধরে রাখা এবং প্রতিদিন কিছু শারীরিক পরিশ্রমের লক্ষ্যে জীবনযাত্রার পরিবর্তনের মাধ্যমে টাইপ-২ ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করা সম্ভব।

দুটি ভিন্ন ভিন্ন উপায়ে প্রাথমিক প্রতিরোধ করা সম্ভব। একটি বিশেষ জনগোষ্ঠীকে সামনে রেখে তাদের স্বাস্থ্য পরিচর্যায় কিছু পরিবর্তন আনার চেষ্টা করা হয়, যা ডায়াবেটিসের পাশাপাশি উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ এবং অন্যান্য অসংক্রামক রোগ প্রতিরোধে সমান সহায়ক।

যাদের ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি খুব বেশি তাদের ডায়াবেটিস প্রতিরোধ মূলত তিনটি ধাপে করা হয়ে থাকে। যেমন ১. উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠী চিহ্নিত করণ।  এই ধাপে সাধারণ জনগোষ্ঠী থেকে ব্যবহারিক, স্বল্প ব্যয়ে করা সম্ভব এমন সহজ কিছু বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠী চিহ্নিত করা হয়। ২. ঝুঁকির মাত্রা নির্ধারণ। এই ধাপে চিহ্নিত উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীর সকলের গ্লুকোজ খাইয়ে রক্তে গ্লুকোজের মাত্রার পরীক্ষা করা হয়। ৩. ডায়াবেটিস প্রতিরোধের চেষ্টা। এই ধাপে জীবনযাত্রার পরিবর্তনের মাধ্যমে ওজন স্বাভাবিক রাখা ও প্রতিদিন ব্যায়াম করার ব্যাপারে উদ্বুদ্ধ করা হয়, যা ডায়াবেটিস প্রতিরোধে সাহায্য করে। কিন্তু যারা জীবনযাত্রার যথেষ্ট পরিবর্তন করতে পারে না তাদের ক্ষেত্রে কখনো কখনো ওষুধ (মেটফরমিন, গ্লিটাজোন) ব্যবহার করা হয়।

দ্বিতীয় ধাপের প্রতিরোধ
ডায়াবেটিস দ্রুত নির্ণয় এবং এর জটিলতা প্রতিরোধ করা দ্বিতীয় ধাপের প্রতিরোধের অন্তর্ভুক্ত। দ্রুত নির্ণয় করার জন্য উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীর একটি নির্দিষ্ট বিরতিতে ডায়াবেটিস আছে কি না তা পরীক্ষা করে দেখা উচিত। তাছাড়া কম ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীকে ৩৫ বছর বয়সের পর ডায়াবেটিস নির্ণয়ের পরীক্ষা করে দেখা উচিত। দ্রুত নির্ণয়ের পাশাপাশি ডায়াবেটিসের সঠিক নিয়ন্ত্রণ ডায়াবেটিস জনিত জটিলতা প্রতিরোধে সাহায্য করে। এ ব্যাপারে রক্তের গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণ ছাড়াও রক্তের চর্বি, ওজন, রক্তচাপ নির্দিষ্ট মাত্রার ভেতর রাখা জরুরি।

তৃতীয় ধাপের প্রতিরোধে
ডায়াবেটিক ব্যক্তির জটিলতা প্রতিরোধ করে অথবা কমিয়ে রেখে জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন তৃতীয় ধাপের এর উদ্দেশ্য। একই সঙ্গে ডায়াবেটিক ব্যক্তিদের কর্মক্ষম ও স্বাবলম্বী রাখার চেষ্টা করাও এর অংশ। আর তাই, তৃতীয় ধাপের রোগের চিকিৎসার সঙ্গে সরাসরি জড়িত এবং এ ব্যাপারে চিকিৎসকই মুখ্য ভূমিকা পালন করেন। তৃতীয় ধাপের জন্য রক্তের গ্লুকোজের সঠিক নিয়ন্ত্রণ, রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ এবং ওজন স্বাভাবিক রাখার পাশাপাশি জটিলতা অনুসারে বিশেষ বিশেষ পদক্ষেপ নেয়া জরুরি।

ডায়াবেটিস বিশেষজ্ঞ আস্থাশীল যে, যথাযথ পদক্ষেপ নিতে সমর্থ হলে, নিদেন পক্ষে ৫০ শতাংশ ডায়াবেটিসের ঝুঁকিপূর্ণ মানুষকে টাইপ-২ ডায়াবেটিসের হাত থেকে আজীবনের জন্য রক্ষা করা সম্ভব। তাই এ ডায়াবেটিস সেবা দিবসে সবাইকে ডায়াবেটিস প্রতিরোধে সচেষ্ট হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।

লেখক: সহযোগী অধ্যাপক,এন্ডোক্রাইনোলজি বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়

 কলি

 

দেশে প্রথমবার অপারেশন ছাড়া হার্টের অ্যাওর্টিক ভালভ প্রতিস্থাপন

প্রকাশ: ১৪ জুলাই ২০২৪, ১০:৩৯ পিএম
আপডেট: ১৪ জুলাই ২০২৪, ১০:৩৯ পিএম
দেশে প্রথমবার অপারেশন ছাড়া হার্টের অ্যাওর্টিক ভালভ প্রতিস্থাপন
ছবি : সংগৃহীত

দেশে হৃদযন্ত্রের রক্তনালি সুরক্ষিত (করোনারি প্রটেকশন) করে হৃদযন্ত্রে ইন্টারভেনশনাল পদ্ধতিতে অ্যাওর্টিক ভালভ প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। এর ফলে হৃদযন্ত্রের চিকিৎসায় দেশে নতুন এক দিগন্তের সূচনা হলো। অপারেশন ছাড়াই অ্যাওর্টিক ভালভ প্রতিস্থাপন একটি জটিল পদ্ধতি। 

প্রখ্যাত হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. মো. আফজালুর রহমানের নেতৃত্বে গত ১১ জুলাই এ সাফল্য আসে। জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের সাবেক পরিচালক অধ্যাপক ডা. মো. আফজালুর রহমানের বর্তমান কর্মস্থল রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে এ চিকিৎসা হয়।

ডা. মো. আফজালুর রহমান রবিবার (১৪ জুলাই) খবরের কাগজকে বলেন, ‘আমরা আগে থেকেই নিয়মিত ইন্টারভেনশনাল পদ্ধতিতে হৃদযন্ত্রে কৃত্রিম ভালভ প্রতিস্থাপন করে আসছি। তবে হৃদযন্ত্রের প্রধান রক্তনালি সুরক্ষিত করে দেশে এবারই প্রথম আমরা সাফল্যের সঙ্গে অপারেশন ছাড়া হৃদযন্ত্রে অ্যাওর্টিক ভালভ প্রতিস্থাপন করলাম। এই চিকিৎসা নেওয়া রোগী সুস্থ আছেন। রোগীর বয়স ৭৫ বছর।’